জাতীয়

অস্ট্রেলিয়ায় ১৫ থেকে ১৮ ঘণ্টা লোডশেডিং হয়েছে

চট্টগ্রাম, ১২ জুলাই – বিদ্যুতের ব্যবহারে দেশবাসীকে আরও সচেতন এবং সাশ্রয়ী হতে বলেছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, ‘অর্থনৈতিকভাবে অনেক সামর্থ্যবান দেশ সাশ্রয়ীভাবে বিদ্যুৎ ব্যবহার করছে। প্রধানমন্ত্রী সেভাবেই সাশ্রয়ীভাবে বিদ্যুৎ ব্যবহারের আহ্বান জানিয়েছেন। অস্ট্রেলিয়ার কোনও কোনও জায়গায় ১৫ থেকে ১৮ ঘণ্টা লোডশেডিং হয়েছে। উন্নত দেশগুলোর কোনও কোনোটিতে লোডশেডিং হয়েছে এবং সেখানে সাশ্রয়ীভাবে বিদ্যুৎ ব্যবহার করা হচ্ছে।’

মঙ্গলবার (১২ জুলাই) বিকালে চট্টগ্রাম নগরীর দেওয়ানজি পুকুরপাড়ে নিজ বাসায় সমসাময়িক বিষয়ে ব্রিফিংকালে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন। এর আগে, মন্ত্রী চট্টগ্রাম নগরীর জলাবদ্ধতা প্রকল্প বাস্তবায়নকারী কর্তৃপক্ষের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করেন।

এ সময় তিনি আরও বলেন, যারা ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ দিতে পারেনি, বিদ্যুতের দাবিতে মিছিলকারীদের ওপর গুলিবর্ষণ করেছে, তাদের বিদ্যুৎ নিয়ে কথা বলারই অধিকার থাকে না। আসলে বিএনপির কাছে কোনও ইস্যু নেই, তাই কিছু একটা তো বলতে হবে, সেজন্যই কথা বলছে।

এবার ঈদযাত্রা অনেক স্বস্তির হয়েছে দাবি করে তথ্যমন্ত্রী আরও বলেন, ‘মানুষ এবার স্বস্তির মধ্য দিয়ে ঈদুল আজহা উদযাপন করতে নিজ নিজ গন্তব্যে যেতে পেরেছেন। এছাড়া উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে সারা দেশে ঈদ উদযাপন হয়েছে। কোরবানির পশুর ক্ষেত্রেও আমরা যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করেছি সেটি এবার আরও স্পষ্ট হয়েছে। কারণ, ভারতীয় গরু এবার আসেনি বললেই চলে।’

মন্ত্রী আরও বলেন, সরকারের কঠোর অবস্থান ও সিদ্ধান্তের কারণেই সীমান্ত দিয়ে কোনও পশু দেশে ঢুকতে পারেনি, যাতে আমাদের দেশের খামারিরা উপকৃত হয়। এক্ষেত্রে দেশ স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়েছে। আমাদের দেশ আয়তনের দিক দিয়ে পৃথিবীর ৯২তম। কিন্তু আমরা উৎপাদনের দিক দিয়ে পৃথিবীর শীর্ষ দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম। ধান উৎপাদনে আমরা পৃথিবীতে তৃতীয়, মিঠা পানির মাছ উৎপাদনে তৃতীয়, সবজি উৎপাদনে চতুর্থ, আলু উৎপাদনে সপ্তম।

চট্টগ্রাম নগরীর জলাবদ্ধতা নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী বলেন, চট্টগ্রামের জলাবদ্ধতা নিরসনে তিনটি প্রকল্পে ১১ হাজার কোটির কাছাকাছি টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। যারা এই প্রকল্পগুলো বাস্তবায়ন করছেন, এই টাকার সদ্ব্যবহার ও সমন্বিতভাবে কাজ করা তাদের দায়িত্ব। যারা জলাবদ্ধতা প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে আমি তাদের সবসময় তাগাদা দিয়ে আসছি।

সূত্র: বাংলা ট্রিবিউন
এম ইউ/১২ জুলাই ২০২২

Back to top button