জাতীয়

চুরির কারণে দেশে বিদ্যুৎ নেই

ঢাকা, ২৪ অক্টোবর – দেশে বর্তমানে বিদ্যুৎ সংকট চলছে। আর এই সংকটের জন্য সরকারকে দায়ী করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, চুরির কারণে দেশে বিদ্যুৎ নেই, রিজার্ভ নেই। সোমবার (২৪ অক্টোবর) দুপুরে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদবিষয়ক উপদেষ্টা তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরীর বক্তব্যের প্রসঙ্গ টেনে মির্জা ফখরুল বলেন, আজকে দেশে বিদ্যুৎ নেই। বলা হচ্ছে দেশে না কি বিদ্যুৎ উৎপাদনে স্বয়ংসম্পন্ন। তাদের না কি এখন পয়সা নেই। তাহলে ৪২ বিলিয়ন রিজার্ভ গেলো কোথায়? তৌফিক ইলাহী বলেছেন- দিনে বিদ্যুৎ দিতে পারবো না, রাতে দিতে পারবো। এ হলো উন্নয়নের রোল মডেল?

আওয়ামী লীগ দেশের ক্ষতি ও ধ্বংস সাধন করেছে উল্লেখ করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, তারা দেশের রাজনৈতিক কাঠামো ধ্বংস করেছে। তারাই কিন্তু তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে ১৭৩ দিন হরতাল করেছিল। আমরা কিন্তু তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা দিয়েছিলাম। সেই সরকারের অধীনে নির্বাচন কিন্তু সবাই মেনে নিয়েছে। এখন আওয়ামী লীগ সেই তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিল করেছে বিচার বিভাগকে ব্যবহার করে।

তিনি আরও বলেন, আমাদের আওয়ামী লীগের হাত থেকে রক্ষা করতে হবে। বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে হবে। তারেক রহমানকে ফিরিয়ে আনতে হবে। আজকে ৩৫ লাখ নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দেওয়া হয়েছে। অসংখ্য সাংবাদিক ও বুদ্ধিজীবীকে আটক করেছে।

তিনি আরও বলেন, শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান যেই বাংলাদেশ চেয়েছিলেন সেই সমৃদ্ধ বাংলাদেশ আমরা গড়বো। সুশাসন ও সততার মধ্য দিয়ে দেশকে পরিচালনা করবো। ইনশাআল্লাহ আমরা সবাই মিলে বর্তমান যুদ্ধে জয়লাভ করবো। তরুণদের এগিয়ে আসতে হবে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান বলেন, আজকে দেশ না কি বিদ্যুতের উৎপাদনে ভেসে যাচ্ছে। কেন এত লোডশেডিং? তো এত বিদ্যুৎ গেলো কোথায়? সরকারের জ্বালানি উপদেষ্টা কেন বললেন দিনে বাতি বন্ধ করতে হবে? বাংলাদেশ না কি বিদ্যুতে স্বয়ং সম্পন্ন? হাতিরঝিলে বিদ্যুৎ উৎপাদন নিয়ে উৎসব পালন করা হয়েছিল। এতো বিদ্যুৎ গেলো কোথায়?

জিয়াউর রহমান ফাউন্ডেশনের (জেডআরএফ) ২৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে এই আলোচনা সভা হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন জেডআরএফের নির্বাহী পরিচালক অধ্যাপক ডা. ফরহাদ হালিম ডোনার। আরও বক্তব্য রাখেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান, ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির আহ্বায়ক আমান উল্লাহ আমান প্রমুখ।

সূত্র: জাগো নিউজ
এম ইউ/২৪ অক্টোবর ২০২২

Back to top button