পশ্চিমবঙ্গ

পশ্চিমবঙ্গে আয়ুর্বেদিক-ইউনানী চিকিৎসকরাও দিতে পারবেন মৃত্যুসনদ

কলকাতা, ৩০ নভেম্বর – শুধু এমবিবিএস চিকিৎসকরা নন, পশ্চিমবঙ্গে এখন থেকে ইউনানী ও আয়ুর্বেদিক চিকিৎসকরাও ডেথ সার্টিফিকেট বা মৃত্যুসনদ লিখে দিতে পারবেন। এ বিষয়ে এমবিবিএস চিকিৎসকদের সঙ্গে সমানভাবে গ্রহণযোগ্যতা পাবেন ইউনানী ও আয়ুর্বেদিক চিকিৎসকরা। পশ্চিমবঙ্গ সরকারের স্বাস্থ্য দপ্তর এক বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানিয়েছে।

এ বিষয়ে আগেই নির্দেশিকা দিয়েছিল ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার। আয়ুর্বেদ ও ইউনানী চিকিৎসকদের মৃত্যুসনদ লেখা নিয়ে প্রচুর সমস্যা হতো। অনেক সময় দেখা যেতো, দেহ সৎকার করতে গিয়ে আত্মীয়-স্বজনদের বিপাকে পড়তে হচ্ছে।

হোমিওপ্যাথি চিকিৎসাকরা মৃত্যুসনদ দিতে পারেন। কিন্তু একাংশের অভিযোগ ছিল, আয়ুর্বেদিক ও ইউনানী চিকিৎসকরা এটি দিতে পারেন না। অনেক পঞ্চায়েত এলাকায় মরদেহ সৎকারের সময় আয়ুর্বেদিক চিকিৎসকদের দেওয়া শংসাপত্র গ্রাহ্য হতো না।

সার্ভিস ডক্টর ফোরামের সাধারণ সম্পাদক সজল বিশ্বাস বলেন, আধুনিক পদ্ধতিতে চিকিৎসা চলাকালীন কেউ মারা গেলে তার মেডিকেল শংসাপত্র প্রয়োজন হলে তা আয়ুষ-চিকিৎসকদের থেকে পাওয়া কাম্য নয়। তবে বর্তমান পশ্চিমবঙ্গ সরকার যেভাবে ক্রসপ্যাথিতে উৎসাহ দিচ্ছে, তা চিকিৎসা বিজ্ঞানের জন্য ভয়ঙ্কর।

অ্যাসোসিয়েশন অব হেলথ সার্ভিস ডক্টরের সাধারণ সম্পাদক মানস গুমটার মতে, বিষয়টি নিয়ে পরে বিতর্ক হতে পারে। তাই সরকারের উচিত ছিল একটু সময় নিয়ে ভাবনা-চিন্তা করা।

সূত্র: জাগোনিউজ
আইএ/ ৩০ নভেম্বর ২০২২

Back to top button