জাতীয়

ভোটারবিহীন নির্বাচন করতে দেওয়া হবে না: নোমান

ঢাকা, ০৫ জুলাই – আওয়ামী লীগ নিজেরাই তাদের পতন নিশ্চিত করছে মন্তব্য করে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান বলেছেন, জনগণ যে নির্বাচনে ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারে তাকে বলে গ্রহণযোগ্য নির্বাচন। কিন্তু যে নির্বাচনে আগের রাতেই ভোট গ্রহণ সম্পন্ন করা হবে সে নির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহণ করবে না। এমনকি কাউকে অংশগ্রহণ করতে দেয়া হবে না। অর্থাৎ ভোটারবিহীন নির্বাচন আর করতে দেয়া হবে না।

মঙ্গলবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

‘চলমান রাজনৈতিক সংকট ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন নির্বাচন’ শীর্ষক এই আলোচনা সভার আয়োজন বাংলাদেশ ইয়ুথ ফোরাম।

আবদুল্লাহ আল নোমান বলেন, আজকে দেশে যে সংকট তা নিরসন করতে হলে চলমান কর্তৃত্ববাদী সরকারকে ক্ষমতা থেকে সরিয়ে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে। আজকে তাই সরকার পতনের আন্দোলন করতে হবে। জনগণকে আরও বেশি সম্পৃক্ত করতে হবে। তা না হলে আমরা হাসিনাকে সরাতে পারবো না। সেই লক্ষ্যে সমস্ত রাজনৈতিক দল ও শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ করতে হবে।

খালেদা জিয়ার কারাবাস প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সম্পূর্ণ রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগারে বন্দী রাখা হয়েছে। আমাদেরকে চোখ কান খোলা রাখতে হবে। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও দেশনায়ক তারেক রহমানের নেতৃত্বে আমরা আরও এগিয়ে যাবো এটাই আমাদের সাংগঠনিক লক্ষ্য।

বিএনপির এই নেতা বলেন, গ্রহণযোগ্য নির্বাচন মানে জনগণের নির্বাচন। জনগণ নিজেরাই এখন সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষুব্ধ এবং ঐক্যবদ্ধ। তাদেরকে নেতৃত্ব দিয়ে সরকার পতন আন্দোলন এগিয়ে নিতে হবে। গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের দাবিতে যে সংকট তৈরি হয়েছে সে জন্য আমাদেরকে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে রাজপথে সরকার পতনের আন্দোলন আরও বেশি ত্বরান্বিত করবো।

বাংলাদেশ ইয়ুথ ফোরামের উপদেষ্টা ড. শেখ ফরিদুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও ইয়ুথ ফোরামের সভাপতি মুহাম্মদ সাইদুর রহমানের পরিচালনায় আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য দেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির আহ্বায়ক মো. আবদুস সালাম, প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক এবিএম মোশারফ হোসেন, নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ, আনোয়ার হোসেন বুলু, কৃষক দলের শাহ আব্দুল্লাহ আল বাকী, স্বেচ্ছাসেবক দলের রফিকুল ইসলাম (ভিপি মাসুম), সাবেক ছাত্রনেতা ইসমাঈল তালুকদার খোকন, ঢাকা দক্ষিণ বিএনপির নাদিয়া পাঠান পাপন এবং গণতান্ত্রিক আন্দোলনের আমির হোসেন বাদশা, জিয়া নাগরিক ফোরামের সভাপতি মিয়া মোহাম্মদ আনোয়ার, মৎস্যজীবী দলের ইসমাইল হোসেন সিরাজী প্রমুখ।

সূত্র : দেশ রুপান্তর
এম এস, ০৫ জুলাই

Back to top button