দক্ষিণ এশিয়া

পাকিস্তানে নির্বাচনের সময় ঘোষণা, রাজনৈতিক কর্মসূচীতে নিষেধাজ্ঞা

ইসলামাবাদ, ৩০ মে – পাকিস্তানের আগামী জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে ২০২৩ সালের আগস্টে। রোববার (২৯ মে) রাজধানী ইসলামাবাদে এক সংবাদ সম্মেলনে পাকিস্তানের পরবর্তী নির্বাচনের এই সময় ঘোষণা করেন দেশটির তথ্যমন্ত্রী মরিয়ম আওরঙ্গজেব।

ভারতীয় গণমাধ্যম এএনআইয়ের এক প্রতিবেদনে জানা যায়, রোববার রাজধানী ইসলামাবাদে পাকিস্তানের আইন মন্ত্রণালয়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাদের মধ্যে এক বৈঠকে এসব সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

এছাড়াও আইন করে পূর্ব অনুমতি ছাড়া রাজধানী ইসলাবাদে যেকোনো রাজনৈতিক দলের মিছিল-সমাবেশও নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

এদিকে পরবর্তী নির্বাচনের আগ পর্যন্ত দেশটির সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বর্তমান বিরোধী নেতা ইমরান খানের সঙ্গে কোনো প্রকারের সংলাপ বা বোঝাপড়ায় যাবে না বলেও জানিয়েছে শাহবাজ খানের নেতৃত্বাধীন বর্তমান ক্ষমতাসীন জোট সরকার।

রোববারের সংবাদ সম্মেলনে ইমরান খানের উদ্দেশ্যে মরিয়ম আওরঙ্গজেব বলেন, আপনার সঙ্গে আমরা কোনো ধরণের আলোচনায় যেতে চাই না, যেহেতু আপনি নির্বাচনের সময় জানতে চেয়েছিলেন, তাই বলে রাখছি, মনোযোগ দিয়ে শুনুন এবং লিখে রাখুন, দেশে আগামী পার্লামেন্টারি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে ২০২৩ সালের আগস্ট মাসে।

ইমরান খানের সঙ্গে আলোচনায় না যাওয়ার কারণ ব্যাখ্যা করে তিনি বলেন, যখন আমরা আপনার সঙ্গে কোভিড মহামারি, দেশের অর্থনীতি, জঙ্গি তৎপরতা ও জাতীয় নিরাপত্তাসহ বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলতে চেয়েছি, তখন আপনি বলেছেন, আমাদেরকে কোনো এনআরও (ন্যাশনাল রিকনসিলিয়েশন অর্ডিন্যান্স) দেয়া হবে না। এখন আমরা বলছি, আপনাকেও আমরা কোনো এনআরও দেবো না।

এর আগে গত ২৬ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানের রাজনৈতিক দল তেহরিক-ই ইনসাফ পাকিস্তানের (পিটিআই) চেয়ারম্যান ও দেশটির সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ইসলামাবাদে এক দলীয় সমাবেশে দেশে আগামী নির্বাচনের তারিখ ঘোষণার জন্য ৬ দিনের আল্টিমেটাম দিয়েছিলেন ।

সেসময় বর্তমান জোট সরকারের ওপর হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে তিনি বলেন, পরবর্তী নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা না করা হলে ৬ দিন পর সমগ্র জাতিকে নিয়ে রাজধানীতে প্রবেশ করবেন তিনি।

সূত্র : বাংলাদেশ জার্নাল
এম এস, ৩০ মে

Back to top button