অভিমত/মতামত

মেয়েদের ফুটবলে স্বপ্নজয় ও এক অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের প্রতিচ্ছবি

সুমনা গুপ্তা

অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হয়ে সবাইকে চমকে দিয়েছে বাংলার বাঘিনীরা। বিশ্ব দরবারে উড়িয়েছে লাল-সবুজের বিজয় নিশান। অসীম বিক্রমে বজায় রেখেছে মাতৃভূমির সম্মান।

বঙ্গবন্ধু তার অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশকে যেভাবে দেখতে চেয়েছিলেন, সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে নারী ফুটবল দলটি যেন তারই প্রতিনিধিত্ব করেছে। এই দলটি বাংলাদেশের মুসলিম, হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান ও ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীদের প্রতিনিধিত্ব করে। বাংলাদেশ যে এই বহুত্বকেই লালন করে, এই দলটি যেন তারই এক প্রতিচ্ছবি।

আবার, যে নারীকে পদে পদে হতে হয় নানা বৈষম্যের শিকার, সেই নারীই অদম্য প্রচেষ্টায় বাংলাদেশকে জিতিয়ে এনেছে। এটা আমাদেরকে আবার ভাবতে শেখায় যে নারীকে অবদমিত করে নয়, বরং দ্বার খুলে পূর্ণ স্বাধীনতা দিলে সেও হতে পারে এক উজ্জ্বল নক্ষত্র।

মনে পড়ছে বেশ বছর আগের একটি ঘটনার কথা। একজন নারী ফুটবলারকে বাসের মধ্যে হেনস্থা করা হয়েছিল শুধু হাফপ্যান্ট পরে ফুটবল খেলার অপরাধে। আবার, এক নারী ফুটবলারের বাবাকে পেটানো হয়েছিল এই অপরাধে যে তার মেয়ে হাফপ্যান্ট পরে ফুটবল খেলে।

প্রশ্ন জাগে, বেগম রোকেয়া যে অবরোধবাসিনীদের মুক্তির কথা বলেছেন এতগুলো বছর আগে, নারীকে সূর্যস্পর্শা হওয়ার অপরাধে আজও বেড়ি পরতে হয় পদে পদে। যে নারীরা বিজয় ছিনিয়ে এনেছে দেশের জন্য, দেশকে দিয়েছে সম্মান বা পতাকাকে দিয়েছে উচ্চতা—তাদের এই সফলতার পেছনেও যে কত রক্তচক্ষু বা কত অপমানের ইতিহাস জড়িত, তা সহজেই অনুমান করা যায়। যদি সত্যিকার অর্থেই আমরা যে একটা সভ্য সমাজে বসবাস করার কথা নিজেরা স্বীকার করি, তাহলে সেখানে মানুষের পোশাক নির্ধারণ বা স্বাচ্ছন্দ্যময় পোশাক পরার স্বাধীনতা থাকা উচিৎ। অন্যথায়, সেটা স্বাধীনতার নামে অবদমিত করে রাখা হয়।

লিঙ্গবৈষম্য দূরীকরণ এবং প্রথাগত ধারণাকে ভেঙে ফেলা এখনো সম্ভব হয়নি। বাস্তবতা হলো, একজন নারী বা কিশোরী খেলোয়াড়কে নানা ধরনের বৈষম্য ও চ্যালেঞ্জ নিয়ে এগিয়ে যেতে হয়। একইসঙ্গে খেলাধুলাকে কেন্দ্র করে একজন খেলোয়াড়, রেফারি, ধারাভাষ্যকার, এমনকি ক্রীড়া সাংবাদিক লিঙ্গবৈষম্যের শিকার হন। নারী ও পুরুষ ফুটবলারদের বেতনেও রয়েছে বৈষম্য। নারী ফুটবলাররা যে টাকা বেতন পান, তা দিয়ে নিজের পরিচর্যা করা, নিজেকে ফিট রাখা বা খেলা চালিয়ে যাওয়াই কষ্টকর। জীবনধারণ করা তো অনেক দূরের ব্যাপার। ক্রীড়াঙ্গনে নারী-পুরুষের আয়ের এই বিশাল বৈষম্য বন্ধ করতে হবে। নারী খেলোয়াড়রা যাতে মর্যাদাপূর্ণ জীবনযাপন করতে পারেন, সেটা নিশ্চিত করতে হবে।

নারীদের অর্জনের মূল্যায়ন খুবই জরুরি। তখনই তারা সামনে এগিয়ে যেতে আরও উৎসাহিত হবেন। খেলাধুলার এই ক্ষেত্রে লিঙ্গবৈষম্য করা উচিত না।

এ ছাড়া, সামাজিকভাবে লিঙ্গবৈষম্য, সমালোচনা ও সুযোগ-সুবিধার ক্ষেত্রেও বৈষম্যের শিকার হন নারী খেলোয়াড়রা। ক্রীড়া ক্ষেত্রে নারী-পুরুষের ভেদাভেদ খুবই দুঃখজনক। এটি নারীর ক্ষমতায়নের অন্তরায়। নারী খেলোয়াড়দের প্রতি তাই রাষ্ট্রীয় বিনিয়োগ বাড়াতে হবে।

