সিলেট

সিলেটে মুরাদ খান কাণ্ডের তদন্তে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়

সিলেট, ৩০ মে – সিলেট জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে নাট্য নির্দেশনা কর্মশালায় বিতর্কিত মুরাদ খানের উপস্থিত নিয়ে তদন্ত কমিটি গঠন করেছে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়।

মঙ্গলবার সকাল ১০টায় সিলেট সার্কিট হাউসে সংশ্লিষ্টদের বক্তব্য নেবে উচ্চপর্যায়ের তদন্ত কমিটির সদস্যরা।

সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব সুব্রত ভৌমিকের নেতৃত্বে তদন্ত কমিটিতে রয়েছেন একই মন্ত্রণালয়ের উপসচিব আ স ম হাসান আল আমিন, উপসচিব বাবুল মিয়া ও সিলেটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. আনোয়ার সাদাত।

সোমবার রাতে তদন্ত কমিটির সদস্য ও সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অনুষ্ঠান শাখার উপসচিব বাবুল মিয়া এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

গত ২০ থেকে ২২ মে সিলেট জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে মুজিব শতবর্ষ উদযাপনের অংশ হিসেবে নাট্য নির্দেশনা কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের সহযোগিতায় কর্মশালার আয়োজন করে জেলা শিল্পকলা একাডেমি।

এ কর্মশালার সমাপনী অনুষ্ঠানের মঞ্চে উপস্থিত থেকে বক্তৃতা করেন আলজাজিরা টেলিভিশনে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ও সেনাবাহিনীকে নিয়ে প্রচারিত বিতর্কিত ডকুমেন্টারিতে ভয়েস দেওয়া মুরাদ খান। এ ছাড়া কর্মশালায় অংশগ্রহণকারীদের সঙ্গে আনুষ্ঠানিক ফটোসেশনসহ বিভিন্ন সময়ে অন্যান্য অতিথিদের সঙ্গে তার উপস্থিত নিয়ে সিলেটে সাংস্কৃতিক অঙ্গনে তোলপাড় সৃষ্টি হয়।

এ ঘটনায় জেলা কালচারাল অফিসার অসিত বরন দাশ গুপ্তকে কারণ দর্শানোর নোটিশ (শোকজ) দিয়েছে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি। রোববার শিল্পকলা একাডেমির সচিব মো. আছাদুজ্জামান সাক্ষরিত অফিস আদেশে বলা হয়, সিলেট বিভাগে প্রশিক্ষক হিসেবে আমন্ত্রিত হয়ে অংশগ্রহণ করেছেন দেশ বিরোধী ষড়যন্ত্র ও অপতৎপরতার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট জনৈক মুরাদ খান। একজন সরকারি কর্মচারী হিসেবে আপনি এ ধরনের দেশ বিরোধী ষড়যন্ত্রকারী ও অপতৎপরতার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকে নিয়ে কাজ করতে পারেন না। এ ধরনের কার্যকলাপ দায়িত্ব পালনে আপনার চরম অবহেলার সামিল। দায়িত্ব পালনে অবহেলার জন্য কেন বরখাস্তসহ প্রয়োজনীয় শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে না, পত্র প্রাপ্তির তিন কার্যদিবসের মধ্যে জানাতে বলা হয়েছে।

সিলেট জেলা কারচারাল অফিসার অসিত বরন দাশ গুপ্ত কর্মশালার সমাপনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করলেও মুরাদ খানকে চিনেন না বলে দাবি করেছিলেন। যদিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে মুরাদ খানের সঙ্গে কর্মশালা সংশ্লিষ্টদের পূর্বপরিচয়ের নানা ছবি ও ভিডিও দেখা যায়।

এদিকে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের পত্রে উল্লেখ করা হয়, বিভাগীয় নাট্য প্রশিক্ষণ কর্মশালায় সিলেট বিভাগের প্রশিক্ষক হিসেবে আমন্ত্রিত হয়ে উপস্থিত ছিলেন দেশ বিরোধী ষড়যন্ত্র ও অপতৎপরতার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট মুরাদ খান। এক দেশদ্রোহী, রাষ্ট্র বিরোধী ষড়যন্ত্রকারী শিল্পকলা মঞ্চে কী করে উপস্থিত ছিলেন, সে বিষয়টি তদন্তের জন্য কমিটি মঙ্গলবার সকাল ১০টায় সিলেট সার্কিট হাউসে তদন্তকার্য পরিচালনা করবেন। এ সময় নাট্য প্রশিক্ষণ কর্মশালায় প্রশিক্ষক হিসেবে আগত সব প্রশিক্ষক ও সমাপনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত অতিথিসহ যাবতীয় সাক্ষ্য প্রমাণ হাজির করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে অসিত বরন দাশ গুপ্তকে। এ ছাড়া বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের চেয়ারম্যান বা তার মনোনীত প্রতিনিধিকেও যথাসময়ে উপস্থিত হয়ে তদন্ত কমিটির কাছে বক্তব্য তুলে ধরার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

‘অল দ্য প্রাইম মিনিস্টারস মেন’ শিরোনামে আলজাজিরার ওই প্রতিবেদন গত বছরের ১ ফেব্রুয়ারি সম্প্রচার হলে তা নিয়ে ব্যাপক আলোচনা তৈরি হয়। তবে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় প্রতিবেদনটি ভিত্তিহীন বলে দাবি করে কঠোর ভাষায় এর প্রতিবাদ জানায়।

সূত্র : সমকাল
এম এস, ৩০ মে

Back to top button