ইউরোপ

লাদেন পরিবার থেকে টাকা নিয়েছিলেন প্রিন্স চার্লস

লন্ডন, ৩১ জুলাই – জঙ্গি সংগঠন আল-কায়েদার সাবেক প্রধান প্রয়াত ওসামা বিন লাদেনের দুই ভাইয়ের কাছ থেকে অনুদান হিসেবে ১০ লাখ পাউন্ড নিয়েছিলেন যুক্তরাজ্যের প্রিন্স চার্লস।

দ্য সানডে টাইমসে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, প্রিন্স চার্লস ওসামা বিন লাদেনের দুই সৎ ভাইয়ের কাছ থেকে এই অর্থ গ্রহণ করেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১৩ সালের ৩০ অক্টোবর লন্ডনে রাজকীয় বাসভবন ক্লারেন্স হাউসে ৭৩ বছর বয়সী প্রিন্স চার্লসের সঙ্গে ব্যক্তিগত বৈঠক করেন ওসামার দুই ভাই ৭৬ বছর বয়সী বকর বিন লাদেন ও শফিক বিন লাদেন। ওই বৈঠকে এই লেনদেন হয়।

অর্থাৎ যুক্তরাষ্ট্রের বিশেষ বাহিনীর অভিযানে ২০১১ সালের মে মাসে পাকিস্তানের ইসলামাবাদের কাছের একটি কম্পাউন্ডে ওসামা বিন লাদেন নিহত হওয়ার দুই বছর পর এই লেনদেন হয়।

ব্রিটেনের ভবিষ্যৎ রাজা প্রিন্স চার্লসের দাতব্য সংস্থা প্রিন্স অব ওয়েলস চ্যারিটেবল ফাউন্ডেশনের (পিডব্লিউসিএফ) জন্য এই অর্থ নেওয়া হয়েছিল।

ইয়েমেনি বংশোদ্ভুত ধনকুবের মোহাম্মেদ বিন আওয়াদ বিন লাদেনের সন্তান হলেন ওসামা, বকর ও শফিক। যদিও বকর এবং শফিকের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী কার্যক্রমে অর্থায়নে জড়িত থাকার কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

এদিকে লাদেনের দুই ভাইয়ের দেওয়া অনুদান জমা হওয়া পিডব্লিউসিএফের চেয়ারম্যান আন চ্যাশায়ার এক বিবৃতিতে বলেছেন, শেখ বকর বিন লাদেন ও তার ভাইয়ের কাছ থেকে ২০১৩ সালে গ্রহণ করা অর্থ যথেষ্ট পর্যবেক্ষণ শেষে নেওয়া হয়েছিল। সরকারসহ বিভিন্ন সূত্র থেকে পাওয়া তথ্য ভালো করে যাচাই-বাছাই করা হয়েছিল। এরপর সংস্থাটির ট্রাস্টিদের সম্মতিতে এই অর্থ নেওয়া হয়। এর সঙ্গে প্রিন্স চার্লসের একক সিদ্ধান্তকে জড়ানোর চেষ্টা বিভ্রান্তিকর ও অন্যায্য হবে।

এই দাতব্য সংস্থার সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র বলেছেন, লাদেন পরিবারের তথ্য যাচাই-বাছাই শেষে ট্রাস্টিরা এই সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছিলেন, লাদেন পরিবারের একজনের অন্যায়-অপরাধের জন্য গোটা পরিবারকে কলঙ্কিত করা উচিত হবে না।

সূত্র: সমকাল
এম ইউ/৩১ জুলাই ২০২২

Back to top button