জাতীয়

‘তরুণরা মোটরসাইকেল চালায় উন্মাদ অবস্থায়’

ঢাকা, ০৪ জুন – সড়কে নতুন উপদ্রব মোটরসাইকেল বলে মন্তব্য করেছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। বলেছেন, ইদানীং তরুণ তুর্কিরা যেভাবে উন্মাদ অবস্থায় সড়কে মোটরসাইকেল চালায় তা দুর্ভাগ্যজনক।

তারা আইন মানে না, মাথায় হেলমেট পড়ে না। ঢাকা শহরে অবশ্য অনেক পিড়াপিড়ি করে পরিবর্তন করা গেছে। এই শহরে এখন ৯৫ শতাংশ চালক ও আরোহী হেলমেট ব্যবহার করে। এটার জন্য পুলিশ প্রশাসনের অবদান আছে।
শনিবার (৪ জুন) মহাখালীর ব্র্যাক সেন্টারে ব্র্যাক আয়োজিত নারী গাড়িচালকদের প্রশিক্ষণ পরবর্তী সার্টিফিকেট বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার বলেছেন, যারা নিয়ম মানবে না, তাদের তেল দেওয়া হবে না। সব পেট্রোল পাম্পকে বলে দিয়েছে। আমার মনে হয় বিষয়টি ঢাকার বাইরেও ছড়িয়ে দেওয়া উচিত।

তিনি বলেন, আমি রাজনৈতিক ব্যক্তি। আমি দেখি রাস্তায় ঝাঁকেঝাঁকে মোটরসাইকেল আরোহী ছুটাছুটি করে এবং চালকরা নিয়ম কানুনের তোয়াক্কা করে না। তারা হেলমেটও পড়ে না। এটি ঢাকা শহরের অধিকাংশ চালক মানে। কিন্তু রাজনীতির নতুন কর্মীরা আইনকে ডোন্ট কেয়ার করে, তারা মানতে চায় না। ঝাঁকেঝাঁকে তারা এটি করে। এ বিষয়ে অভিভাবকদেরও সতর্ক থাকা উচিত।

সবাইকে পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, আগামী ২৫ জুন প্রধানমন্ত্রী শেখ পদ্মা সেতু উদ্বোধন করবেন। আমরা প্রস্তুতি শুরু করেছি। আমি ওয়ার্ল্ড ব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টরকেও আমন্ত্রণ জানাচ্ছি। কে এটার পক্ষে বা বিপক্ষে এটা আপনারা দেখবেন না। রাজনৈতিক দলের যারা বিরোধিতা করছেন, তাদেরকেও চিঠি পাঠাব, আমন্ত্রণ জানাব। এটা প্রধানমন্ত্রী অলরেডি বলে দিয়েছেন।

ব্র্যাকের নির্বাহী পরিচালক আসিফ সালেহ এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন ব্র্যাকের প্রশাসন এবং সড়ক নিরাপত্তা কর্মসূচির পরিচালক আহমেদ নাজমুল হুসেইন, ব্র্যাক জেন্ডার কর্মসূচির পরিচালক নবনীতা চৌধুরী, বিশ্ব ব্যাংকের ঢাকা কান্ট্রি ডিরেক্টর মারসি মিয়াং টেমবন, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব কে. এম আলী আজম, বিআরটিএ’র চেয়ারম্যান নূর মোহাম্মদ মজুমদার, বিআরটিসির চেয়ারম্যান মো. তাজুল ইসলাম, নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনের চেয়ারম্যান নিায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন প্রমুখ।

সূত্র: বাংলানিউজ
এম ইউ/০৪ জুন ২০২২

Back to top button