উত্তর আমেরিকা

আগুন নেভাতে গিয়ে দমকলকর্মী দেখলেন নিজের বাড়িতেই আগুন!

হ্যারিসবার্গ, ০৬ আগস্ট – মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভানিয়া রাজ্যের নেসকোপেকে একটি বাড়িতে আগুনে তিন শিশু এবং সাতজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ মারা যাওয়ার পর দমকলকর্মীদেরকে ঘটনাস্থলে ডেকে পাঠানো হয়। আগুন নেভাতে ঘটনাস্থলে এসে এক দমকলকর্মী দেখেন তার বাড়িতেই আগুন লেগেছে এবং হতাহতরা তার নিজের পরিবারেরই সদস্য। এই ঘটনায় ওই দমকলকর্মী কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন।

গতকাল শুক্রবার ভোর রাতে ওই বাড়ির বারান্দা থেকে আগুনের সূত্রপাত বলে ধারণা করা হচ্ছে। আগুনের ঘটনাকে অপরাধ বিবেচনা করে ইতিমধ্যে একটি তদন্ত শুরু হয়েছে।

নেসকোপেকে একটি গ্রামীণ এলাকা। সেখানে স্থানীয় সময় গতকাল দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে আগুন লাগে।

নেসকোপেক ভলান্টিয়ার ফায়ার কোম্পানির ওই দমকলকর্মীর নাম হ্যারল্ড বেকার। তিনি বলেন, আগুনের ঘটনায় যারা প্রাণ হারিয়েছেন, তাদের মধ্যে তার ছেলে, মেয়ে, শ্বশুর, শ্যালক, শ্যালিকা, তিন নাতি–নাতনি ও আরও দুজন স্বজন ছিলেন। যে তিন শিশু মারা গেছে, তাদের মধ্যে দুটি ছেলে ও একটি মেয়ে। এসব শিশু ওই বাড়ির বাসিন্দা ছিল না। গ্রীষ্মের ছুটিতে সেখানে বেড়াতে গিয়েছিল তারা।

হ্যারল্ড বেকার বলেন, বাবার পদাঙ্ক অনুসরণ করে তার ছেলে ডেল বেকারও দমকল বাহিনীতে যোগ দিয়েছিল। সেও মারা গেছে। আগুন লাগার পর তিন ব্যক্তি কোনোমতে বাড়িটি থেকে বের হতে সমর্থ হন ও প্রাণে বাঁচেন।

পেনসিলভানিয়া রাজ্য পুলিশের লেফটেন্যান্ট ডেরেক ফেলসম্যান গতকাল সাংবাদিকদের বলেন, ‘বাড়ির পেছনের অংশ দিয়ে ভেতরে প্রবেশ করার সাহসী চেষ্টা চালিয়েছিলেন অগ্নিনির্বাপণকর্মীরা। কিন্তু আগুনের তেজ ও তাপ অনেক বেশি হাওয়ার কারণে তাঁরা সেখান থেকে পিছু হটতে বাধ্য হন’।

হ্যারল্ড বেকার উইকস ব্যারে শহরের সংবাদপত্র সিটিজেন ভয়েসকে বলেন, ‘যখন আমরা এখানে ডিউই স্ট্রিটে মোড় ঘুরলাম, তখনই আমি রাস্তার নিচের দিকে তাকিয়ে বুঝতে পারি এটা কাদের বাড়ি। আমি ছিলাম প্রথম গাড়িতে। যখন আমি গাড়ি থেকে নামলাম তখন পুরো এলাকায় আগুন জ্বলছিল। আমরা এর মধ্যেই ভেতরে ঢোকার চেষ্টা করি’।

ডব্লিউএনইপি–টিভিকে হ্যারল্ড বেকার বলেন, ‘শিশুরা সেখানে ছিল এবং আমার দুই সন্তান তাদের খালা-খালুর বাড়িতে ঘুরতে সম্প্রতি সেখানে গিয়েছিল। এর মধ্যে এক শিশু ওই বাড়ির। সবাই মিলে সেখানে ঘুরতে গিয়েছিলেন তারা’।

সূত্র: দেশ রূপান্তর
এম ইউ/০৬ আগস্ট ২০২২

Back to top button