ইউরোপ

সেভেরোদোনেতস্ক শহরে আটকা ১০ হাজারের বেশি মানুষ

কিয়েভ, ০৯ জুন – ইউক্রেনের দোনবাস অঞ্চলের সেভেরোদোনেতস্ক শহরে ১০ হাজারের বেশি মানুষ আটকা পড়ে আছেন বলে জানিয়েছেন শহরটির মেয়র অলেক্সান্ডার স্ট্রিউক। শহরটিতে রুশ বাহিনীর সঙ্গে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে ইউক্রেনীয়রা। তবে এর সিংহভাগ অঞ্চল রুশ বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে রয়েছে বলে জানা গেছে। বৃহস্পতিবার আল জাজিরা এ খবর জানায়।

সূত্র জানায়, ইউক্রেনীয় বাহিনী এখনও সেভেরোদোনেতস্ক শহরের শিল্প অঞ্চল এবং এর সংলগ্ন এলাকাগুলো নিজেদের নিয়ন্ত্রণে রাখতে সক্ষম হয়েছে। মেয়র অলেক্সান্ডার স্ট্রিউকের মতে, পরিস্থিতি ‘কঠিন, তবে পরিচালনাযোগ্য’। তিনি বলেন, রাশিয়ান সশস্ত্র বাহিনীর তীব্র গুলি চালানো সত্ত্বেও প্রতিরক্ষা লাইনগুলো ধরে রাখা সম্ভব হয়েছে। তবে সেভেরোদোনেতস্ক থেকে লোকজনকে সরিয়ে নেয়া এখন অসম্ভব হয়ে পড়েছে। তিনি বলেন যে, প্রায় ১০ হাজার বেসামরিক নাগরিক এই শহরে রয়ে গেছেন, যা এখন ইউক্রেনে রাশিয়ার আক্রমণের মূল কেন্দ্রস্থল।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে সামরিক আগ্রাসন শুরু করে রাশিয়া। শুরুর দিকে দেশটির রাজধানী কিয়েভসহ বিভিন্ন শহরে ব্যাপক গোলা ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালাতে থাকে রুশ বাহিনী। পরে কিয়েভের পাশ থেকে সেনাদের সরিয়ে নিয়ে রাশিয়া ইউক্রেনের দোনবাস অঞ্চলে তাদের সামরিক শক্তি ও হামলা বাড়াতে শুরু করে। ইতোমধ্যে দোনবাসের অধিকাংশ এলাকা ইউক্রেনীয় বাহিনীর হাতছাড়া হয়েছে।

চলমান যুদ্ধে দুই পক্ষেরই সেনাদের প্রাণহানির ঘটনা ঘটছে। তবে ইউক্রেন বলছে, রুশ হামলায় তাদের বহু বেসামরিক মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। জাতিসংঘ জানিয়েছে, যুদ্ধের কারণে ইতোমধ্যে ইউক্রেন ছেড়ে অন্য দেশে আশ্রয় নিয়েছেন অর্ধকোটিরও বেশি মানুষ; অভ্যন্তরীণভাবে বাস্তুচ্যুত হয়েছেন আরও লাখ লাখ মানুষ।

ইতোমধ্যে ইউক্রেনের বেশ কয়েকটি শহরের নিয়ন্ত্রণ রুশ বাহিনীর হাতে চলে গেছে। এরমধ্যে বন্দরনগরী মারিউপোল অন্যতম। এ শহরটির নিয়ন্ত্রণ ইউক্রেনের হাতছাড়া হওয়াকে যুদ্ধে দেশটির বড় ধরনের হার হিসেবে দেখা হচ্ছে। শহরটিতে রয়েছে বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ স্টিল কারখানা। মারিউপোল দখলের পর প্রায় এক হাজার ইউক্রেনীয় সেনাকে আটক করে রাশিয়া।

সূত্র : বাংলাদেশ জার্নাল
এম এস, ০৯ জুন

Back to top button