দক্ষিণ এশিয়া

বাবার পঞ্চম বিয়ে ঠেকালেন ৭ সন্তান

নয়াদিল্লী, ৩ সেপ্টেম্বর – আগের পক্ষের স্ত্রী এসে বিয়ে ভেঙে দিচ্ছে স্বামীর। এমন ঘটনা আজকাল নতুন কিছু নয়। তবে ভারতের উত্তরপ্রদেশে যে ঘটনা ঘটেছে, তা হার মানাবে অনেক হিন্দি সিনেমাকেও। একেবারে সাত সন্তানে মিলে ছাদনাতলায় হাজির বাবার বিয়ে ভাঙতে।

ঘটনাটি প্রকাশ্যে আসতেই রীতিমতো থ সকলে। পাত্র উত্তরপ্রদেশের বাসিন্দা বছর পঞ্চান্নের শফি আহমেদ। নিয়ম মেনেই এগোচ্ছিল বিয়ের সমস্ত অনুষ্ঠান। হঠাৎই তার মাঝে বিয়ের মণ্ডপে ঢুকে বাধ সাধে পাত্রের সাত সন্তান। সঙ্গে স্ত্রীও! তাদের দেখে রীতিমতো হতভম্ব শফি।

এই ঘটনায় চক্ষু চড়ক গাছ অনুষ্ঠানে উপস্থিত সকলেরই। জানা যায়, যিনি পাত্রকে স্বামী বলে দাবি করছেন, তিনি পাত্রের চতুর্থ স্ত্রী। এর আগেও আরও তিনটি বিয়ে করেছেন শফি।

ওই নারী বলেন, এতদিন সন্তানদের জন্য মাসে মাসে টাকা পাঠাতেন শফি। কিন্তু অনেকদিন দিন ধরে সেই টাকা পাঠানো বন্ধ করে দেন তিনি। এরপরই স্বামীর পঞ্চম বিয়ের কথা জানতে পারেন তিনি। তাই সন্তানদের নিয়ে বিয়ের মণ্ডপে হাজির হয়েছেন তিনি।

এই ঘটনার পর বিয়ের অনুষ্ঠান ছেড়ে পালিয়ে যান কনে। তার বাড়ির লোকের সঙ্গে বাকবিতণ্ডা শুরু হয় পাত্রের। সেই বাকবিতণ্ডাকে কেন্দ্র করে কনের বাড়ির লোকজন বেধড়ক মারধর করে বরকে।

থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন শফির স্ত্রীরা। পুলিশ ঘটনাস্থলকে শফিকে গ্রেপ্তার করে।

সন্তানরা সংবাদমাধ্যমকে জানায়, বাবার পাঁচ নম্বর বিয়ের কথা জানতে পেরেই তারা পুলিশের কাছে অভিযোগ জানায়। বাবা তাদের হাত খরচ বন্ধ করে দেয়, সেই রাগ থেকেই তারা এমন কাজ করেছে বলে জানায় সংবাদমাদ্যমকে।

সূত্র: দেশ রূপান্তর
আইএ/ ৩ সেপ্টেম্বর ২০২২

Back to top button