ক্রিকেট

বৃষ্টিতে বন্ধ তৃতীয় দিনের খেলা, উইন্ডিজের লিড ১৪২

সেন্ট লুসিয়া, ২৬ জুন – তৃতীয় দিনের শুরুর পর এক ঘণ্টাও পার হয়নি। এর মাঝেই হানা দেয় বেরসিক বৃষ্টি। ১০ ওভার হওয়ার পর খেলা বন্ধ রয়েছে। এখন পর্যন্ত উইন্ডিজের সংগ্রহ ৭ উইকেটে ৩৭৬ রান। উইন্ডিজের লিড ১৪২ রান।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

বাংলাদেশ: ২৩৪/১০ (৬৪.১ ওভার)।
ওয়েস্ট ইন্ডিজ: ৩৭৬/৭ (১১৬ ওভার)।

মিরাজ-খালেদে দিনের শুরুতে স্বস্তির পরশ

মিরাজের পরই খালেদ আহমেদের আক্রমণ। নতুন ব্যাটসম্যান আলঝারি জোসেফকে লিটন দাসের হাতে ক্যাচ বানিয়ে সাজঘরে পাঠান খালেদ। তার শট বলে পুল করতে চেয়েছিলেন জোসেফ। কিন্তু ব্যাটে বলে ঠিকমতো সংযোগ হয়নি। ৯ বলে ৬ রান করেন জোসেফ। আর বাকি ৩ উইকেট। এটি খালেদের তৃতীয় উইকেট। পথের কাঁটা হয়ে এখনো ক্রিজে আছেন কাইল মায়ার্স।

মিরাজের ঘূর্ণিতে দিনের শুরুতে স্বস্তির পরশ

তৃতীয় দিনের দ্বিতীয় ওভার জশুয়া ডা সিলভাকে এলবিডব্লিউ করে সাজঘরে পাঠালেন মেহেদি হাসান মিরাজ।

উইন্ডিজকে দ্রুত অলআউটের লক্ষ্যে তৃতীয় দিনের লড়াইয়ে বাংলাদেশ

সেন্ট লুসিয়া টেস্টের তৃতীয় দিন রোববার (২৬ জুন) মাঠে নেমেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ-বাংলাদেশ। প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের ২৩৪ রানের জবাবে ব্যাট করছে উইন্ডিজ। ৫ উইকেটে ৩৪০ রান নিয়ে তারা দিন শুরু করে। লিড ১০৬ রানের। ক্রিজে আছেন কাইল মায়ার্স (১২৬) ও জশুয়া (২৬)। সাকিব আল হাসানের দলের লক্ষ্য উইন্ডিজের রান আটকে দ্রুত উইকেট নিয়ে লিডের পাহাড়ে চাপা না পড়া।

ব্যাকফুটে বাংলাদেশ

প্রথম ইনিংসে আড়াইশর নিচে (২৩৪) রানে অলআউট হয়েছিল বাংলাদেশ। ফিল্ডিংয়ে নেমে দ্বিতীয় দিন প্রথম সেশনে চার উইকেট ছাড়া বাকি সেশনগুলোতে বাংলাদেশের বোলাররা ছিলেন নিস্প্রভ। ১০৬ রানের লিড নিয়ে তৃতীয় দিন ব্যাটিংয়ে নামছে স্বাগতিকরা। আজ দ্রুত মায়ার্স-জশুয়াকে ফেরাতে না পারলে বাংলাদেশের জন্য বড় বিপদ হবে।

হতাশ রাসেল ডমিঙ্গো

দ্বিতীয় দিন শেষে হতাশ কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো বলেন, ‘ব্যাটিং ও বোলিংয়ে এই মুহূর্তে গুরুতর জিজ্ঞাসা আছে আমাদের। কারণ এটা কোনোভাবেই আড়াইশ রানের উইকেট নয়। শেষের ওই ৩০ রানের জুটি না হলে ১৯০ রানে অলআউট হতাম আমরা।’

মায়ার্স থেকে শিক্ষা নিতে বললেন প্রধান কোচ

কাইল মায়ার্স অপরাজিত সেঞ্চুরির ইনিংস খেলে উইন্ডিজকে চালকের আসনে নিয়ে গেছেন। তার থেকে শিক্ষা নিতে বললেন, ‘বাংলাদেশ প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো। মায়ার্সের মতো ১২০ রানের ইনিংস খেলতে হবে আমাদের কারও। গত বছর ওরা আমাদের বিপক্ষে ৪০০ রান তাড়া করেছে চট্টগ্রামে, মায়ের্স তখন ডাবল সেঞ্চুরি করেছে। আমাদের কেউ এখন তেমন বড় ইনিংস খেলতে পারছে না। মায়ার্সকে দেখে শিক্ষা নিতে হবে। টেস্ট ম্যাচ অনেক কঠিন। এরকম ভালো ব্যাটিং করতে না পারলে ভালো দলগুলি শাস্তি দেবে এবং আমাদেরকে এখন সেই শাস্তি পেতে হচ্ছে।’

দ্বিতীয় দিনের চিত্র

প্রথম সেশনের শেষ দিকে বাংলাদেশের দারুণ বোলিংয়ে চার উইকেট হারিয়ে ফেলে উইন্ডিজ। আশা জেগেছিল তাদের দ্রুত অলআউটের। কিন্তু তাতে ছাই ঢেলে দিলেন মায়ার্স। ব্ল্যাকউডের সঙ্গে জুটি গড়ে কার্যত ম্যাচের নাটাই নিজেদের হাতে নিয়ে নেন। ব্ল্যাকউড ফিরলেও মায়ার্স তুলে নেন দ্বিতীয় সেঞ্চুরি। দিন শেষে মায়ার্স ১২৭ ও জশুয়া ২৬ রানে অপরাজিত আছেন। উইন্ডিজের সংগ্রহ ৫ উইকেটে ৩৪০ রান। লিড দাঁড়িয়েছ ১০৬ রান। আজ সারাদিনে ৫ উইকেট নিয়েছে বাংলাদেশ। প্রথম সেশনে চার উইকেটের পর তৃতীয় সেশনে ১ উইকেট। দ্বিতীয় সেশনে কোনো উইকেটের দেখা পায়নি সাকিবের দল। এখানেই পিছিয়ে যায় রাসেল ডমিঙ্গোর শিষ্যরা। দুটি করে উইকেট নেন মিরাজ-খালেদ।

সূত্র : রাইজিংবিডি
এম এস, ২৬ জুন

Back to top button