ক্রিকেট

কারো সঙ্গে আমার ঝামেলা হয়নি: নাফিস ইকবাল

ঢাকা, ০২ অক্টোবর- হঠাৎ জাতীয় দলের ম্যানেজারের পদে পরিবর্তন আনা হয়েছে। নিউজিল্যান্ডে আসন্ন ত্রিদেশীয় সিরিজ ও অস্ট্রেলিয়া টি ২০ বিশ্বকাপে সাবেক ক্রিকেটার নাফিস ইকবালকে সরিয়ে তার জায়গায় দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে রাবিদ ইমামকে।

রাবিদ বিসিবির মিডিয়া কমিটির সিনিয়র ম্যানেজার।

গুঞ্জন রয়েছে, ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবালের বড় ভাই নাফিস ইকবালের বিরুদ্ধে খেলোয়াড়রা অভিযোগ করায় তাকে সরিয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড।

বিসিবির একজন পরিচালক জানিয়েছেন, ক্রিকেটারদের একাংশের অভিযোগ— নাফিসের কাছ থেকে ভালো ব্যবহার পাননি তারা। জিম্বাবুয়ে সফর থেকে ফিরে টিম ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদ সুজনের কাছে অভিযোগ দেন তাদের কেউ কেউ। বিষয়টি বিতর্কিত পর্যায়ে যাওয়ার আগেই ম্যানেজার পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত নেয় বোর্ড।

তবে বাদ পড়ার দুদিন পর সব অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে উড়িয়ে দিয়েছেন নাফিস ইকবাল।

শনিবার রাতে নিজের ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে সাবেক এই ওপেনার লিখেছেন, ‘মিথ্যা অভিযোগের জবাব দেওয়ার সর্বোত্তম উপায় হাসি। সর্বশক্তিমান আল্লাহর প্রতি প্রতি বিশ্বাস রাখছি।’

নাফিস বলেন, ‘বিগত এক বছর ধরে দায়িত্বে ছিলাম, দলের কোন খেলোয়াড় কিংবা টিম ম্যানেজমেন্টের কারো সঙ্গেই আমার ঝামেলা হয়নি কখনো। এ সময় আমাদের পারফর্ম্যান্স উঠা নামা করেছে কিন্তু পরিবেশ খুবই সুন্দর ছিল।’

নাফিসের দাবি বাদ পড়ার বিষয়টি তিনি আগেই জানতেন। সবশেষ আরব আমিরাত সিরিজের আগেই পদ থেকে তাকে সরানোর বিষয়ে জানানো হয়েছিল এবং সম্মানের সঙ্গেই তাকে বিদায় দেওয়া হয়েছে বলে দাবি করেছেন তিনি।

এ বিষয়ে নাফিস গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আমাকে তো আরব আমিরাত সফরের আগেই জানানো হয়েছিল এবং সেটা সম্মানের সঙ্গেই আমাকে জানানো হয়েছিল। আমি আগে ক্রিকেট অপারেশন্সের ডেপুটি ম্যানেজার ছিলাম, এখনও তাই আছি। দলে আসলে ফিক্সড টিম ম্যানেজার বলে কেউ নাই, এটা আসলে রোটেশান পলিসি বলা যায়। আমি বিসিবির সিদ্ধান্তকে অবশ্যই সম্মান জানাই।’

নাফিস হতাশার সুরে বলেন, ‘অনেক সময় ভিত্তিহীন অনেক নিউজ হয়, যদি করতেই হয় তাহলে প্রোপার এভিডেন্স নিয়ে করুক। জানিয়ে দিক কে কথাটা বলেছে, তাহলে জানতে পারব সবকিছু। এখন হয়তো কোনো ইস্যু সামনে এসেছে। এজন্য আমাকে আর দায়িত্ব দেওয়া হচ্ছে না। তবে আমি এ নিয়ে কোনো প্রশ্ন তুলিনি। ’

সূত্র: যুগান্তর
আইএ/ ০২ অক্টোবর ২০২২

Back to top button