জাতীয়

গার্ডারচাপায় স্ত্রী সন্তানদের হারিয়ে আল্লাহর কাছে বিচার চাইলেন জাহিদুল

জামালপুর, ১৭ আগস্ট – রাজধানীর উত্তরায় গার্ডারচাপায় মৃত চারজনকে দাফন করা হয়েছে নিজ নিজ বাড়িতে। মঙ্গলবার রাতেই নিহত ফাহিমা আক্তার, ঝর্ণা আক্তার ও ঝর্ণা আক্তারের দুই সন্তানকে জামালপুরের মেলান্দহ ও ইসলামপুরে দাফন করা হয়।

এদিকে স্ত্রী ঝর্ণা এবং দুই সন্তান জান্নাত ও জাকারিয়ার মৃত্যুতে শোকে পাথর হয়ে গেছেন জাহিদুল ইসলাম। মেলান্দহের পয়লা এলাকায় তার একটি অটোর গ্যারেজ রয়েছে।

বুধবার বিকেলে জাহিদুল ইসলাম বলেন, ‘আমার কপালে কি এটাই লেখা ছিল? আমি রিয়া মনির বিয়ের দাওয়াত খেয়ে যদি স্ত্রী-সন্তানদের সঙ্গে করে নিয়ে আসতাম তাইলে হয়তো তারা এ ঘটনার শিকার হইত না। উত্তরার ওই কম্পানির গাফিলতির কারণেই আমার স্ত্রী-সন্তান নিহত হয়েছে। আমার স্ত্রীর বোন ফাহিমাও নিহত হয়েছে। আমি এ ঘটনার জন্য সরকারের কাছে বিচার চাই। আল্লার কাছেও বিচার চাই। আমি উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ চাই। ’

নিহত ফাহিমা ও ঝর্ণার বাবা রশিদুল হক বাট্টু বলেন, ‘আমার আদরের দুই মেয়ে আর দুই নাতি-নাতনিকে হত্যা করা হয়েছে। আমার সব কিছু শেষ গেছে। সরকারের কাছে আমি এ হত্যার বিচার চাই। ’

এদিকে রাজধানীর উত্তরার জসীমউদ্দীন এলাকায় একটি গাড়ির ওপর বিআরটি প্রকল্পের নির্মাণাধীন ফ্লাইওভারের গার্ডার পড়ে শিশুসহ পাঁচজন নিহত হওয়ার ঘটনায় মামলা হয়েছে। গত সোমবার দিবাগত রাতে উত্তরা পশ্চিম থানায় মামলাটি করেন নিহত ব্যক্তিদের স্বজন আফরান মণ্ডল বাবু।

প্রাথমিক তদন্তে এ দুর্ঘটনার বিষয়ে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না গ্যাঝুবা গ্রুপ করপোরেশনের (সিজিজিসি) দায়িত্বে অবহেলার বিষয়টি পাওয়া গেছে। গতকাল মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ওই প্রতিষ্ঠানকে ব্ল্যাক লিস্টেড (কালো তালিকাভুক্ত) করার নির্দেশ দিয়েছেন।

সূত্র: কালের কন্ঠ
আইএ/ ১৭ আগস্ট ২০২২

Back to top button