পশ্চিমবঙ্গ

বিজেপিকে হারাতেই হবে

কলকাতা, ২৯ আগস্ট – ভারতের পশ্চিমবঙ্গে শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে সরকারের বিরুদ্ধে অযথা কুৎসা রটানো হচ্ছে বলে অভিযোগ তুলেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী। তার আমলে রাজ্যে যে সংখ্যক শিক্ষক নিয়োগ হয়েছে তার তুলনায় অভিযোগের সংখ্যা নগন্য বলেও মুখ্যমন্ত্রী দাবি করেছেন। কলকাতার মেয়ো রোডে সোমবার রাজ্য তৃণমূল কংগ্রেসের ছাত্র পরিষদের প্রতিষ্ঠা দিবস উপলক্ষ্যে আয়োজিত সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

সেখানে মুখ্যমন্ত্রী দাবি করেন, স্কুল কলেজ ও কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান মিলিয়ে তাদের সরকার ১ লাখ ৬৩ হাজার ৯৭০ জনকে চাকরি দিয়েছে। সেখানে মাত্র ২৫০ জনের নিয়োগ নিয়ে অভিযোগ উঠেছে। সংশোধন করার সুযোগ পেলে সেই ভুলও সংশোধন করে নেওয়া হবে।

আইন মেনে লোকজন যেন চাকরি পান সরকার তা দেখবে বলেও উল্লেখ করেন তিনি। একই সঙ্গে পরিসংখ্যান তুলে ধরে মমতা বলেন, তৃণমূল সরকারের ১১ বছরের শাসনে এ রাজ্যে ৩০টি বিশ্ববিদ্যালয়, ১৪টি মেডিক্যাল কলেজ, ৫১ নতুন কলেজ, ১৭৬টি পলিটেকনিক কলেজ, ৭ হাজার নতুন স্কুল হয়েছে। ১ কোটি ৬৩ লাখ ৯৭০ জনকে চাকরি দিয়েছে সরকার। এখনও খালি আছে ৮৯ হাজার ৩৫টি পদ। সেখানে ৪০ শতাংশ কর্মসংস্থান বেড়েছে।

মুখ্যমন্ত্রীর অভিযোগ, সবকিছুর টাকা বন্ধ করে দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতির তদন্তে পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের ঘনিষ্ঠ অর্পিতা মুখোপাধ্যায়ের দুটি ফ্ল্যাট থেকে প্রায় ৫০ কোটি টাকা, বিপুল স্বর্ণ এবং সম্পত্তির দলিল উদ্ধার করেছে ইডি। গোরুপাচার কাণ্ডে অনুব্রত মণ্ডলের ঘনিষ্ঠদের কাছ থেকেও বিপুল টাকা ও সম্পত্তি মিলেছে। সরাসরি এই বিষয়টি নিয়ে মুখ না খুললেও ইডি, সিবিআইয়ের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অভিযোগ করেন মুখ্যমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ইডি আর সিবিআই দিয়ে মানুষের বাড়ি থেকে টাকা লুট করা হচ্ছে। যারা শুধু নেই নেই করে, চক্রান্ত করে তাদের পশ্চিমবঙ্গের সঙ্গে তুলনা করার আহ্বান জানান তিনি।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বলেন, কর্মক্ষেত্রে দেশে আমরাই এগিয়ে। আমরা এক নম্বর বলে ১০০ দিনের কাজে টাকা আটকে রেখেছে। ইডি সিবিআই টাকা লুট করে বিদেশে পাচার করছে। বৈদিক ভিলেজে বিজেপির মন্থন শিবির নিয়েও তিনি কটাক্ষ করেন। পার্থ চুরি করলে বিচার হবে। কিন্তু আমরা সবাই চোর আর আপনারা সবাই সাধু? এমন প্রশ্নও করেন তিনি।

অনেকটা ক্ষোভ নিয়েই মমতা বলেন, আমার বিচার আন্তর্জাতিক আদালতে হওয়া উচিত। আমি মাইনে নেইনি। যোগ করে দেখবেন কত হয়। আমি ঠিকা বাড়িতে থাকি। আমি এক্সিকিউটিভ ক্লাসে যাতায়াত করি না। বই মেলায় কে বেস্ট সেলার? একটা বই লিখে দেখানোর চ্যালেঞ্জও জানান মমতা। তিনি বলেন, আমি রাজনীতিতে এসেছি সমাজসেবা করব বলে।
পার্থ-ববির দোষের জন্যও আমাকে টেনে আনবে? রাজ্যে রাজ্যে সরকার ভাঙ্গতে কোথা থেকে টাকা আসছে? আমাদের কর্মকর্তাদের দিল্লি ডাকলে, আমিও তোমাদের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নেব।

কোথায় কত টাকা আছে আমিও জানি বলে তিনি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে আক্রমণ করেন। বিহার গেছে, আরো দু-চারটে রাজ্য ভোটের আগে যাবে। ভোটের আগে ববি, অভিষেককে গ্রেফতার করলে ভোটে জিততে সুবিধা। আমাকেও জেলে রাখুক। যদি দেখেন ববির প্রচুর সম্পত্তি আছে বলে গ্রেফতার করা হবে, বিশ্বাস করবেন না। সবাইকে নোটিশ দিয়েছে। আমরাও নিজের দলের লোকদের গ্রেফতার করিয়েছি। আমরাই একমাত্র সাচ্চা পার্টি। ঝড় আসবে চলে যাবে কিন্তু তারপর তো আপনাকে রাস্তায় নামতেই হবে। ইউনেস্কো যে চিঠি দিয়েছে সেটাও কেন্দ্র আমাদের দেয়নি। বিচার পাওয়ার যেখানে সম্ভাবনা নেই সেখানে রাস্তাই পথ দেখাবে।

সূত্র: জাগো নিউজ
এম ইউ/২৯ আগস্ট ২০২২

Back to top button