জাতীয়

পদ্মা সেতুতে চলাচল নিয়ে সতর্ক করে যা বলল সেনাবাহিনী

মাদারীপুর, ২৭ জুন – পদ্মা সেতুতে পায়ে হাটা, দাঁড়িয়ে ছবি তোলা ও ভিডিও করা বন্ধ করতে এবং তা নিশ্চিত করতে সেনাবাহিনীর টহল জোরদার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন পদ্মা সেতুর ইঞ্জিনিয়ার সাপোর্ট অ্যান্ড সেফটি টিমের সমন্বয়ক লে. কর্নেল মো. রবিউল আলম। সোমবার (২৭ জুন) বিকেলে পদ্মা সেতুর জাজিরা প্রান্তের টোল প্লাজায় প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ২৫ জুন পদ্মা সেতু উদ্বোধন করা হয়। ২৬ জুন ভোর থেকে জনসাধারণের জন্য সেতুটি উন্মুক্ত করা হয়। উদ্বোধনের পর হতেই নিরাপদে যান চলাচলের জন্য বিবিএ ও সেনাবাহিনী তথা ইঞ্জিনিয়ার সাপোর্ট অ্যান্ড সেফটি টিম নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। মাওয়া জাজিরা প্রান্তে সেতুর গুরুত্বপূর্ণ যন্ত্রপাতি ও মালামাল রয়েছে। উদ্বোধনের পর থেকেই সেনাবাহিনী ও সেতু কর্তৃপক্ষ নিরলসভাবে সঠিকভাবে যানবাহন চলাচলের জন্য চেষ্টা করে যাচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, সেতুর ওপরে যানবাহন থামিয়ে জনসাধারণ যানবাহন থেকে নেমে সেতুর সৌন্দর্য অবলোকন করছে এবং ছবি ভিডিও ধারণ করছে। এতে ব্রিজের ওপর তীব্র যানজটসহ দুর্ঘটনার ঝুঁকি বৃদ্ধি পাচ্ছে। এছাড়াও সেতুর উপর রক্ষিত গুরুত্বপূর্ণ মালামাল ও যন্ত্রপাতির ক্ষতি সাধিত হচ্ছে। এমতাবস্থায় গত ২৬ জুন বিবিএর অনুরোধের প্রেক্ষিতে এভোক কনস্ট্রাকশন সুপারভিশন কনসালটেন্ট ও ৯৯ কম্পোজিট ব্রিগেড তথা সেনাবাহিনী কর্তৃক ভ্রাম্যমান টহল জোরদার করা হয়েছে। উভয় প্রান্তের টোল প্লাজায় মাকিং এর মাধ্যমে সাধারণ জনগণকে ব্রিজের উপর গাড়ি থামানো ও গাড়ি হতে অবতরণ না করার ব্যাপারে অবহিত করা হচ্ছে। এছাড়াও ডিউটি পোস্টের মাধ্যমে ব্রিজের উপর কোন জনগণ হেটে না উঠতে পারে ,তা নিশ্চিত করা হচ্ছে।

লে. কর্নেল মো. রবিউল আলম বলেন, আপনাদের মাধ্যমে আমি আরো জানাতে চাই স্বপ্নের পদ্মা সেতু আমাদের দেশের সম্পদ। এই সম্পদ রক্ষার দায়িত্ব আমাদের সকলের। আসুন আমরা সকলে মিলে আমাদের জাতীয় সম্পদ রক্ষা করি। সেনাবাহিনী,সেতু কর্তৃপক্ষ ও পুলিশের মাধ্যমে আমরা স্বপ্নের পদ্মা সেতুর নিরাপত্তা নিশ্চিত করবো।

মোটরসাইকেল কবে নাগাদ সেতু দিয়ে চলতে পারবে এমন প্রশ্নের উত্তরে সেনাবাহিনী কর্মকর্তা বলেন, বিষয়টি এখনো আমরা জানি না। আমরা আশা করছি সেতু কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্তটা আপনাদের জানিয়ে দেবে।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন ২৫ ইস্ট বেঙ্গলের কমান্ডিং অফিসার লে. কর্নেল মো. ফাহিম মাহবুব।

সূত্র : ইত্তেফাক
এম এস, ২৭ জুন

Back to top button