জাতীয়

গ্রিসে অনিয়মিত ১৫ হাজার বাংলাদেশীর বৈধতার সুযোগ

ঢাকা, ১৬ আগস্ট – অনিবন্ধিতভাবে বসবাস করে আসা বাংলাদেশীদের বৈধতার সুযোগ দিয়েছে গ্রিস সরকার। পাঁচ বছরের ভিসা দিয়ে বৈধতার আওতায় আনা হবে অনিয়মিতদের। চলতি বছরের ৯ ফেব্রুয়ারির আগে অনিয়মিতভাবে গ্রিসে অবস্থান করা প্রায় ১৫ হাজার বাংলাদেশী এ সুযোগ নিতে পারবেন, যার মাধ্যমে অবৈধ অভিবাসীরা বৈধ হয়ে কৃষি শ্রমিক হিসেবে বছরে নয় মাস কাজ করার সুযোগ পাবেন। নিজ দেশে তিন মাস বাধ্যতামূলক যাতায়াতের জন্য সুযোগও থাকবে।

এথেন্সে বাংলাদেশ দূতাবাস সম্প্রতি এক বিজ্ঞপ্তিতে জানায়, অনিয়মিত বাংলাদেশীদের নিয়মিতকরণের প্রক্রিয়াটি অত্যন্ত স্বচ্ছভাবে একটি অনলাইন প্লাটফর্মে সংঘটিত হবে বিধায় এতে কোনো এজেন্সির সহায়তার প্রয়োজন হবে না। এছাড়া প্রয়োজনে দূতাবাস থেকেও অনলাইন প্লাটফর্মে আবেদনের জন্য সহায়তা দেয়া হবে। সেই সঙ্গে প্রবাসী বাংলাদেশীদের কোনো ধরনের দালাল বা প্রতারক চক্রের বিভ্রান্তিমূলক প্রচারণা ও প্ররোচনায় পড়ে প্রতারিত না হওয়ার জন্য সতর্ক থাকার অনুরোধ জানিয়েছে বাংলাদেশ দূতাবাস।

বাংলাদেশ দূতাবাস জানিয়েছে, আগামী সেপ্টেম্বর থেকে গ্রিসে বসবাসরত অনিয়মিত বাংলাদেশীদের নিয়মিতকরণের কার্যক্রম গ্রিক সরকার ঘোষিত একটি অনলাইন প্লাটফর্মে শুরু হবে। এ অনলাইন প্লাটফর্মে আবেদনের জন্য আগ্রহী সব বাংলাদেশী নাগরিককে দূতাবাসে নাম নিবন্ধন করতে হবে এবং নিজ নিজ পাসপোর্টের অনুলিপি দূতাবাস থেকে সত্যায়ন করতে হবে। এ কারণে নিয়মিত হতে ইচ্ছুক সবাইকে দুই বছরের বেশি মেয়াদসম্পন্ন পাসপোর্ট, নিজ নামে নিবন্ধিত সেলফোন নম্বর, সক্রিয় ই-মেইল আইডি এবং ৯ ফেব্রুয়ারি ২০২২-এর আগে গ্রিসে অবস্থানের প্রমাণসহ দূতাবাসে তাদের নাম নিবন্ধনের জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, নিয়মিত হওয়ার জন্য দুই বছরের বেশি মেয়াদসম্পন্ন পাসপোর্ট, ৯ ফেব্রুয়ারি ২০২২-এর আগে গ্রিসে আসার প্রমাণ এবং সম্ভাব্য চাকরিদাতার গ্রিক সরকারি অনলাইন প্লাটফর্মের মাধ্যমে প্রদত্ত চাকরির নিশ্চয়তাপত্র ছাড়াও অনলাইন আবেদনের আগে নির্ধারিত ফি (প্রসেসিং ফি ৭৫ ইউরো ও রেসিডেন্স কার্ড ফি ১৬ ইউরো), দূতাবাস থেকে পাসপোর্টের সত্যায়িত কপি সংগ্রহ এবং দূতাবাসে বাধ্যতামূলক নাম নিবন্ধন করতে হবে।

প্রসঙ্গত, গত ফেব্রুয়ারিতে গ্রিসের অভিবাসনমন্ত্রী নতিস মিতারাচির ঢাকা সফরে বাংলাদেশ থেকে প্রতি বছর চার হাজার কর্মী নেয়া এবং অবৈধদের বৈধ করার বিষয়ে একটি সমঝোতা স্মারক সই করে প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়। পরবর্তী সময়ে বাংলাদেশ ও গ্রিসের সমঝোতা চুক্তি সংসদে অনুমোদন হওয়ায় প্রতি বছর চার হাজার কর্মী নেয়ার পাশাপাশি দেশটিতে থাকা অবৈধ ১৫ হাজার বাংলাদেশীকে বৈধতা দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

বাংলাদেশ দূতাবাসের তথ্য অনুযায়ী গ্রিসে বর্তমানে ৩০ হাজার বাংলাদেশী বসবাস করেন। এর মধ্যে ১২ হাজার বৈধ। বাকি ১৮ হাজার ‘আনডকুমেন্টেড’। তাদের মধ্যে ১৫ হাজার সমঝোতা অনুযায়ী বৈধতা পাবেন। যারা পাঁচ বছর মেয়াদি অস্থায়ী ওয়ার্ক পারমিট পাবেন, পাঁচ বছর মেয়াদ শেষে তাদের বাংলাদেশে ফেরত আসতে হবে।

সম্প্রতি এক অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, আমাদের অ্যাম্বাসেডর জানালেন, গ্রিসের সঙ্গে আলাপ করে এসেছিলাম, গ্রিস রাজি হয়েছে; একটা এগ্রিমেন্ট সই হয়েছে যে তারা আমাদের ১৫ থেকে ১৮ হাজার ইলিগ্যাল যারা আছেন, তাদের তারা রেগুলারাইজ করবে। এছাড়া প্রতি বছর চার-পাঁচ হাজার লোক সেখানে নেবে। এটা প্রথম ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশ, তারা এমন কিছুতে রাজি হয়েছে। এটা আমাদের জন্য ভালো খবর।

সূত্র: বণিক বার্তা
আইএ/ ১৬ আগস্ট ২০২২

Back to top button