ইউরোপ

অর্ধেকের বেশি ইউরোপীয়র ক্রয়ক্ষমতা কমেছে

লন্ডন, ০৮ নভেম্বর – করোনা মহামারি ও ইউক্রেন যুদ্ধের বিরূপ প্রভাব পড়েছে বিশ্ব অর্থনীতিতে। এতে অনুন্নত, কম উন্নত দেশগুলোর পাশাপাশি সংকটে পড়েছে অনেক উন্নত দেশও। জরিপে দেখা গেছে, খাবার, জ্বালানি, বাড়িভাড়া বৃদ্ধির কারণে অতিরিক্ত ব্যয় হওয়ায় গত তিন বছরে অর্ধেকের বেশি ইউরোপীয়র ক্রয়ক্ষমতা কমেছে। এক-চতুর্থাংশ ইউরোপীয় বলছেন, তাঁরা অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তায় পড়েছেন। অর্ধেকের বেশি মানুষ মনে করেন, আগামী কয়েক মাসে পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে পারে। এক জরিপের বরাত দিয়ে গতকাল সোমবার দ্য গার্ডিয়ান এ খবর জানায়।
ফ্রান্সের এনজিও সিকাউরস পপুলায়ারের তত্ত্বাবধানে গবেষণা সংস্থা ইপসোস এ জরিপ চালায়। জরিপে জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধি, ব্যাপক মুদ্রাস্ম্ফীতির কারণে জীবনযাপনের ব্যয় বৃদ্ধির ভয়াবহ প্রভাবের চিত্র উঠে এসেছে।

ফ্রান্স, জার্মানি, গ্রিস, ইতালি, পোল্যান্ড ও যুক্তরাজ্যের ছয় হাজারের বেশি মানুষের ওপর এই জরিপ চালানো হয়। এতে দেখা গেছে, ইউরোপের উন্নত অর্থনীতির এ ছয় দেশের ৫৪ শতাংশ মানুষের ক্রয়ক্ষমতা কমেছে। সবচেয়ে বেশি ৬৮ শতাংশ মানুষের ক্রয়ক্ষমতা কমেছে গ্রিসে। এ হার ফ্রান্সে ৬৩, ইতালিতে ৫৭, জার্মানিতে ৫৪, যুক্তরাজ্যে ৪৮ এবং পোল্যান্ডে কমেছে ৩৮ শতাংশ। ৮০ শতাংশ মানুষ জানান, দৈনন্দিন জীবনে তাঁরা খরচ কমাতে নানা বিষয়ে আপস করতে বাধ্য হচ্ছেন। ভ্রমণ কমিয়েছেন ৬২ শতাংশ; বন্ধু-বান্ধবের কাছ থেকে ধারদেনা বেড়েছে ৪২ শতাংশ; ৪০ শতাংশ মানুষ দ্বিতীয় চাকরি খুঁজছেন। সবচেয়ে চোখে পড়ার মতো, ২৯ শতাংশ ইউরোপীয় একবেলা খাবার বন্ধ রাখছেন; ঘর হারানোর আতঙ্কে আছেন ২৭ শতাংশ।

জরিপে অংশগ্রহণকারীদের ২৭ শতাংশ জানান, তাঁদের আর্থিক পরিস্থিতি অনেকটাই অনিশ্চিত। তাঁরা বলছেন, অপ্রত্যাশিত বড় ধরনের কোনো একটি খরচই তাঁদের সবকিছু পাল্টে দিতে পারে। ৫৫ শতাংশ লোক বলছেন, তাঁদের দেনা পরিশোধের তাড়া আছে। অনেকে মনে করছেন, তাঁদের ভবিষ্যৎ আরও খারাপ হতে পারে। বিশেষ করে ইতালীয় ও গ্রিকরা বেশি উদ্বিগ্ন।

শিশুদের জীবনমান ঠিক রাখতে এসব দেশের ৭২ শতাংশ মানুষ অবসরকালীন উদযাপন-ব্যয় ৭৬ শতাংশ কমিয়েছেন; চুল ও সৌন্দর্যচর্চা কমিয়েছেন ৭২ শতাংশ মানুষ; কাপড়চোপড় কেনার বাজেটও কমেছে ৭২ শতাংশ।

সূত্র: সমকাল
এম ইউ/০৮ নভেম্বর ২০২২

Back to top button