জাতীয়

২৫ ভাগ বিদ্যুৎ সাশ্রয় করতে না পারলে ব্যবস্থা

ঢাকা, ০২ আগস্ট – সরকারি দপ্তরগুলোতে ২৫ শতাংশ বিদ্যুৎ সাশ্রয়ের নির্দেশনা বাস্তবায়নে নিজেদের ‘ঘর’ থেকেই কাজ শুরু করেছে জ্বালানি বিভাগ। সম্প্রতি অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে জ্বালানি বিভাগ বলছে, তাদের সংস্থা, দপ্তর বা কম্পানিসহ সব ইউনিটে বিদ্যুৎ ব্যবহার কমপক্ষে ২৫ শতাংশ কমাতে হবে। গত দুই মাসের বিদ্যুৎ রিডিং ইউনিট হিসাব থেকে ৭ দিনের গড় বিদ্যুৎ রিডিং ভিত্তি ধরে বিদ্যুতের ব্যবহার প্রতি সপ্তাহে গড় থেকে কমপক্ষে ২৫ শতাংশ কম হতে হবে। যদি কোনো অফিস ২৫ শতাংশ বিদ্যুৎ সাশ্রয় না করতে পারে, তাহলে সেটার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, যে পদ্ধতি অনুসরণ করা হচ্ছে, তা সবাই মেনে চললে জ্বালানি খরচ সত্যিই কমানো সম্ভব।
এ ক্ষেত্রে মনিটরিং কমিটি প্রতি সপ্তাহের রবিবার বিদ্যুৎ মিটার পরীক্ষা করে ভিত্তি রিডিং নির্ধারণ করবে। পরের রবিবার তুলনামূলক প্রতিবেদন দেবে। মনিটরিং কমিটির প্রণীত প্রতিবেদন স্ব-স্ব অফিস প্রধানের কাছে জমা দেবে। পর্যায়ক্রমে যা মন্ত্রণালয় ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠানো হবে। কোনো দপ্তর বিদ্যুতের ব্যবহার ২৫ শতাংশ কমাতে না পারলে ওই দপ্তরের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জ্বালানি বিভাগের নির্দেশনায় বলা হয়েছে, যথাসম্ভব দিনের আলো ব্যবহার করা, বৈদ্যুতিক লাইট, ফ্যান, এয়ারকন্ডিশন, টিভি, ফ্রিজ, লিফট ব্যবহার কমিয়ে বিদ্যুৎ সাশ্রয় করতে হবে।

পেট্রোল পাম্পে আলোকসজ্জা বন্ধসহ অপ্রয়োজনীয় বাতি বন্ধেও বিপিসি ব্যবস্থা নেবে। অফিস ত্যাগ করার আগে লাইট, ফ্যান, কম্পিউটার, এয়ারকন্ডিশনের সুইচ বন্ধ নিশ্চিত করতে হবে। এয়ারকন্ডিশন ব্যবহার করতে হলে তাপমাত্রা সর্বনিম্ন ২৫ ডিগ্রি বা তদূর্ধ্ব রাখতে হবে।

নির্দেশনায় আরো বলা হয়, জ্বালানি খাতের বাজেট বরাদ্দের ২০ শতাংশ কম ব্যবহারের জন্য এ বিভাগ এবং আওতাধীন সংস্থা, দপ্তর বা কম্পানিসহ সব ইউনিট বরাদ্দকৃত জ্বালানি (অকটেন/পেট্রল/ডিজেল/গ্যাস) সিলিং কমপক্ষে ২০ শতাংশ কম ব্যবহার করতে হবে। এ ক্ষেত্রে এই বিভাগ এবং আওতাধীন সংস্থা, দপ্তর বা কম্পানিসহ সব ইউনিটের সেবা শাখায় বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে।

এ বিষয়ে জ্বালানি বিভাগের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা বলেন, ‘বিদ্যুৎ সাশ্রয়ে সরকার নির্দেশনা দিয়েছে। সেটা বাস্তবায়নের দায়িত্ব আমাদের। বিষয়টি যাতে ঘোষণায় সীমাবদ্ধ না থাকে, এ জন্য বৈঠক করে আমাদের সব প্রতিষ্ঠানকে বলেছি কিভাবে বাস্তবায়ন করতে হবে। বিষয়টি মন্ত্রণালয় থেকে মনিটরিং করা হচ্ছে। কেউ যদি এ কাজে ব্যর্থ হয়, সে ক্ষেত্রে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করা হয়েছে। ’

সূত্র: কালের কণ্ঠ
এম ইউ/০২ আগস্ট ২০২২

Back to top button