জাতীয়

হাতিরঝিলে গল্প-আড্ডায় কাটলো ছুটির দিন

ঢাকা, ৯ আগস্ট – ছুটির দিন পেলেই স্বস্তির নিশ্বাস ফেলেন কর্মব্যস্ত মানুষরা। তার ওপর যদি হঠাৎ সরকারি ছুটি মেলে, তাহলে তো খুশির শেষ নেই। তবে ইট-পাথরের ঢাকা শহরে স্বস্তিতে ঘুরে বেড়ানোর জায়গার বড়ই অভাব। বিশুদ্ধ শ্বাস নেওয়ার মতো খোলা জায়গা নেই বললেই চলে। চারদিকে কোলাহল, গাড়ির হর্ন-উচ্চশব্দে নাকাল নগরবাসী। ছুটির দিনে তাই রাজধানীবাসীর ঘোরাঘুরির জন্য পছন্দের স্পটের শীর্ষে তুলনামূলক কোলাহলমুক্ত হাতিরঝিল।

মঙ্গলবার (৯ আগস্ট) পবিত্র আশুরা উপলক্ষে সরকারি ছুটি। এদিন দুপুর গড়াতেই ভিড় বাড়ে হাতিরঝিলে। বিকেলে দেখা যায় মানুষের উপচেপড়া ভিড়। সন্ধ্যা নামতেই গিজগিজ করে মানুষ। কোথাও যেন পা ফেলার জায়গা নেই। দেখা মেলে ছোট-বড় সব বয়সী মানুষের।কেউ এসেছেন পরিবার নিয়ে, কেউ বন্ধুদের সঙ্গে। তরুণ-তরুণীদের উপস্থিতিও ছিল চোখে পড়ার মতো। ঘুরতে আসাদের মধ্যে অনেকে ব্যস্ত টিকটক বানাতে। অনেকে মুহূর্তটুকু বন্দি করছেন মোবাইলের ক্যামেরায়। শখেরবশে অনেকে চড়েন ওয়াটার বাসেও।

সরেজমিন দেখা গেছে, পুলিশ প্লাজার পেছনের অংশটায় ছোটদের জন্য বেশ খানিকটা জায়গা করা আছে। তৈরি করে রাখা হয়েছে বিশালাকৃতির কয়েকটি হাতি। একটু মাঠের মতো করে বানানো। সেখানে যেন বাচ্চাদের মিলনমেলা।রামপুরা থেকে স্ত্রী ও দুই সন্তানকে নিয়ে এসেছেন মো. খলিলুর রহমান। তিনি একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন। তার স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে মাঠে খেলতে গেছেন। তিনি দূর থেকে তাকিয়ে দেখছেন।

খলিলুর রহমান বলেন, চাকরি করে আর সময় থাকে না। বাচ্চাদেরও বাসাতেই থাকতে হয় সারাক্ষণ। আমিও ব্যস্ত থাকি। ওদের মা তো সংসার সামলাতে ব্যস্ত। আজ ছুটির দিন পাওয়াতে একটু ঘুরতে বের হলাম।লেকের দিকে মুখ ঘুরিয়ে বসে বাদাম খাচ্ছিলেন বেশকিছু যুগল। তাদের একজন হাসান। তিনি বলেন, ‘বিয়ে করেছি কিছুদিন আগে। একাই থাকতাম ঢাকাতে। একমাস হলো স্ত্রীকে এনেছি। একটু ঘুরাঘুরি করছি।’

রামপুরা সংলগ্ন ব্রিজে বসে আছেন বেশকিছু তরুণ। জানতে চাইলে তারা বলেন, ‘আমরা বন্ধু-বান্ধবই। ঘুরতে এসেছি।’

সূত্র: জাগোনিউজ
আইএ/ ৯ আগস্ট ২০২২

Back to top button