জাতীয়

ময়মনসিংহে বিএনপির গাড়িবহরে হামলায় আহত ৫, চারটি গাড়ি ভাঙচুর

ময়মনসিংহ, ২২ নভেম্বর – ময়মনসিংহের ফুলপুরে বিএনপির কর্মী সম্মেলনে যাওয়ার পথে নেতাদের অন্তত ৪টি গাড়িতে হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। এছাড়া মোটরসাইকেল ও ইজিবাইক ভাঙচুর করা হয়। বেশকিছু ককটেলও বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। এ সময় আহত হয়েছেন ৫ নেতাকর্মী।

আজ মঙ্গলবার বিকেল ফুলপুর-হালুয়াঘাট সড়কের কুইরা ব্রিজ এলাকায় হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনা ঘটনা ঘটে। আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা এই হামলা করেছেন বলে অভিযোগ বিএনপির।

ফুলপুর পৌরসভার আমুয়াকান্দা বাজারের গরুহাটায় ফুলপুর উপজেলা বিএনপির কর্মী সমাবেশের আয়োজন করা হয় মঙ্গলবার। সেখানে সাবেক এমপি শাহ শহীদ সারোয়ার ও জেলা উত্তর বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক মোতাহার হোসেন তালুকদারের সমর্থকদের মধ্যে আধিপত্য বিস্তার ও মঞ্চে বসাকে কেন্দ্র করে সভার শুরু থেকেই বিশৃঙ্খলা শুরু হয়। দুই পক্ষের নেতাকর্মীদের মধ্যে হাতাহাতি, লাঠিসোঁটা ও চেয়ার নিয়ে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার উত্তাপ ছড়ায় সমাবেশস্থলের বাইরেও।

দুপুর আড়াইটার দিকে ফুলপুর বাসস্ট্যান্ড এলাকায় অন্তত ১০টি ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। গ্রিন রোডস্থ সাবেক এমপি আবুল বাসার আকন্দের বাসার সামনে রাখা তার ব্যক্তিগত গাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করা হয়।

অপরদিকে, বিকেলে হালুয়াঘাট থেকে ফুলপুরের কর্মী সমাবেশ যোগ দিতে আসা বিএনপি নেতাদের ঠেকাতে মহড়া দিতে থাকে যুবলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতাকর্মীরা। খবর পেয়ে দক্ষিণ জেলা যুবদলের সভাপতি রোকনুজ্জামান সরকার, উত্তর যুবদলের সভাপতি শামছুল হক শামছু, সহ-সভাপতি আমিনুল ইসলাম মনি, উত্তর ছাত্রদলের সভাপতি নিহাদ সালমান ডুনন, সাধারণ সম্পাদক রায়হান শরীফ হলুদ কেন্দ্রীয় নেতাদের এগিয়ে আনতে গেলে হামলার শিকার হন। তাদের গাড়িবহরে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর ও আহত করা হয়।

পরে পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হলে সভায় যোগ দেন বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স।

বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স বলেন, সভায় যাওয়ার পথে তার গাড়িবরে হামলা হবে খবর পেয়ে যুবদল-ছাত্রদলের নেতারা এগিয়ে আনতে গিয়ে হামলার শিকার হন। ককটেল ফাটিয়ে, দুই রাউন্ড গুলি করে আতঙ্ক সৃষ্টি করে রড দিয়ে গাড়ি ভাঙা হয়। সমাবেশস্থলে নিজেদের দলের মধ্যে মঞ্চে বসা নিয়ে হাতাহাতি হলেও তা মিটে যায়।

ফুলপুর উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ও পৌর সভার মেয়র শ্বশধর সেন বলেন, তিনি এলাকায় ছিলেন না। যারা হামলা করেছেন তারা আওয়ামী লীগ সমর্থক বলে শুনেছি। অতিউৎসাহী হয়ে এমনটি করেছেন। তবে হামলা কারা করেছেন তা শনাক্ত করা যায়নি।

ফুলপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, হামলার ঘটনা শুনে ঘটনাস্থলে গিয়ে একটি ইজিবাইক ও মোটরসাইকেল পেয়েছেন। বিস্ফোরণের ঘটনাও শুনেছেন। বিষয়টি নিয়ে লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সূত্র: সমকাল
আইএ/ ২২ নভেম্বর ২০২২

Back to top button