জাতীয়

নেদারল্যান্ডে প্রশিক্ষণে গিয়ে ‘নিখোঁজ’ ২ পুলিশ কনস্টেবল

চট্টগ্রাম, ২৭ মে – নেদারল্যান্ডে প্রশিক্ষণে যাওয়ার পর খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) ২ কনস্টেবলের। তবে তারা বিদেশে পালিয়ে গেছেন, নাকি কোনো ধরনের দুর্ঘটনার সম্মুখীন হয়েছেন সে ব্যাপারেও নিশ্চিত হতে পারছে না সিএমপি পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বলেছেন, ১৫ দিনের আনুষ্ঠানিক এক প্রশিক্ষণে অংশ নিতে আরও ৬ পুলিশ সদস্যের একটি দলের সঙ্গে বিদেশে গিয়েছিলেন ওই দুই কনস্টেবল এবং পরে প্রশিক্ষণ শেষ করে ফিরে আসার আগের দিন গত ২২ মে থেকে তারা ‘নিখোঁজ’ হন। তবে তারা নিশ্চিত নন ওই দুই পুলিশ কনস্টেবল প্রশিক্ষণ শেষ করে বিদেশে পালিয়ে গেছেন, নাকি তারা কোনো ধরনের দুর্ঘটনার সম্মুখীন হয়েছেন। কারণ, তাদের অবস্থান এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

নিখোঁজ পুলিশ কনস্টেবলরা হলেন- রাসেল চন্দ্র দে ও শাহ আলম। রাসেলের বাড়ি কক্সবাজারে আর শাহ আলমের বাড়ি কুমিল্লায়। তারা সিএমপির দামপাড়া পুলিশ লাইনস ও মনসুরাবাদ পুলিশ লাইনসের ব্যারাকে থাকতেন।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে সিএমপি কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীর বলেন, সিএমপির ৮ সদস্যের দলটি গত ৯ মে বাংলাদেশ থেকে নেদারল্যান্ডে যায় এবং গত ২৪ মে ৬ জন বাংলাদেশে ফিরে আসেন। কিন্তু ফিরতি ফ্লাইটের ঠিক আগের দিন ওই দুই পুলিশ কনস্টেবল নিখোঁজ হন। আমরা জানি না আসলে কী হয়েছে। তাদের পাসপোর্টগুলো তাদের কাছেই আছে। তারা বিদেশ থেকে পালিয়েছেন কি না, তা আমরা নিশ্চিতভাবে বলতে পারছি না। কারণ, পরিবারের সদস্যদের জন্য কেনাকাটাসহ তাদের সব জিনিসপত্র হোটেলেই ছিল। আমরা ইতোমধ্যেই দেশটির দূতাবাস ও পুলিশ সদর দপ্তরকে ঘটনাটি জানিয়েছি।

সিএমপি সূত্র জানায়, বায়েজিদ বোস্তামী জোনের সহকারী কমিশনার (এসি) মোহাম্মদ বেলায়াত হোসেনের নেতৃত্বে ৮ পুলিশ সদস্য ‘কুকুরের ব্যবস্থাপনা, পরিচালনা ও প্রশিক্ষণ’ শীর্ষক ১৫ দিনব্যাপী প্রশিক্ষণে অংশ নিতে নেদারল্যান্ডে যায়। ঢাকার মেসার্স রিফা এন্টারপ্রাইজ স্থানীয় এজেন্ট হিসেবে এই প্রশিক্ষণ লিয়াজো করেছে।

নগর পুলিশের কাউন্টার টেররিজম (সিটি) বিভাগের অধীনে একটি পূর্ণাঙ্গ ডগ স্কোয়াড (কে-৯) ইউনিট খোলা হচ্ছে। আর সেই ইউনিটের কার্যক্রম হিসেবেই দলটি প্রশিক্ষণে গিয়েছিল।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সিএমপি সদর দপ্তরের একজন উপপুলিশ কমিশনার (ডিসি) বলেন, দুই কনস্টেবল সম্পূর্ণ প্রশিক্ষণে অংশ নেন। ফিরতি ফ্লাইটের আগের দিন দুই জনেই ঘুরতে যাওয়ার কথা বলে বের হয়। পরে তারা ফিরে আসেননি। অপেক্ষার পর, দলের অন্য সদস্যরা ২৩ মে বিকেলে ফ্লাইটে ওঠেন এবং ২৪ মে তারা বাংলাদেশে ফেরেন।

তিনি বলেন, আমরা তাদের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গেও যোগাযোগ করেছি। কিন্তু, তারা আমাদের বলেছে যে তারা কিছুই জানেন না। তবে, এ বিষয়ে টিম লিডার এসি বেলায়েত হোসেন কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

সূত্র: আরটিভি
এম ইউ/২৭ মে ২০২২

Back to top button