আন্তর্জাতিক ফুটবল রেফারি জয়া চাকমা তার এক সাক্ষাতকারে বলেছিলেন, ‘নারী খেলোয়াড়রা ঠিকভাবে প্রশিক্ষণও পান না। জাতীয় পর্যায়ে যখন খেলার বিষয় আসে, তখন পৃষ্ঠপোষক পাওয়া যায় না। সরকারি বা বেসরকারিভাবে যে আর্থিক সহযোগিতা দরকার, তা পাওয়া যায় না।’

আজ একবিংশ শতাব্দীতে দাঁড়িয়েও মেয়েদের পোশাকের দোহাই দিয়ে খেলার জগৎ থেকে দূরে সরিয়ে রাখা হচ্ছে বা নানাভাবে সমালোচনা করা হচ্ছে। আমরা অনেকেই জানি না, উপযুক্ত পোশাক পরেও যেকোনো খেলায় অংশগ্রহণ ও ভালো ফলাফল করা সম্ভব। ইদানীং মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে নারীরা বিভিন্ন খেলায় সাফল্যের সঙ্গে অংশ নিচ্ছেন। কাজেই, পোশাক নয়, আমাদের চিন্তার জগতের পরিবর্তন দরকার।

কিছু মানুষ ধর্মান্ধতার বুলি আওরিয়ে সাধারণ মানুষের মন নিয়ে নানা খেলা খেলে নিজেদের ফায়দা লুটতে। এই অগ্নিকন্যারা দেশের জন্য সম্মান নিয়ে এলো। কিছু মতলববাজ কুচক্রীরা এখানেও ধর্মান্ধ কুসংস্কার তুলে ধরার চেষ্টা করতে পিছপা হবে না।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নারীর ক্ষমতায়ন ও সমতায়নে বিশ্বাসী ছিলেন। খেলাধুলায় নারীর অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে ১৯৭২ সালের ১৯ ফেব্রুয়ারি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশ মহিলা ক্রীড়া সংস্থা প্রতিষ্ঠা করেন। আমার দেখা নয় চীন বইটিতে বঙ্গবন্ধু বলেছেন, ‘নয়াচীনের উন্নতির প্রধান কারণ পুরুষ ও মহিলা আজ সমানভাবে এগিয়ে এসেছে দেশের কাজে। সমানভাবে সাড়া দিয়েছে জাতি গঠনমূলক কাজে। তাই জাতি আজ এগিয়ে চলেছে উন্নতির দিকে।’ নয়াচীন সরকারের বিভিন্ন বড় বড় পদে নারীদের অবস্থান বঙ্গবন্ধুকে উজ্জীবিত করেছিল। আর তাই, বাংলাদেশেও তিনি নারীকে সেই সম্মানজনক জায়গাটি দিয়েছিলেন। তার এক পুত্রবধূ ছিলেন বিখ্যাত ক্রীড়াবিদ।

মেয়েদের জন্য বিভিন্ন লীগ চালু করা, কৃতী খেলোয়াড়দের বিদেশে টুর্নামেন্টে খেলার সুযোগ করে দেওয়া, নানা ধরনের অর্থনৈতিক প্রণোদনার ব্যবস্থা করা এবং মেয়েদের উন্নতির জন্য বাফুফের অর্থ বরাদ্দ বাড়ানো দরকার। সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি উদ্যোক্তাদেরও এ রকম আয়োজনে উৎসাহিত করা উচিত। তাহলে মেয়েদের মধ্যেও আন্তর্জাতিক পেশাদার মানের খেলোয়াড় তৈরি হবে। তখন দক্ষিণ এশিয়া ছাপিয়ে আমাদের ফুটবল কন্যারা আরও বড় আসরে খেলার চিন্তা করতে পারবেন। আমরা আশা করব, খেলাধুলায় মেয়েদের উৎসাহ ও সাফল্য দেখে এ নিয়ে বিস্তারিত পরিকল্পনা এবং প্রয়োজনীয় বাজেট সংস্থান আজ সময়ের দাবি।

পরিশেষে বলতে চাই, আধুনিক সমাজে নারী-পুরুষ সকলেরই মৌলিক অধিকার এক ও অভিন্ন। তাই, বাংলাদেশের বাঘিনীরা যে বিজয় তিলক আমাদের পরিয়ে দিলো, তার যথাযথ মূল্যায়ন জরুরি। বেতন-ভাতাসহ সব বিষয়ে নারী হিসেবে নয়, একজন খেলোয়াড় হিসেবে স্বীকৃতির দাবিদার তারা। সব বাঁধার বিন্ধ্যাচল ভেঙে নারী এগিয়ে যাক তার আপন মহিমায়।

বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুলের ভাষাতেই বলি, ‘কোনোকালে একা হয়নিকো জয়ী পুরুষের তরবারি, প্রেরণা দিয়াছে শক্তি দিয়াছে বিজয়লক্ষ্মী নারী।’

বিশ্ব দরবারে স্বদেশের মর্যাদা অক্ষুণ্ণ রাখা এই বীর বাঘিনীদের অন্তরের অন্তঃস্থল থেকে জানাই অভিবাদন।

আইএ/ ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২

Back to top button