বিচিত্রতা

প্রথা ভেঙে নিজেকেই বিয়ে করলেন সেই নারী

সাধারণত একজন ছেলে ও মেয়ের মধ্যে বিয়ে হয়ে থাকে। কিন্তু এই প্রথাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে নিজেকেই বিয়ে করবেন জানিয়ে হইচই ফেলে দিয়েছিলেন ক্ষমা বিন্দু। অবশেষে ঘোষণা অনুযায়ী বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করেছেন এই ভারতীয় যুবতী।

সম্প্রতি ক্ষমা বিন্দুর বিয়ের বিষয়টি প্রকাশ্যে আসার পর সেটি নিয়ে বেশ আলোচনা হয়। ২৪ বছর বয়সী এই নারীর বাড়ি ভারতের গুজরাটে। টাইমস অব ইন্ডিয়াকে নিজের বিয়ে প্রসঙ্গে ক্ষমা বলেন, ‘অবশেষে আমি এখন একজন বিবাহিত নারী। বেশ আনন্দিত।’

আগামীকাল (১১ জুন) বিয়ের কথা থাকলেও আগেই শুভকাজটি সেরেছেন ক্ষমা। সব ধরনের আয়োজন ও প্রথা মেনেই বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হয়েছে। শুরুতে মন্দিরে বিয়ের পরিকল্পনা থাকলেও ঝামেলা এড়াতে সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করেন। ক্ষমা বিন্দুর ভাষায়, ‘যে কেউ বিতর্ক সৃষ্টি করে আমার বিয়ে বন্ধ করে দিতে পারে ভেবে আগেই বুধবার (৮ জুন) কাজটি সেরেছি। ঘরোয়াভাবে বিয়ের অনুষ্ঠান হয়েছে। আমার দশজন বন্ধু ও সহকর্মী এতে উপস্থিত ছিল। অন্য মেয়েদের মতো বিয়ের পর আমাকে নিজের ঘর ছাড়তে হয়নি।’

একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন ক্ষমা। বিয়ের আগে মেহেদি ও গায়ে হলুদের অনুষ্ঠানও হয়েছে। বিয়ের ব্যাপারে বন্ধুদের কাছ থেকে সম্পূর্ণ সহযোগিতা পেয়েছেন বলে জানান তিনি। মা-বাবাও তার এই সিদ্ধান্তে সমর্থন দিয়েছেন।

এর আগে ক্ষমা বিন্দু জানান, তিনি প্রচলিত ধ্যান-ধারণা ভেঙে ফেলতে চান। প্রকৃত ভালোবাসার সন্ধানে ব্যর্থদের উৎসাহ দিতে চান। তিনি বলেছিলেন, ‘জীবনের একটা পর্যায়ে এসে আমার মনে হলো আমার কোনো সুদর্শন রাজপুত্র দরকার নেই। কারণ আমি নিজেই নিজের রানী। আমি কনে সাজবো, রীতি পালন করবো, আমার বিয়েতে বন্ধুরা আসবে এবং এরপর বরের সঙ্গে না গিয়ে নিজের বাড়িতে ফিরবো।’

ক্ষমা বিন্দুর দাবি, তার এই বিয়ে ভারতের প্রথম নিজগামী বিয়ে। বিয়ের পর মধুচন্দ্রিমায় ভারতের পর্যটন নগরী গোয়ায় ঘুরতে যাবেন তিনি।

এম এস, ১০ জুন

Back to top button