জাতীয়

আমাকে রাতের ঘুম নষ্ট করতে হচ্ছে কেন, প্রশ্ন সিইসির

ঢাকা, ৩১ জুলাই – নির্বাচন কমিশন (ইসি) আন্তরিকভাবে একটি অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন করতে চায় বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল।

নির্বাচনী পদ্ধতির পরিবর্তন আনার পক্ষে রাজনৈতিক দলগুলোকে সরব হওয়ার আহ্বান জানিয়ে সিইসি বলেন, আজ আমাকে এত বড় চ্যালেঞ্জ, এত চিন্তা করতে হচ্ছে কেন? রাতের ঘুম নষ্ট করতে হচ্ছে কেন?

রোববার (৩১ জুলাই) দুপুরে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে জাতীয় পার্টির (জাপা) সঙ্গে সংলাপে বসে তিনি এমন প্রশ্ন করেন। বৈঠকে জাপা মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নুর নেতৃত্বে ১৪ সদস্যের প্রতিনিধি দল অংশ নেয়।

কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, আন্তরিকভাবে সবাই সাহায্য করবেন, আমাদের এটাও নিরাশা। যার ফলে আমরা ডিপেন্ড করতে চাই সিস্টেমের ওপর। একাধিক দিনে ভোটগ্রহণের জন্য আরও কতগুলো দলের কাছ থেকে প্রস্তাব পেয়েছেন বলে জানান সিইসি।

জাপার উদ্দেশ্যে সিইসি বলেন, ইসির সামর্থ্য, সদিচ্ছা কতটুকু আছে, সেটা অনুধাবন করতে বলবো।

তিনি বলেন, যেহেতু প্রায় ১২ কোটি ভোটার বা ৪০ হাজার ভোটকেন্দ্র হবে। আমাদের যে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর শক্তি, তা সংখ্যানুপাতিক দিক থেকে কম। এদিক থেকে যেটা আপনারা বলছেন, এক্ষেত্রে ফলাফল প্রকাশ পেয়ে গেলে পরবর্তী দিনের জন্য সমস্যা হবে না?

সিইসির এমন মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে ফল একদিনে প্রকাশ হবে বলে চুন্নু প্রস্তাব করেন। তিনি বলেন, আটদিনে নির্বাচন করবো। এরপর ভোট আর্মির কাছে জমা দেবো। এবং সব কেন্দ্রে সিসি টিভি ক্যামেরা থাকবে, এই জিনিসগুলো করতে পারেন। একাধিক দিনে হলে ভোট গণনা হবে সবার পরে, একদিনে।

এরপর হাবিবুল আউয়াল বলেন, কাউকে না কাউকে নেতৃত্বের ভূমিকা নিয়ে সিস্টেম পরিবর্তন করতে হবে। বর্তমান যে সিস্টেম এতে আমি যতই দক্ষতা দেখাই না কেন, পরিপূর্ণ গ্রহণযোগ্য নির্বাচন উঠে আসা খুব কঠিন।

সিইসি বলেন, এজন্য আপনারা গবেষণা করতে পারেন। ওয়ার্কশপ করতে পারেন। এটা আমি মনে করি আপনারা একটা সুন্দর সিস্টেম চাচ্ছেন। অর্থাৎ আপনারা ভোট কারচুপি করতে চাচ্ছেন না। আমি দরিদ্র মানুষ। সেমিনার করার পয়সা আমার (ইসির) নাই। কিন্তু আপনাদের আছে আমি জানি।

সংলাপে অন্যদের মধ্যে সিইসি ছাড়াও চার নির্বাচন কমিশনারসহ ইসির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সূত্র: জাগো নিউজ
এম ইউ/৩১ জুলাই ২০২২

Back to top button