জাতীয়

দুই শতাধিক বিলাসবহুল ও বিদেশি পণ্যে শুল্ক আরোপ

ঢাকা, ২৪ মে – বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের চাপ ও আমদানি প্রবণতা কমাতে ও দেশীয় পণ্যের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে শতাধিক বিলাসবহুল ও বিদেশি পণ্যের ওপর নিয়ন্ত্রণমূলক শুল্ক (আরডি) আরোপ করা হয়েছে।

সোমবার (২৩ মে) জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) চেয়ারম্যান আবু হেনা রহমাতুল মুনিম স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপন সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে। প্রজ্ঞাপণে নিয়ন্ত্রণমূলক শুল্ক ৫ শতাংশ থেকে ২০ শতাংশ পর্যন্ত আরোপ করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৪ মে) এনবিআরের জনসংযোগ দপ্তর প্রজ্ঞাপনের বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

জানা গেছে, ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধে আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি, ভোগ্যপণ্য, মূলধনি যন্ত্র, কাঁচামাল ও জাহাজ ভাড়া বেড়েছে। এ কারণে চলতি অর্থবছরের প্রথম ৯ মাসে (জুলাই-মার্চ) আমদানি খরচ বেড়েছে প্রায় ৪৪ শতাংশ। আমদানি খরচ যে হারে বেড়েছে, রপ্তানি সে হারে বাড়েনি। প্রবাসী আয় কমছে। আয় দিয়ে ব্যয় মিটছে না। প্রতি মাসে ঘাটতি হচ্ছে ১০০ কোটি টাকা বা ১ বিলিয়ন ডলার। এর সঙ্গে আছে বিদেশি ঋণের কিস্তি পরিশোধ। এসব সংকটে বাড়ছে ডলারের দাম, আর চাহিদা মেটাতে গিয়ে কমছে রিজার্ভ। এমন অবস্থা সামাল দিতে এই পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার।

জানা গেছে, এসব পণ্যের আমদানি নিরুৎসাহিত করতে এমন পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। বাড়তি শুল্কহার কার্যকর হলে দেশীয় বাজারে পণ্যগুলোর দাম বেড়ে যাবে।

এনবিআর বলছে, সাময়িকভাবে এ শুল্ক বাড়ানো হচ্ছে। যেদিন থেকে প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে সেদিন থেকে আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত তা বলবৎ থাকবে। তবে সরকার ইচ্ছা করলে বাস্তবতার আলোকে মেয়াদ আরও বাড়াতে পারে।

এ অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে রিজার্ভের ওপর চাপ কমাতে নানামুখী উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। তারই অংশ হিসেবে রিজার্ভের ওপর চাপ কমাতে বিলাসবহুল ও অত্যাবশ্যকীয় নয় এমন পণ্য আমদানি নিরুৎসাহিত করতে পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার।

পণ্যগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে- আমদানি করা বিস্কুট, চকলেট, বিভিন্ন জাতের ফল, জুস, বিদেশি তৈরি পোশাক, ফার্নিচারের জন্য বাঁশ, পার্টস, রাটান, বিভিন্ন উপাদান, প্লাস্টিকের ফার্নিচার, কাঠের ফার্নিচার, অফিস-রান্নাঘর-শোবারঘরে ব্যবহৃত কাঠের ফার্নিচার, বিভিন্ন মেটাল ফার্নিচার, পারফিউম, বিউটি ও মেক আপ প্রিপারেশন, দাঁতের ফ্লস, দাঁতের পাউডার, প্রি-শেভ ও আফটার শেভ কসমেটিকস, স্যান্ডস্টোন, কাসাভা স্ট্রেচ, বিভিন্ন ধরনের টক জাতীয় ফল, ভুট্টা গুঁড়া, ক্যানে সংরক্ষিত ফল, বিভিন্ন ধরনের বাদাম।

আপেল, আম, কাঠাল, পেপে, আঙুর, আনারস, চেরি, এপ্রিকোট, পিয়ার্স, পেয়ারা, অ্যাভোকাডো, ডুমুর-এসব ফল ড্রাইড ও ক্যান জাতীয় ও এই করের অন্তর্ভুক্ত। বিভিন্ন ধরনের আর্টিফিশিয়াল, ব্লিচড ও বিদেশি ফুল ইত্যাদি পণ্যে ২০ শতাংশ নিয়ন্ত্রণমূলক শুল্ক আরোপ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে রাজস্ব বোর্ডের জনসংযোগ কর্মকর্তা সৈয়দ এ মুমেন বলেন, কোভিড-১৯ পরবর্তী অর্থনীতি পুনর্গঠন, বিলাসবহুল পণ্যের ওপর নির্ভরশীলতা ও আমদানি হ্রাস এবং বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয়ের লক্ষ্যে বিদেশি ফল, বিদেশি ফুল, ফার্নিচার ও কসমেটিকস জাতীয় প্রায় ১৩৫টি এইচ এস কোড ভুক্ত পণ্যের ওপর আমদানি পর্যায়ে বিদ্যমান ০ শতাংশ ও ৩ শতাংশের পরিবর্তে ২০ শতাংশ নিয়ন্ত্রণমূলক শুল্ক আরোপ করা হয়েছে। যা গতকাল সোমবার (২৩ মে) কার্যকর হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশ ফুল ও ফল চাষে যথেষ্ট সমৃদ্ধশালী। এই নিয়ন্ত্রণমূলক শুল্ক আরোপের ফলে দেশীয় ফুল ও ফল চাষিরা ন্যায্যমূল্য পাবেন এবং ফুল ও ফল চাষে উৎসাহিত হবে। এতে করে দেশের প্রান্তিক চাষিরা লাভবান হবেন এবং আমদানি নির্ভরতা কমবে। বর্তমানে দেশে উৎপাদিত ফার্নিচার ও কসমেটিকস যথেষ্ট মানসম্পন্ন এবং দেশের প্রয়োজনীয় চাহিদা মেটাতে
সক্ষম।

তিনি আরও বলেন, ফার্নিচার ও কসমেটিকসে নিয়ন্ত্রণমূলক শুল্ক আরোপের ফলে বিদেশি পণ্যের সঙ্গে প্রতিযোগিতার মাধ্যমে দেশীয় শিল্প বিকশিত হবে। এছাড়াও এ ধরনের পণ্যের অপ্রয়োজনীয় আমদানি নিরুৎসাহিতকরণের মাধ্যমে মূল্যবান বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় এবং সরকারের রাজস্ব আহরণে তা ইতিবাচক ভূমিকা পালন করবে।

সূত্র: জাগো নিউজ
এম ইউ/২৪ মে ২০২২

Back to top button