জাতীয়

রাষ্ট্রীয় খরচে হজে যেতে গুনতে হবে বিমান ভাড়া

ঢাকা, ১২ জুন – ধর্মপ্রাণ বিবেচনায় সরকার প্রতি বছর বিভিন্ন পর্যায়ের মানুষকে হজের সুযোগ করে দেয়। এবারও সরকারি খরচে ২৫৪ জন হজ পালনের জন্য নির্বাচিত হয়েছেন।

তবে রাষ্ট্রীয়ভাবে হজ পালনের জন্য নির্বাচিত ব্যক্তিদের এবার বিমান ভাড়া পরিশোধ করতে হবে।

রোববার (১২ জুন) ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয় সরকারি খরচে হজ পালনকারীদের তালিকা প্রকাশ করে। তালিকায় থাকা ব্যক্তিরা সরকারি হজ প্যাকেজ-২ এর আওতায় হজ পালন করবেন।

করোনাভাইরাস মহামারির কারণে সৌদি সরকারের বিধিনিষেধের মুখে গত দু’বছর বাংলাদেশ থেকে কেউ হজ পালন করতে সৌদি আরবে যেতে পারেননি।

সবশেষ ২০১৯ সালে বাংলাদেশ থেকে সৌদি আরবে গিয়েছিলেন হজযাত্রীরা। ওই সময়ে সরকারি খরচে হজ পালনকারীরা সংখ্যা ছিল ৩০৮ জন।

তালিকা পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, তালিকায় অন্তত দেড়শ ব্যক্তি আওয়ামী লীগ ও সরকার গঠনে একসঙ্গে থাকা অন্যান্য দলের নেতাকর্মী এবং তাদের পরিবারের লোকজন। তালিকায় বেশির ভাগ ব্যক্তির দলীয় পরিচয় প্রকাশ করা হয়নি।

তালিকার ৩৩ জন জামালপুরের লোক। ধর্ম বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খানের নির্বাচনী এলাকা হচ্ছে ময়মনসিংহে (জামালপুর-২)।

তালিকা পর্যালোচনা করে আরও দেখা গেছে, ১০ জন হচ্ছেন রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং ৪২ জন গণভবন বা প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারী।

তালিকা প্রকাশের আদেশে বলা হয়েছে, রাষ্ট্রীয় খরচে হজ পালনকারী ব্যক্তিদের বিমান টিকিট বাবদ এক লাখ ৪০ হাজার টাকা ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের পরিচালিত মতিঝিলের সোনালী ব্যাংকের স্থানীয় কার্যালয় শাখার 0002633000908 (Sale Proceeds of Hajj Deposit) হিসাব নম্বরে পে-অর্ডার করে ওই পে-অর্ডারটি আশকোনার হজ অফিসের পরিচালকের কাছে জমা দেবেন। পে-অর্ডার জমা না দিলে তার পিলগ্রিম আইডি প্রদানসহ ভিসা প্রক্রিয়া স্থগিত থাকবে।

রাষ্ট্রীয় খরচে হজ পালনের জন্য নির্বাচিত ব্যক্তিদের বিমানের ফ্লাইট প্রাপ্তি সাপেক্ষে সম্ভাব্য ২ ও ৩ জুলাই ( আগে বা পরে) সৌদি আরব যাবেন এবং বিমানের ফ্লাইট প্রাপ্তি সাপেক্ষে আগামী ৭ আগস্ট বাংলাদেশে ফিরে আসবেন।

সৌদি ভিসা নিতে রাষ্ট্রীয় খরচে হজ পালনকারী ব্যক্তিদের অবশ্যই প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও ভ্যাকসিন/টিকা গ্রহণ করে ই-হেলথ সনদ নিতে হবে।

এতে আরও রাষ্ট্রীয় বলা হয়, সরকারি খরচে হজ পালনকারী ব্যক্তিরা সরকারি ব্যবস্থাপনার হজযাত্রী হিসেবে সরকারের সর্বনিম্ন প্যাকেজ মূল্যে উল্লিখিত সেবা পাবেন। তারা দৈনিক ভাতা বা অন্যান্য আর্থিক সুবিধাদি পাবেন না। তবে খাওয়া খরচ বাবদ ৩২ হাজার টাকা হজে যাওয়ার আগে দেয়া হবে।

রাষ্ট্রীয় খরচে হজ পালনকারী প্রত্যেক হজযাত্রীকে কোরবানি খরচ বাবদ আনুমানিক ৮১০ সৌদি রিয়াল পৃথকভাবে নিজ দায়িত্বে সঙ্গে নিতে হবে।

সৌদি আরবে চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ৮ জুলাই (৯ জিলহজ, ১৪৪৩ হিজরি) এ বছরের পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত হবে। সরকারি ব্যবস্থাপনায় সর্বনিম্ন প্যাকেজ (প্যাকেজ-২) এর মাধ্যমে হজ পালনে ব্যয় ধরা হয়েছে ৫ লাখ ২১ হাজার ১৫০ টাকা।

সূত্র : জাগো নিউজ
এম এস, ১২ জুন

Back to top button