জাতীয়

এনআইডিতে ডিএনএর তথ্য সন্নিবেশের সুপারিশ

ঢাকা, ২৩ সেপ্টেম্বর – জাতীয় পরিচয়পত্রে (এনআইডি) ডিএনএ তথ্য সন্নিবেশ, স্থায়ী ঠিকানা দৃশ্যমান করা, ডাটাবেইজে বাবা-মায়ের নাম ইংরেজিতে লিপিবদ্ধ এবং স্মার্টকার্ডে চিপ ব্যবহারের পক্ষে মত দিয়েছেন বক্তারা। ‘জাতীয় পরিচিতি যাচাই সেবা, সেবার প্রকৃতি, সমস্যা ও উত্তরণের উপায়’ শীর্ষক এক সেমিনারে এসব মতামত উঠে এসেছে। গতকাল রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনের নির্বাচন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে এই সেমিনার হয়।

সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন ইসি কার্যালয়ের সচিব হুমায়ূন কবীর খোন্দকার। আলোচনায় অংশ নেন নির্বাচন কমিশনার আহসান হাবিব খান, রাশেদা সুলতানা, মো. আলমগীর ও আনিছুর রহমান, ইসি কার্যালয়ের অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথ, এনআইডির ডিজি এ কে এম হুমায়ূন কবীর। প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন প্রকল্প পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আবুল কাশেম মো. ফজলুল কাদের।

আহসান হাবিব খান বলেন, সরকারি-বেসরকারি ১৬৪টি প্রতিষ্ঠান ইসির কাছ থেকে ইকোওয়াইসি সেবা গ্রহণ করছে। এই সেবা থেকে অর্জিত অর্থ রাজস্ব খাতে জমা হচ্ছে।

সেমিনারে এনআইডি সংশ্নিষ্ট কর্মকর্তারা ছাড়াও সেবা গ্রহণকারী সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রতিনিধি, এনবিআর, পাসপোর্ট অধিদপ্তর ও বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে সেবাগ্রহীতাদের প্রতিনিধি ও সংশ্নিষ্ট ইসি কর্মকর্তারা প্রায় একডজন সুপারিশ তুলে ধরেন সেমিনারে। সুপারিশগুলোর মধ্যে রয়েছে এনআইডিতে ফেস রিকগনিশন (মুখম ল শনাক্তকরণ) সিস্টেম, ডিএনএ (ডিঅক্সিরাইবো নিউক্লিক এসিড) তথ্য যুক্ত করা, এনআইডি স্থায়ী ঠিকানা দৃশ্যমান করা, সব নাম ইংরেজিতে লিপিবদ্ধ করা, স্থায়ী ঠিকানা ইংরেজিতে লিপিবদ্ধ করা, অনলাইনে কার্ড সংশোধনের ক্ষেত্রে একাধিকবার নিজের এনআইডি ডাউনলোডের সুযোগ দেওয়া, স্মার্টকার্ডের চিপের ব্যবহার করা, ব্যাংকগুলোতে এনআইডি যাচাইয়ে গ্রাহকের কাছ থেকে অতিরিক্ত অর্থ আদায় রোধে ব্যবস্থা নেওয়া ইত্যাদি।

সূত্র: সমকাল
আইএ/ ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২

Back to top button