দক্ষিণ এশিয়া

সন্দেহ কত ভয়ঙ্কর!

ভুবনেশ্বর, ১৬ জুলাই – সন্দেহ একটি মারাত্মক বিষয়। প্রতিদিন শুধু সন্দেহের বশে কত সম্পর্ক ভেঙে যায় তার কোনও হিসাব নেই। আবার এই সন্দেহ থেকেই ঘটে নানা অপরাধ কর্মকাণ্ডও। সন্দেহ থেকে স্ত্রীকে হত্যা করেন স্বামী, কখনও স্বামীকে হত্যা করেন স্ত্রী।

এবার স্ত্রীর বিরুদ্ধে বিশ্বাসঘাতকতার অভিযোগ এনে তার মাথা কেটে হাতে ১২ কিলোমিটার হাঁটলেন এক ব্যক্তি। ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের ওড়িশার ধেঙ্কানল জেলার চন্দ্রশেখরপুরে।

ভারতের বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে এই খবর উঠে এসেছে।
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, স্ত্রীর সঙ্গে অন্য পুরুষের সঙ্গে সম্পর্ক রয়েছে! এমন সন্দেহের বশেই তার মাথা কাটেন ক্ষুব্ধ স্বামী। সেই কাটা মাথা হাতে নিয়ে থানার উদ্দেশে ১২ কিলোমিটার হাঁটলেন ৫৬ বছরের ওই ব্যক্তি। আত্মসমর্পণ করতে চেয়েছিলেন তিনি। তবে থানায় পৌঁছার আগেই স্থানীয়রা তাকে ধরে পুলিশকে খবর দেন।

অভিযুক্তের নাম নাকাফোড়ি মাঝি ওরফে জান্ডা। স্ত্রীকে সন্দেহ করতেন। তা নিয়ে প্রায়ই ঝগড়া হতো দু’জনের মধ্যে। বৃহস্পতিবার এই কলহ চরমে ওঠে। রাগের মাথায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে স্ত্রীর মাথা কেটে ফেলেন জান্ডা।

পরের দিন, শুক্রবার সকালে কাটা মাথা হাতে গোন্ডিয়া থানার উদ্দেশে রওনা দেন জান্ডা। সঙ্গে ছিল খুনের অস্ত্র। দৃশ্যটি দেখে চমকে ওঠেন স্থানীয় বাসিন্দারা। ততক্ষণে বাড়ি থেকে ১২ কিলোমিটার হেঁটে চলে এসেছেন জান্ডা। স্থানীয়রা খবর দেন গোন্ডিয়া থানায়। পরে পুলিশ গিয়ে গ্রেফতার করে তাকে।

সূত্র: যুগান্তর
এম ইউ/১৬ জুলাই ২০২২

Back to top button