দক্ষিণ এশিয়াপশ্চিমবঙ্গ

ভারতর সবচেয়ে নিরাপদ শহর কলকাতা, ঝুকিপূর্ণ শহর দিল্লি

নয়াদিল্লি, ৩০ আগস্ট – পর পর দু’বছর দেশের সব থেকে নিরাপদ শহরের স্বীকৃতি পেল মহানগরী কোলকাতা। ভারতের ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরো (এনসিআরবি)-র রিপোর্ট বলছে, ২০২১ সালে দেশের বড় শহরগুলির মধ্যে সব থেকে নিরাপদ কলকাতা। ভারতের যে বড় শহরগুলির জনসংখ্যা ২০ লাখের বেশি, একমাত্র সেই শহরগুলির তথ্যের ভিত্তিতেই এই রিপোর্ট বানায় এনসিআরবি।

মঙ্গলবার ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম এনডিটিভি ও আনন্দবাজারের প্রতিবেদনে এই তথ্য পাওয়া যায়।

এনসিআরবির রিপোর্ট বলছে, কলকাতার প্রতি লক্ষ জনসংখ্যার মধ্যে দেশের বাকি শহরের তুলনায় সব থেকে কম অপরাধের ঘটনা ঘটেছে। এর ভিত্তিতেই সব থেকে নিরাপদ শহরের তালিকার শীর্ষে উঠে এসেছে কলকাতার নাম।

২০২০ এবং ২০২১ ছাড়া ২০১৮ সালেও দেশের সব থেকে নিরাপদ শহর হওয়ার কৃতিত্ব ছিল কলকাতার। কেন্দ্রীয় রিপোর্ট অনুযায়ী, কলকাতায় প্রতি লক্ষ মানুষে নথিভুক্ত অপরাধ ১০৩.৪। এই সংখ্যা গত বছরের তুলনায় আরও কমেছে। গত বছর এই সংখ্যা ছিল ১২৯.৫।

২০২১-এর তালিকায় কলকাতার পরই পুণে। প্রতি এক লক্ষ মানুষের মধ্যে পুণে শহরে নথিভুক্ত অপরাধের সংখ্যা ২৫৬.৮। পুণের পর যথাক্রমে রয়েছে হায়দরাবাদ (২৫৯.৯), কানপুর (৩৩৬.৫), বেঙ্গালুরু (৪২৭.২) এবং মুম্বাই (৪২৮.৪)।

এনসিআরবি রিপোর্ট বলছে,২০১৬ সাল থেকে শুরু করে প্রতি বছরই কলকাতায় অপরাধ একটু একটু করে কমেছে। এনসিআরবি রিপোর্ট অনুযায়ী, গত সাত বছর ধরে কলকাতার অপরাধের হার উল্লেখযোগ্য ভাবে কমেছে। ২০১৬ সালে কলকাতায় অপরাধ ছিল প্রতি লক্ষে ১৫৯.৬। ২০১৭ সালে তা কমে হয় ১৪১.২। কলকাতার অপরাধ আরও কমে ২০১৮ এবং ২০২০ সালে। হয় যথাক্রমে ১৩৯.৫ এবং ১০৯.৯। ২০২১ সালে মহানগরীর অপরাধের হার ১০০-রও নীচে নেমেছে। সমীক্ষা অনুযায়ী, গত বছরে কলকাতায় অপরাধের হার ৯২.৬।

এনসিআরবি রিপোর্ট অনুযায়ী, ভারতের সবচেয়ে অনিরাপদ শহর হচ্ছে রাজধানী দিল্লি। রিপোর্ট অনুযায়ী,ভারতের রাজধানী দিল্লিতে গত বছর প্রত্যেক দিন গড়ে অন্তত দু’জন নাবালিকা ধর্ষণের শিকার হয়েছে। দেশটির মেট্রোপলিটন শহরগুলোর মধ্যে দিল্লিই সবচেয়ে অনিরাপদ শহর।

গত বছর দিল্লিতে নারীদের বিরুদ্ধে অপরাধের ঘটনায় ১৩ হাজার ৮৯২টি মামলা হয়েছে। যা আগের বছরের তুলনায় ৪০ শতাংশ বেশি। ২০২০ সালে দিল্লিতে নারীদের বিরুদ্ধে অপরাধের ৯ হাজার ৭৮২টি মামলা দায়ের হয়েছিল। অপর দিকে ২০২১ সালে কলকাতায় মোট ১১টি ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। যা বাকি শহরগুলির মধ্যে সব থেকে কম।

এনসিআরবির তথ্য অনুযায়ী, দেশটির ১৯টি মেট্রোপলিটন শহরে নারীদের বিরুদ্ধে সংঘটিত অপরাধের মোট মামলার প্রায় ৩২ শতাংশই দিল্লিতে নথিভূক্ত হয়েছে।

নারীদের বিরুদ্ধে অপরাধের ঘটনায় রাজধানী দিল্লির পরই দ্বিতীয় অবস্থানে আছে দেশটির বাণিজ্যিক রাজধানী খ্যাত মুম্বাই। ২০২১ সালে এই মহানগরীতে নারীদের বিরুদ্ধে অপরাধের ৫ হাজার ৫৪৩টি মামলা হয়েছে। এরপরই আছে বেঙ্গালুরু; সেখানে ৩ হাজার ১২৭টি মামলা হয়েছে।

দেশটির ১৯টি শহরে সংঘটিত মোট অপরাধের প্রায় ১২ দশমিক ৭৬ শতাংশ মুম্বাই এবং ৭ দশমিক ২ শতাংশ বেঙ্গালুরুতে নথিভূক্ত করা হয়েছে।

এদিকে, কেন্দ্রীয় রিপোর্টে সব থেকে নিরাপদ শহরের তালিকায় শীর্ষস্থান অধিকার করা নিয়ে আনন্দ প্রকাশ করা হয়েছে রাজ্যের ক্ষমতাসীন তৃণমূল সরকারের পক্ষ থেকেও।

সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেসের টুইটার হ্যান্ডল থেকে একটি টুইটে বলা হয়েছে, এনসিআরবি রিপোর্ট অনুযায়ী, এই নিয়ে টানা দু’বছর কলকাতা দেশের সব থেকে নিরাপদ শহর। এটি কেবল মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কড়া নজরদারি এবং পুলিশের অক্লান্ত পরিশ্রমের ফলেই সম্ভব হয়েছে। দেশের একমাত্র নারী মুখ্যমন্ত্রীর কাছ থেকে দেশের প্রধানমন্ত্রীর অনেক কিছু শেখার আছে।

সূত্র: বাংলাদেশ জার্নাল
এম ইউ/৩০ আগস্ট ২০২২

Back to top button