ইউরোপ

ঋষি সুনাকের বিরুদ্ধে এখন যা করছেন বরিস জনসন

লন্ডন, ১৬ জুলাই – বর্তমানে ব্রিটেনের রাজনীতিতে ঋষি সুনাক অত্যন্ত আলোচিত একটি নাম। সম্প্রতি দেশটির প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের বিরুদ্ধ অনাস্থা জানিয়ে পদত্যাগ করে হইচই ফেলে দেন। কেননা, তিনি ছিলেন বরিস জনসনের অন্যতম সমর্থক। কিন্তু সেই ঋষিই পদত্যাগ করেন। একই দিনে ইস্তফা দেন অর্থমন্ত্রী সাজিদ জাভিদও। এরপর পদত্যাগের হিড়িক পড়ে যায় ব্রিটেন সরকারে।

এর জেরে গদি হারিয়ে এখন তত্ত্বাবধায়ক প্রধানমন্ত্রী হিসেবে কাজ চালাতে হচ্ছে বরিস জনসনকে। সেই বরিস এবার দলের ঘনিষ্ঠদের কাছে বলতে শুরু করেছেন, আর যেই হোক না কেন, ঋষি সুনাককে যেন প্রধানমন্ত্রী না করা হয়।

দ্য টাইমস, ডেইলি মেইল-সহ বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের খবরে এমনটাই দাবি করা হচ্ছে।
কনজারভেটিভ দলের নেতা হিসেবে এখন পর্যন্ত যে কয়েকটি ধাপে ভোট হয়েছে তাতে স্পষ্ট প্রধানমন্ত্রীর দৌড়ে এগিয়ে রয়েছেন ভারতীয় তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থা ইনফোসিসের কর্ণধার নারায়ণমূর্তির জামাই ঋষি। কিন্তু তাতে নাখোশ বরিস জনসন।

ঋষির বদলে অন্য কে প্রধানমন্ত্রী হতে পারেন প্রকাশ্যে কোনও নাম বলছেন না বরিস। তবে ঘনিষ্ট সূত্রের খবর, প্রধানমন্ত্রী হিসেবে লিজ ট্রাসকেই তার প্রথম পছন্দ। যাকে শপথ নেওয়ার পরেই তিনি পররাষ্ট্রমন্ত্রী করেছিলেন। এছাড়া তার পছন্দের তালিকায় রয়েছেন পেনি মরডান্ট। তবে আর যে-ই হোক ‘ঋষি কখনই নয়’- এমন কথা সহকর্মীদের বলছেন বলে দাবি সংবাদমাধ্যমের।

সংবাদমাধ্যমগুলোর প্রতিবেদন অনুযায়ী, বরিসের অনুগামীরা ইতোমধ্যেই ‘গোপনে’ জোরদার প্রচার শুরু করে দিয়েছেন ঋষির বিরুদ্ধে। তবে ঋষির পদত্যাগের কয়েক মিনিটের মধ্যে ইস্তফা দেন বরিসের মন্ত্রিসভার আরেক মন্ত্রী সাজিদ জাভিদ। তার বিরুদ্ধে অবশ্য কোনও ক্ষোভ নেই ব্রিটেনের তত্ত্বাবধায়ক প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের। ১০ নম্বর ডাউনিং স্ট্রিট থেকে তাকে বের করে দেওয়ার পিছনে তার প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী ঋষির হাত রয়েছে বলেই মনে করেন বরিস।

সূত্র: বিডি প্রতিদিন
এম ইউ/১৬ জুলাই ২০২২

Back to top button