দক্ষিণ এশিয়া

রাজস্থানের এই মন্দিরে পূজা করা হয় বাইকের

নয়াদিল্লী, ১৫ সেপ্টেম্বর – ভারতের রাজস্থানের একটি মন্দিরে বাইকের পূজা করা হয়। তিন দশক আগের ঘটনা। রাজস্থানের মেইন রোড দিয়ে গভীর রাতে ছুটে চলেছে ৩৫০ সিসির রয়্যাল এনফিল্ড। গাড়ির রেজিস্ট্রেশন নম্বর আরএনজে ৭৭৭৩।

হঠাৎ করেই রাস্তার পাশের খাদে বাইকটি পড়ে যায়। মারা যান গাড়ির চালক ওম সিংহ রাঠৌর।
পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছালে জানতে পারে, চালক তার বাইক নিয়ে পালি জেলার বাংড়ি শহর থেকে চোটিলা গ্রামের দিকে যাচ্ছিলেন। গাড়ি চালানোর সময় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে একটি গাছে ধাক্কা মারেন ওম। জোরে ধাক্কা লাগায় পাশের খাদে গড়িয়ে পড়ে বাইকটি।

তদন্ত চলাকালীন পুলিশ বাইকটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। কিন্তু পরের দিনের দৃশ্য দেখে সবাই অবাক। বাইকটি যেখানে রাখা ছিল, তা সেখান থেকে উধাও। খোঁজাখুঁজির পর ঘটনাস্থল থেকেই বাইকটি পাওয়া যায়।

জানা যায়, রাত থেকে থানার কেউই সেই বাইকে হাত দেননি। তাহলে ঘটনাস্থলে বাইকটি পৌঁছাল কী করে?

রহস্যের সমাধান করতে পুলিশ বাইকের ট্যাঙ্ক থেকে তেল বের করে চেইন দিয়ে বেঁধে রাখে। কিন্তু তার পরের দিনও একই ঘটনা ঘটে। থানায় বাইকটি নেই। আবার ঘটনাস্থল থেকেই পাওয়া যায় গাড়িটি।

দিনের পর দিন থানায় বাইকটি বেঁধে রাখা হলেও রোজ সকালে তা খুঁজে পাওয়া যেত দুর্ঘটনার জায়গা থেকেই। স্থানীয়রা বলাবলি করতে শুরু করেন যে, এই ঘটনা অলৌকিক। বাইকের মধ্যেই ওম সিংহ বেঁচে রয়েছেন।

তাই স্থানীয়রা সিদ্ধান্ত নেন, বাইকটি সেখান থেকে আর সরানো হবে না। জোধপুর থেকে ৫৩ কিলোমিটার দূরে পালি-জোধপুর হাইওয়ের উপর প্রয়াত বাইকচালকের নামে একটি মন্দির বানানো হয়।

ওম বান্নার এই মন্দিরটি ‘বুলেট বাবা’র মন্দির নামে স্থানীয়দের কাছে পরিচিত। ভারতের দর্শনীয় মন্দিরগুলোর তালিকায় ১৭ নম্বর স্থানে জোধপুরের ‘বুলেট বাবা’ মন্দিরের নাম রয়েছে।

পালি-জোধপুর হাইওয়ের উপর দিয়ে যে যাত্রীরাই বাইক, ট্রাক অথবা গাড়ি নিয়ে যাত্রা করেন, প্রায় সবাই এই মন্দিরে পূজা দেন। নিয়ম মেনে প্রতি দিন সকাল ও সন্ধ্যায় বাইকটিকে পূজা করা হয়। পূজার রীতিনীতিও ভিন্ন।

দর্শনের সময় বাজানো হয় এক প্রাচীন ধরনের ঢাক। মন্দিরের সামনে দর্শনার্থীদের ভিড়ও হয় খুব। মন্দিরের পুরোহিত মন্ত্র উচ্চারণ করে বাইকটির পূজা করেন। পূজার প্রসাদেও রয়েছে বৈচিত্র।

গাড়ির চালকেরা ভোগ হিসেবে মদের বোতল দেন। গাড়ি চালানোর সময় যে সব দুর্ঘটনা হয় তার বেশির ভাগ মদ্যপ অবস্থায় গাড়ি চালানোর ফলে ঘটে বলে ধারণা স্থানীয়দের। তাই প্রসাদ হিসেবে মদই বেছে নিয়েছেন তারা।

তাদের বিশ্বাস, যাত্রা করার আগে এই মন্দিরে পূজা না দিলে যাত্রীরা পথদুর্ঘটনার শিকার হবেন। ওই মন্দিরে শুধু দর্শনার্থীদের ভিড়ই হয় না, অনেকেই স্রেফ মন্দিরটি ঘুরে দেখার জন্য আসেন। মন্দিরে ভিড় এমন উপচে পড়ে যে, রাস্তাতেও ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণের সমস্যা দেখা দেয়। ফলে গাড়ি চলাচলও বিঘ্নিত হয়।

এলাকায় ‘বুলেট বাবা’র মন্দিরকে ঘিরে নানা গুঞ্জন শোনা যায়। স্থানীয়দের বিশ্বাস, ওম সিংহ বেঁচে রয়েছেন। কাছাকাছি এলাকায় কোনো গাড়ি দুর্ঘটনার মুখে পড়লে তাদের প্রাণে বাঁচান এই ‘বুলেট বাবা’।

এখনও পর্যন্ত যারা এই মন্দিরে পূজা দিয়ে সড়কপথে যাত্রা করেছেন, তারা পথদুর্ঘটনার মুখে পড়েননি বলে দাবি স্থানীয়দের। দর্শনার্থীরা এই মন্দিরে গেলে বাইকের সামনে তিলক লাগিয়ে, লাল সুতা বাঁধেন। ওম বান্নার উদ্দেশে স্থানীয়রা লোকসঙ্গীতও গেয়ে থাকেন।

সূত্র: কালের কন্ঠ
আইএ/ ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২২

Back to top button