পশ্চিমবঙ্গ

হাসপাতালে দালালচক্র দেখলেই খবর দিন

কলকাতা, ২৫ নভেম্বর – ‘গাইনি চিকিৎসককে কল দিলেই আসতে হয়। তাদের গাফিলতিতে মৃত্যু হলে চিঠি লিখুন। আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তাছাড়া, পশ্চিমবঙ্গের কোনো হাসপাতালে দালালচক্র দেখলেই পুলিশে খবর দিন’

শুক্রবার (২৫ নভেম্বর) বিধানসভায় অধিবেশন চলাকালীন প্রদেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা নিয়ে নিজেদের স্পষ্ট অবস্থান জানান দিতে এমন মন্তব্য করেন ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের মূখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী।

বিধানসভায় অধিবেশন চলাকালীন ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) বিধায়ক সুমন কাঞ্জিলালের প্রশ্নের উত্তরে স্বাস্থ্য সংক্রান্ত বিষয়ে রাজ্য সরকারের অবস্থান স্পষ্ট করেন মমতা।

তিনি বলেন, শুধু তাই নয়, চিকিৎসকের গাফলতিতে মৃত্যু হলে ক্লিনিক্যাল এস্টাবলিশমেন্ট অ্যাক্ট অনুযায়ী পদক্ষেপ নেওয়া হবে। তাই আমি ডাক্তারদের কাছে অনুরোধ করেছি, রোগীদের আরও বেশি করে যত্ন নিন। স্বাস্থ্য কর্মীদেরও অধিক দায়িত্বশীল হওয়ার অনুরোধ করছি।

এ সময় হাসপাতালে দালালচক্র নিয়েও কঠোর হুশিয়ারি দেন মমতা। সুমন কাঞ্জিলাল আলিপুরদুয়ারে হাসপাতালে আয়া ও দালালচক্র নিয়ে প্রশ্ন করলে মমতা বলেন, বিজেপি বিধায়ক জেনুইন প্রশ্ন করেছেন। এটা বাস্তব সমস্যা। আগে পিজি হাসপাতালেও সমস্যা ছিল।

‘একটা ডেটা ব্যাংক তৈরি করুন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর তদারকি করুন, যাতে কোন হাসপাতালে কী হচ্ছে তা জানা যায়। আমি মনে করি, অব্যবস্থাপনার তদন্ত হওয়া উচিত। দালালচক্র পেলেই ধরবেন।

এদিন পশ্চিমবঙ্গ সরকারের স্বাস্থ্য সাথী কার্ডের মাধ্যমে যাতে রোগীরা চিকিৎসাসেবা পান, সে বিষয়টি নিশ্চিত করারও নির্দেশ দেন মমতা।

তিনি আরও বলেন, অনেক সময় দেখা যায়, বিদেশ থেকে আসা লোকদের কাছ থেকে চিকিৎসার আগেই টাকা চায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এটা কোনোভাবেই মানা হবে না। যারা এসব করবেন, তাদের লাইসেন্স বাতিল করে দেওয়া হবে। আগে চিকিৎসা দিন, পরে অন্য কিছুর হিসাব করবেন।

বিধানসভায় বিরোধীদলের বিধায়করা রাজ্যের স্বাস্থ্য পরিকাঠামোর উন্নয়ন নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। জবাবে মমতা ব্যানার্জী বিরোধীদলের বিধায়কদের সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতে বলেন।

মমতা ব্যানার্জীর মতে, পশ্চিমবঙ্গে মেডিকেল কলেজের সংখ্যা বেড়েছে। দক্ষিণবঙ্গের সঙ্গে উত্তরবঙ্গেও মেডিকেল কলেজের সংখ্যা বেড়েছে। এছাড়া রাঢ়বঙ্গেও বেশ কয়েকটি মেডিকেল কলেজ করা হচ্ছে।

‘পরিকাঠামো উন্নতির কাজও চলছে। কিছুদিন আগে এইচডিইউ ইউনিট তৈরি করা হয়েছে। বিরোধী বিধায়কদের অনুরোধ করবো, তাদের তহবিল থেকে ১০ লাখ রুপি দেওয়া হোক। তাহলে আমাদের কাজ করতে আরও সুবিধা হবে।’

সূত্র: জাগোনিউজ
আইএ/ ২৫ নভেম্বর ২০২২

Back to top button