ক্রিকেট

ব্যাটিং ব্যর্থতার দায় ওপেনারদের কাঁধে নিলেন লিটন

গায়ানা, ০৮ জুলাই – টি-টোয়েন্টিতে বড় স্কোর করতে ব্যাটিংয়ে ভালো শুরুর বিকল্প নেই। কিন্তু বাংলাদেশ সেই জায়গায় অনেক পিছিয়ে। বিশেষ করে ভালো পারফরম্যান্স দেখিয়ে ওপেনিংয়ে থিতু হতে পারছেন না কেউ। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিন ম্যাচের সিরিজেও সুবিধা করতে পারেননি ওপেনাররা, এমনকি টপ অর্ডারের অন্য ব্যাটসম্যানরাও ছিলেন নিষ্প্রভ। শুধু সাকিব আল হাসান ঝলক দেখান, যদিও দলের কাজে আসেনি।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তৃতীয় টি-টোয়েন্টিতে ৪৯ রান করা লিটন বললেন, টপ অর্ডারের ব্যর্থতার কারণে দল বড় স্কোর গড়তে পারছে না এবং পরিণতিতে হার। ম্যাচ শেষে এই ওপেনার বলেছেন, ‘সত্যি কথা আমরা খুব ভালো ব্যাটিং করিনি। প্রথম ম্যাচেও না, দ্বিতীয় ম্যাচেও ভালো করেছি মনে করি না। শুধু সাকিব ভাই ছাড়া। যে কন্ডিশনে খেলছিলাম সেটা ব্যাটিং সহায়ক উইকেট ছিল। আমরা টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানরা আমি, বিজয় ভাই কিংবা মুনিম যেদিন খেলেছে তারা যদি তাদের ভূমিকা পালন করতো, তাহলে পরের ব্যাটসম্যানরা মন খুলে খেলতে পারতো। আমাদের দুই তিনটা ইনিংসে ব্যর্থতার জন্য ঠিক খেলাটা খেলতে পারিনি।’

১৬৪ রানের টার্গেট দেওয়া বাংলাদেশ ৮ জনকে দিয়ে বল করিয়েছে। লিটনের মতে, বোলাররা ভালো বল করলেও কাইল মায়ার্স ও নিকোলাস পুরান পাওয়ার হিটিং দিয়ে বাংলাদেশকে ডুবিয়েছেন।

এই ওপেনার বললেন, ‘আজকের ম্যাচে আমাদের বোলিং এক্সিকিউশন সমস্যা ছিল। সব বোলার এক্সিকিউশন করতে পারেনি। পুরান ও মায়ার্স ভালো খেলেছে, খুব ভালো ভালো বল মেরে খেলেছে। তারা পাওয়ার ক্রিকেট খেলেছে, সেটা আমরা পারিনি। হয়তো বোলারদের মাথায় কাজ করেছে একটু উনিশ বিশ হলেই তারা মার খাবে। এটা বোলারদের ওপর প্রভাব ফেলেছে।’

ক্যারিবিয়ান খেলোয়াড়রা স্বভাবজাতভাবেই মারমুখী বললেন লিটন, ‘মায়ার্স-পুরান জিনগতভাবে অনেক শক্তিশালী, যেটা আমি কিংবা আমাদের দলের কেউই নেই। তারা যে কোনো সময় চাইলে বড় গ্রাউন্ডে ছয় মারতে পারে, যেটা আমরা বা আমাদের টিমের কেউই পারবো না। আমরা সবসময় ব্যাটিংয়ে চিন্তা করি চার মারতে, আমাদের ইনিংসে দেখবেন চারই বেশি হয়। যেখানে ওরা ছয় বেশি মারে। এখানেই পার্থক্য তৈরি হয়।’

সূত্র : রাইজিংবিডি
এম এস, ০৮ জুলাই

Back to top button