জাতীয়

নরসিংদী স্টেশনে তরুণী হেনস্তার ঘটনায় জড়িত নারী গ্রেপ্তার

নরসিংদী, ৩০ মে – নরসিংদী রেলওয়ে স্টেশনে আলোচিত বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া তরুণীকে হেনস্তা, মারধর ও শ্লীলতাহানির ঘটনায় দায়ের করা মামলায় হেনস্তাকারী নারী শিলা আক্তার ওরফে সায়মাকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব। রোববার ভোররাতে তাকে নরসিংদীর শিবপুর থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

সোমবার বেলা ১২টায় গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের সহকারী পরিচালক এএসপি আ ন ম ইমরান খান।

তিনি বলেন, নরসিংদীতে বেড়াতে গিয়ে হেনস্তার শিকার হয় এক তরুণী ও তার দুই বন্ধু। নরসিংদী রেলওয়ে স্টেশনের ১ নং প্ল্যাটফর্মে এ হেনস্তার ঘটনা ঘটে। তরুণীর পরনে থাকা পোশাক নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করে ওই সময় স্টেশনে থাকা মধ্যবয়সী নারী শিলা ওরফে সায়মা। এঘটনায় মামলার ভিত্তিতে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

এর আগে গত ১৮ মে বুধবার ভোর সাড়ে পাঁচটার দিকে ঢাকা থেকে নরসিংদীতে বেড়াতে আসা ওই তরুণী ও দুই তরুণের সঙ্গে স্টেশনের ১ নম্বর প্ল্যাটফর্মে এই ঘটনা ঘটে।

এই ঘটনায় এক যুবককে আটক করে গোয়েন্দা পুলিশ। আটক ওই যুবকের নাম মো. ইসমাইল ইসলাম (৩৫)। তিনি নরসিংদী সদর উপজেলার নজরপুর ইউনিয়নের বুদিয়ামারা এলাকার মৃত বাদল মিয়ার ছেলে। সিসিটিভির ফুটেজ এবং মুঠোফোনে ধারণ করা ভিডিওর সূত্র ধরে তার পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার পর পুলিশ তাকে আটক করেছে। তবে ঘটনার সময় ইসমাইল ইসলামের ভূমিকা কি ছিল, সে সম্পর্কে পুলিশ কিছু জানায়নি।

নরসিংদী রেলওয়ে স্টেশন সূত্রে জানা যায়, ১৮ মে বুধবার ভোর সোয়া পাঁচটার দিকে নরসিংদী রেলওয়ে স্টেশনে আসেন ওই তরুণী ও দুই তরুণ। সকাল পৌনে ছয়টা পর্যন্ত স্টেশনটির ১ নম্বর প্ল্যাটফর্মে দাঁড়িয়ে তারা ঢাকাগামী ঢাকা মেইল ট্রেনের জন্য অপেক্ষা করছিলেন। এ সময় স্টেশনে মধ্যবয়সী এক নারী ওই তরুণীকে জিজ্ঞাসা করেন, ‘এটা কী পোশাক পরেছো তুমি’। তরুণীও পাল্টা প্রশ্ন করেন, ‘আপনার তাতে কী সমস্যা হচ্ছে?’ এ নিয়ে তাদের মধ্যে বাগবিতণ্ডা শুরু হয়। এর মধ্যে সেই বিতর্কে যোগ দেন স্টেশনে অবস্থানরত অন্য কয়েকজন ব্যক্তি।

ছড়িয়ে পড়া ভিডিওটিতে দেখা যায়, ওই তরুণীকে ঘিরে রেখেছে একদল ব্যক্তি। এর মধ্যেই এক নারী উত্তেজিত অবস্থায় তার সঙ্গে কথা বলছেন। বয়স্ক এক ব্যক্তিও তার পোশাক নিয়ে কথা বলছেন। একপর্যায়ে ওই তরুণী সেখান থেকে চলে যেতে উদ্যত হলে ওই নারী দৌড়ে তাকে ধরে ফেলেন। এ সময় অশ্লীল গালিগালাজ করতে করতে তার পোশাক ধরে টান দেন ওই নারী।

কোনোরকমে নিজেকে সামলে দৌড়ে স্টেশনমাস্টারের কক্ষে চলে যান তরুণী। এ সময় তার সঙ্গে থাকা দুই তরুণকেও মারধর করতে দেখা যায় ঘটনাস্থলে থাকা কয়েকজন ব্যক্তিকে। পরে তারাও দৌড়ে স্টেশনমাস্টারের কক্ষে চলে যান। পরে ভুক্তভোগী তরুণী জাতীয় জরুরি সেবা নম্বর ৯৯৯-এ ফোন দিলে নরসিংদী মডেল থানার পুলিশ রেলস্টেশনে এসে তাদের ঢাকার ট্রেনে উঠিয়ে দেয়।

সূত্র : বাংলাদেশ জার্নাল
এম এস, ৩০ মে

Back to top button