জাতীয়

১৩ বছরে নেতাকর্মীরা প্রধানমন্ত্রীর কাছে যেতে পারেননি

যশোর, ০৫ জুন – গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, ‘এই সরকার ঢাকা থেকে পরিচালিত হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তো থাকেন ঢাকায়, তার কাছে কেউ পৌঁছাতে পারছেন না। সাধারণ মানুষ তো দূরের কথা, গত ১৩ বছরে নিজ দলের নেতাকর্মীরাও তার কাছে পৌঁছাতে পারেননি। সে কারণে ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণের আওয়াজ তুলতে হবে।’

রোববার দুপুরে যশোর সদরের লেবুতলা ইউনিয়নের লেবুতলা গ্রামে ‘গণস্বাস্থ্য লেবুতলা হাসপাতাল’-এর জন্য নির্ধারিত স্থান পরিদর্শনে গিয়ে তিনি এসব কথা বলেন। ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণের প্রয়োজনীয়তার কথা উল্লেখ করে জ্যেষ্ঠ এ নাগরিক বলেন, ‘প্রদেশ হলেও মানুষ তার মুখ্যমন্ত্রীর কাছে দুঃখ-কষ্টের কথা বলতে পারে।’

মন্ত্রীদের বক্তব্যের সমালোচনা করে আগামী বাজেটের বিষয়ে ডা. জাফরুল্লাহ বলেন, ‘আমাদের বড় দেশ, তাই বাজেটের আকারও বড় হবে এটাই স্বাভাবিক। শুধু অপচয়টি কমাতে হবে।’

আগামী নির্বাচন প্রসঙ্গে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘পৃথিবীর খুব কম দেশেই ইভিএমে ভোট হয়। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে ইভিএম পদ্ধতি জনগণের বিশ্বাস ও আস্থার জায়গায় পৌঁছাতে পারেনি। সাধারণ মানুষের ধারণা, তারা যে প্রতীকে ভোট দেন না কেন তা নির্দিষ্ট একটি প্রতীকে গণনা হয়। তাই আগামী সংসদ নির্বাচন বিএনপিসহ সব দলের উপস্থিতি ছাড়া নির্বাচন করা সঠিক হবে না।’

তিনি আরও বলেন, ‘বাংলাদেশের দরিদ্রতার অন্যতম কারণ স্বাস্থ ব্যবস্থার নাজুক পরিস্থিতি। এখানে ওষুধদের দাম বৃদ্ধি, চিকিৎসকের অবহেলায় মানুষ চিকিৎসা না পাওয়া। স্বাস্থ্য ব্যবস্থার উন্নতি না হলে বাংলাদেশে দরিদ্রতা কমবে না।’

শুভাংশু শেখর খাঁ ও তার ভাই অরুণ খাঁর পক্ষে তাদের স্ত্রীরা টিনশেড ঘরসহ ৫৫ শতক জমি হাসপাতালের অনুকূলে আজ রেজিস্ট্রি করে দেন। গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের পক্ষে ট্রাস্টি ড. জাফরুল্লাহ চৌধুরী জমি গ্রহণ করেন। আগামী জুলাই মাসে লেবুতলায় হাসপাতাল নির্মাণের কাজ শুরু এবং সামনের বছরের জুন মাস নাগাদ আনুষ্ঠানিকভাবে হাসপাতালের কার্যক্রম শুরু হবে বলে জানানো হয়।

ডা. জাফরুল্লাহ পরে বিকালে বাঘারপাড়া উপজেলার কয়ারখালী গ্রামে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের আরেকটি হাসপাতালের নতুন জায়গা পরিদর্শনে যান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন নারীপক্ষের সদস্য শিরিন হক, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রধান নির্বাহী ডা. মনজুর কাদের প্রমুখ।

সূত্র: সমকাল
এম ইউ/০৫ জুন ২০২২

Back to top button