জাতীয়

পদ্মা সেতু যেন পর্যটনকেন্দ্র, ভিড় জমাচ্ছেন দর্শনার্থীরা

মুন্সিগঞ্জ, ১২ জুলাই – পদ্মা সেতু দেখতে ঈদের তৃতীয় দিনে মাওয়া টোলপ্লাজায় ভিড় জমাচ্ছেন দর্শনার্থীরা। মঙ্গলবার (১২ জুলাই) দুপুর থেকে ব্যক্তিগত যানবাহন, গণপরিবহনসহ ট্রাক-পিকআপে চড়ে প্রচুর সংখ্যক দর্শনার্থীকে টোলপ্লাজায় আসতে দেখা যায়। বিকেল ৫টার দিকে প্রাইভেটকারে আসা দর্শনার্থীদের ঢল নামে।

সরেজমিন দেখা যায়, পদ্মা সেতু উত্তর থানার মোড় থেকে টোলপ্লাজা পর্যন্ত যানবাহনের দীর্ঘ সারি। এসব যানবাহনের মধ্যে ব্যক্তিগত গাড়ির সংখ্যাই বেশি। গাড়ির চাপে টোলপ্লাজার অভিমুখে গাড়ি এগোচ্ছে ধীরগতিতে। স্বজন, বন্ধুদের দল আর সপরিবার নিয়ে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ছুটে আসছেন স্বপ্ন ও সক্ষমতার পদ্মা সেতু দেখতে। কিছু মানুষ ট্রাক, পিকআপ ভাড়া করে শামিয়ানা টাঙিয়ে ছুটে চলেছেন সেতুর পথে। বহরে নারী-শিশুরাও রয়েছেন। টোলপ্লাজায় পাঁচটি বুথ দিয়ে আদায় হচ্ছে টোল।

মো. মাসুদ নামের এক দর্শনার্থী বলেন, ‘গাজীপুর থেকে আসছি। প্রতি বছর ঈদে কোথাও না কোথাও ঘুরতে যাই। এবার ভাবলাম স্বপ্নের পদ্মা সেতুই দেখে আসি। তাই দেখতে এসেছি। এখানে তো প্রচুর মানুষ। গাড়ির সারিও দীর্ঘ। তাই অপেক্ষা করতে হচ্ছে। এপার থেকে ওপার যাবো। আবার ওপার থেকে আসবো। এটাই একটা আনন্দ।’

শ্রাবন্তী নামের এক শিশু দর্শনার্থী বলে, ‘ঈদ উপলক্ষে বাবা-মায়ের সঙ্গে পদ্মা সেতু দেখতে এসেছি। খুব আনন্দ লাগছে।’

নারায়ণগঞ্জ থেকে এসেছেন মো. উজ্জ্বল। তিনি বলেন, ‘পদ্মা সেতু টিভিতে অনেকবার দেখছি। তাই বাস্তবে দেখার ইচ্ছা জাগলো। ঈদের ছুটি তাই দেখতে চলে এলাম।’

আশপাশের জেলা ছাড়াও দূর-দূরান্ত থেকে প্রচুর সংখ্যক দর্শনার্থী পদ্মা সেতু এলাকায় এসেছেন। পিকআপে চড়ে ঝিনাইদহ থেকে আসা একটি দলের সঙ্গে কথা হয় এ প্রতিবেদকের। হাসিমুখে সবাই বলেন, ‘আমরা ঝিনাইদহ থেকে এসেছি। পিকআপ ভাড়া করে বর্ডার থেকে এসেছি সেতু দেখতে।’

এদিকে পিকআপে সাউন্ডবক্স নিয়ে বিকট শব্দে গান বাজিয়ে সেতুতে ওঠার চেষ্টার সময় দুটি পিকআপ জব্দ করে পুলিশ। পদ্মা সেতু উত্তর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলমগীর হোসাইন বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

সেতু কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা যায়, ঈদের দ্বিতীয় দিন সোমবার (১১ জুলাই) সেতু পারাপার করেছে ৩২ হাজার ৪৪০টি যানবাহন। এতে টোল আদায় হয়েছে ৩ কোটি ৬০ লাখ ৫৫ হাজার ৪০০ টাকা।

সূত্র : জাগো নিউজ
এম এস, ১২ জুলাই

Back to top button