উত্তর আমেরিকা

যুক্তরাষ্ট্রের অনেক জায়গা ‘মৃত্যুপুরী’ হয়ে ওঠেছে

ওয়াশিংটন, ০৩ জুন – ধারাবাহিকভাবে বেশ কিছু বন্দুক হামলার ঘটনা ঘটে যাওয়ার পর জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

ভাষণে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেন, বন্দুক হামলায় ‘হত্যাকাণ্ড’ ঠেকাতে যুক্তরাষ্ট্রের উচিত অ্যাসাল্ট-স্টাইল ওয়েপন এবং উচ্চ-ক্ষমতার ম্যাগাজিন নিষিদ্ধ করা। খবর বিবিসির।

সাম্প্রতিক বন্দুক হামলাগুলোর ঘটনার পর ভাষণে বাইডেন বলেন, অনেকগুলো জায়গা ‘মৃত্যুপুরী’ হয়ে ওঠেছে।

তিনি বলেন, যদি অস্ত্রের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়া না যায় তবে মালিকানা অর্জনের বয়স ১৮ থেকে ২১ করা উচিত।

তবে এ বিষয়ে রিপাবলিকান ও ডেমোক্র্যাটদের মধ্যে কংগ্রেসে অচলাবস্থা বিরাজ করছে। আর এর অর্থ হলো—এ ধরনের কোনো সিদ্ধান্তের অগ্রগতি অসম্ভব।

যে কোনো আইন পাস করতে গেলে এখন সিনেটে রিপাবলিকানদের সমর্থন প্রয়োজন। এ ধরনের আইনে তারা সমর্থন দেবেন এটি এক প্রকার অসম্ভব। কেননা তারা মনে করেন, অস্ত্রের মালিক হওয়া প্রত্যেক আমেরিকানের সাংবিধানিক অধিকার।

যদিও রিপাবলিকানদের কেউ কেউ কঠোরভাবে অস্ত্র নিয়ন্ত্রণের বিষয়ে সহানুভূতিশীল। কিন্তু এতে কাজ হবে বলে মনে হয় না। এ বিষয়ে এক বিশেষজ্ঞের মত হচ্ছে, তারা এ বিষয়ে সমর্থন করলেও নির্বাচনে পরিণতির বিষয়ে ভয় পেতে পারেন।

তবে অস্ত্র নিয়ন্ত্রণে লাল পতাকা আইন দুই পক্ষের মধ্যে সম্ভাব্য চুক্তির বিষয় হতে পারে। এ আইনে নিজের ও অন্যের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ বিবেচিত হলে কর্তৃপক্ষ মালিকের কাছ থেকে অস্ত্র নিয়ে নিতে পারে।

বাইডেন বলেন, এটি কারও অস্ত্র নিয়ে নেওয়ার বিষয় নয় বা কারও অধিকার ছিনিয়ে নেওয়ার বিষয়ও নয়। এটি হচ্ছে—সন্তানদের রক্ষা করার বিষয়।

এ ডেমোক্র্যাট নেতা বলেন, কেন ঈশ্বরের নামে একজন সাধারণ নাগরিক ৩০ রাউন্ড ম্যাগাজিন ধারণ করে এমন একটি অ্যাসাল্ট ওয়েপন কিনতে সক্ষম হবেন? যা থেকে মিনিটের মধ্যে শত শত গুলি ছোড়া যায়।

বাইডেন জানান, ১৯৯৪ সালে অ্যাস্টাল-স্টাইল অস্ত্রের ওপর নিষেধাজ্ঞার আইন পাসে তিনি সহায়তা করেছিলেন। এটি ১০ বছর পর বাতিল হয়ে যায়।

সাম্প্রতিক সময়ে যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকহামলার ঘটনা বেড়েই চলেছে। নিউ ইয়র্কের এক হামলায় কয়দিন আগে ১০ জন কৃষ্ণাঙ্গ নিহত হন। এর পর টেক্সাসে বন্দুক হামলায় নিহত হয় ১৯ শিশু ও দুই শিক্ষক। পরে ওকলাহোমায় হামলায় দুই চিকিৎসক, একজন রিসিপসনিস্ট ও এক রোগী নিহত হয়েছেন। সর্বশেষ বৃহস্পতিবার আইওয়া রাজ্যে এক বন্দুকধারীর হামলায় দুই নারী নিহত হয়েছেন। পরে ওই বন্দুকধারী আত্মহত্যা করেছেন। একইদিনে উইসকনসিনে আরও একটি বন্দুক হামলার ঘটনা ঘটে। সেখানে হামলায় শেষকৃত্যে অংশ নেওয়া দুই ব্যক্তি আহত হন।

সূত্র: সমকাল
এম ইউ/০৩ জুন ২০২২

Back to top button