মিডিয়া

সাংবাদিককে পিটিয়ে হত্যা চেষ্টা

পাবনা, ০৭ অক্টোবর – পাবনার ভাঙ্গুড়ায় এক সাংবাদিককে পিটিয়ে হত্যার চেষ্টা করেছে দূর্বৃত্তরা। গুরুতর আহত ওই সাংবাদিকের নাম সিরাজুল ইসলাম আপন। তিনি জাতীয় দৈনিক প্রতিদিনের সংবাদ পত্রিকার ভাঙ্গুড়া উপজেলা প্রতিনিধি হিসেবে কর্মরত আছেন।

আপন উপজেলার অষ্টমনিষা গ্রামের কলিমুদ্দীনের ছেলে। বৃহস্পতিবার রাত ১০টার দিকে মৃতপ্রায় অবস্থায় উপজেলার কলকতি ঘাট এলাকায় ফেলে রেখে গেলে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে ভাঙ্গুড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে সেখানের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য পাবনা সদর হাসপাতালে প্রেরন করেন।

ভাঙ্গুড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক কৌশিক খান জানান, ভিকটিম পর্যবেক্ষন করে প্রাথমিকভাবে ধারনা করা যাচ্ছে প্রচণ্ড আঘাতের ফলে তার ফুসফুস ও হার্ট মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। তার উন্নত চিকিৎসার প্রয়োজন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সিরাজুল ইসলাম উপজেলা শহর থেকে প্রায় ৮ কিলোমিটার দূরে অষ্টমনীষা বাজারে বসবাস করেন। সেখানে তার ইলেকট্রনিক্সের দোকান রয়েছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় প্রেসক্লাবের মিটিংয়ে অংশ নিতে সিরাজুল ভাঙ্গুড়ায় আসেন। মিটিং শেষে মোটরসাইকেলে করে তিনি অষ্টমনীষার উদ্দেশ্যে রাত পৌনে দশটার দিকে রওনা দেয়।

ভাঙ্গুড়া থেকে তিন কিলোমিটার দূরে নির্জন কলকতি ঘাট এলাকায় পৌঁছালে দুটি মোটরসাইকেলে ৬ জন দুর্বৃত্ত সিরাজুলকে পথরোধ করে মোটরসাইকেল থেকে নামিয়ে ব্যাপক মারধর করে। পরে ওই রাস্তায় চলাচলকারী একজন ভ্যানচালক তাকে দেখতে পেয়ে এলাকাবাসীর খবর দেয়। পরে এলাকাবাসী সিরাজুলকে উদ্ধার করে ভাঙ্গুড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়।

কিন্তু অবস্থা মুমূর্ষ হওয়ায় তাৎক্ষণিক সিরাজুলকে আপনার সদর হাসপাতালে স্থানান্তর করেন কর্তব্যরত মেডিকেল অফিসার কৌশিক খান।

ভাঙ্গুড়া প্রেস ক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদক রায়হান আলী বলেন, সিরাজুলের শারীরিক অবস্থা খুবই খারাপ। তাকে নিয়ে এখন হাসপাতালে আছি। থানায় অভিযোগ করা হয়েছে। দ্রুত এ বিষয়ে স্থানীয়ভাবে বিভিন্ন প্রতিবাদ কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।

ভাঙ্গুড়া থানার ওসি রাশিদুল ইসলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে বলেন, সাংবাদিকদের উপর হামলা অত্যন্ত ন্যাক্কারজনক। হামলাকারীদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনা হবে।

সূত্র: যুগান্তর
আইএ/ ০৭ অক্টোবর ২০২২

Back to top button