জাতীয়

তথ্যপ্রাপ্তিতে বাধা দূর হলে জনগণের ক্ষমতায়ন সুদৃঢ় হবে: রাষ্ট্রপতি

ঢাকা, ২৮ সেপ্টেম্বর – রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেন, তথ্য অধিকার আইনের সুফল জনগণের দোরগোঁড়ায় পৌঁছে দিতে তথ্য কমিশন নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। তথ্যপ্রাপ্তির ক্ষেত্রে বিদ্যমান বাধা দূর করতে হবে। তাহলে সমাজ ও রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলোর ওপর জনগণের ক্ষমতায়নকেও সুদৃঢ় হবে।

বুধবার (২৮ সেপ্টেম্বর) ‘আন্তর্জাতিক তথ্য অধিকার দিবস ২০২২’ উপলক্ষে দেওয়া বাণীতে তিনি এ কথা বলেন।

রাষ্ট্রপতি বলেন, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি সুশাসনের অন্যতম নিয়ামক। তথ্যের অবাধ প্রবাহ ও জনগণের তথ্য অধিকার নিশ্চিতের লক্ষ্যে প্রণীত হয়েছে ‘তথ্য অধিকার আইন ২০০৯’। এ আইনের মাধ্যমে নাগরিকরা তথ্যে প্রবেশাধিকার পাচ্ছে। তথ্য কমিশনের পাশাপাশি সব সরকারি-বেসরকারি সংস্থা, প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া, নাগরিক সমাজ, জনপ্রতিনিধি ও রাজনৈতিক নেতাসহ দেশের সর্বস্তরের জনগণের স্বতস্ফূর্ত অংশগ্রহণে তথ্য অধিকার আইন পরিপূর্ণতা পেতে পারে।

তিনি বলেন, তথ্যের অবাধ প্রবাহ নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও ‘আন্তর্জাতিক তথ্য অধিকার দিবস ২০২২’ উদযাপনের উদ্যোগকে আমি স্বাগত জানাই। এবারের আন্তর্জাতিক তথ্য অধিকার দিবসের প্রতিপাদ্য ‘তথ্য প্রযুক্তির যুগে জনগণের তথ্য অধিকার নিশ্চিত হোক’ সময়োপযোগী হয়েছে বলে মনে করি। আমি ‘আন্তর্জাতিক তথ্য অধিকার দিবস ২০২২’ উপলক্ষ্যে ‍গৃহীত সব কর্মসূচির সাফল্য কামনা করি।

রাষ্ট্রপতি আরও বলেন, তথ্য অধিকার আইন জনগণের কল্যাণে প্রণীত। তথ্যের অবাধ, সঠিক ও সময়োচিত প্রকাশ একদিকে যেমন জনগণের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি করবে, অন্যদিকে কর্তৃপক্ষের সুশাসন নিশ্চিত হবে। জনগণ ও রাষ্ট্রের মধ্যে আস্থার সম্পর্ক সমুন্নত থাকবে।

সূত্র: জাগোনিউজ
আইএ/ ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২

Back to top button