জাতীয়

স্বপ্নের পদ্মা সেতুতে প্রথম

মুন্সিগঞ্জ, ২৬ জুন – স্বপ্নের পদ্মা সেতু গতকাল শনিবার উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জনসাধারণের চলাচলের জন্য রোববার ভোর ৫টা ৫০ মিনিটে উন্মুক্ত করা দেয়া হয় স্বপ্নের পদ্মা সেতু।

এর আগে শনিবার রাতেই সেতুর উত্তর প্রান্ত মাওয়ায় গাড়ি নিয়ে ছুটে আসেন অনেকে। তবে উত্তর প্রান্তে প্রথমেই টোল দিয়ে পদ্ম সেতু পাড়ি দেন মোটরসাইকেলচালক জসিম।

প্রথমবারের মতো সেতুতে চড়ার উচ্ছ্বাস দেখা যায় জসিমের চোখে-মুখে। তিনি বলেন, ‘আমি বাইক নিয়ে প্রথম সবার আগে পদ্মা সেতু পার হব—এই ইচ্ছা নিয়ে রাতেই মাওয়া চলে এসেছিলাম। আল্লাহ আমার ইচ্ছা পূরণ করেছেন।

‘আমি খুবই খুশি। সারা জীবন বলতে পারব আমি ইতিহাসের সাক্ষী।’

সেতুর এ প্রান্তে প্রথম যে ট্রাকটি পৌঁছায়, তার চালকের মো. শিপু, পণ্য নিয়ে যাচ্ছিলেন বরিশালে।

এক প্রান্তের প্রথম ট্রাকের চালক হিসেবে কেমন লাগছে জানতে চাইলে শিপু বলেন, ‘খুব আনন্দ লাগতাছে; গর্ব হইতাছে যে আমি সেতুতে প্রথম ট্রাক চালায়া যাব। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ আমাদের এতদিনের কষ্ট দূর করার জন্য।’

যে অ্যাম্বুলেন্সটি টোল দিয়ে সেতুতে ওঠে, তার চালক আশিক বলেন, ‘মনটাই ভালো হয়ে গেছে। ব্রিজে প্রথম রোগী নিয়ে পার হইতাছি।

‘আগে প্রতিবার ঘাট আর ফেরির চিন্তায় থাকতাম। কত রোগী মারা গেল আমার গাড়িতে। এখন আর এসব চিন্তা মাথায় আসব না।’

কাভার্ডভ্যানটি প্রথম টোল দেয় মাওয়া প্রান্তে। এর চালক ফেরদৌস বলেন, ‘আমি বুঝি নাই যে প্রথমে আমি কাভার্ডভ্যান নিয়া ব্রিজ পার হইতে পারব। আমি মাল নিয়া যাব মাদারীপুর। গত তিন দিন ধইরা ঘাটে বইসা ছিলাম।

‘পরে মালিক বলল ব্রিজ দিয়া পার হইয়া যাইতে। এই জন্য আসলাম। আমার খুব খুশি লাগতাছে; আমার কাভার্ডভ্যান প্রথম ব্রিজে উঠল।’

মাওয়া প্রান্তে প্রাইভেটকারের মধ্যে মো. রাজুর গাড়িটিই প্রথম সেতুতে ওঠে। রাজু বলেন, ‘আমরা যাচ্ছি মাদারীপুর। আজকেই যাচ্ছি ব্রিজ দেখব বলে। রাতের বেলা এখানে আসছি, যেন সবার আগে আমার গাড়ি ব্রিজে উঠতে পারে। তা-ই হলো। এখন খুব ভালো লাগছে।’

মাওয়া প্রান্তে পদ্মা সেতুতে চড়া প্রথম স্পোর্টস ইউটিলিটি ভেহিক্যাল (এসইউভি) ছিল নিশান এক্সট্রেইল মডেলের গাড়িটি।

সেতুতে নিজের গাড়ির চাকা প্রথম ঘোরানোর পরিকল্পনা নিয়ে বন্ধুদের নিয়ে এসেছেন শাহিন। বেলুন হাতে গাড়ির ছাদ খুলে আনন্দ করতে করতে সেতু পাড়ি দেয়ার আগে গাড়িটির মালিক বলেন, ‘আমার খুব ইচ্ছা ছিল আমার গাড়ি সবার আগে সেতুতে উঠবে। সবার প্রথম হতে পারিনি, কিন্তু জিপ গাড়ির মধ্যে আমারটাই প্রথম, এটাই বা কম কী! আমি খুব খুশি।’

সেতুর এক প্রান্তে চড়া প্রথম পিকআপভ্যানের চালক রাশেদুল। পিকআপ ক্যাটাগরিতে গাড়িটি যে সবার আগে, তা বুঝতে পারেননি রাশেদুল। এ নিয়ে তিনি বলেন, ‘আমি তো বুঝিই নাই যে, আমার পিকআপ প্রথম৷ ভাবছিলাম আগে যামু। এই জন্য তাড়াতাড়ি আসছিলাম, কিন্তু এত জ্যাম দেখে বুঝছি আমার আগে যাওয়া আর হইব না।

‘অহন আপনে কইলেন আমার আগে অন্য কোনো পিকআপ যায় নাই। এইডা তো খুব খুশির কতা। বাসায় ফোন কইরা জানামু।’

মাওয়া প্রান্তে সেতুতে চড়া প্রথম যাত্রীবাহী বাসটি এনা পরিবহনের। শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত বাসটির চালক মো. বাবুল বলেন, ‘আমি খুবই খুশি আমার বাস প্রথম ব্রিজ দিয়া যাবে। এই আনন্দ আপনারে বুঝাইতে পারব না। আমি দক্ষিণাঞ্চলের মানুষ, কিন্তু বাস চালাই উত্তরবঙ্গ রুটে।

‘পদ্মা সেতু দেখতাম আর ভাবতাম, এই ব্রিজে কি আমার গাড়ি চালানোর সৌভাগ্য হইব? দেখেন আল্লাহ আমার আশা পূরণ করছে। প্রথম বাস আমারটাই উঠল।’

সূত্র : বাংলাদেশ জার্নাল
এম এস, ২৬ জুন

Back to top button