ইউরোপ

মারিউপোলে আত্মসমর্পণ করা সেনাদের গুলি করে হত্যার দাবি রুশ সাংসদের

মস্কো, ১৮ মে – গত ২৪ ফেব্রুয়ারি থেকে সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের দেশ ইউক্রেনে ‘বিশেষ সামরিক অভিযান’ চালাচ্ছে রাশিয়া। এরই মধ্যে ইউক্রেনে বেশ কয়েকটি শহর দখলে নিয়েছে রুশ বাহিনী। সবশেষ দেশটির গুরুত্বপূর্ণ বন্দরনগরী মারিউপোল পূর্ণ দখলে নেয় রাশিয়া। সেখানকার আজভস্টাল নামে একটি ইস্পাত কারখানায় আশ্রয় নেওয়া আড়াই শতাধিক ইউক্রেনীয় সেনার আত্মসমর্পণের মাধ্যমে চূড়ান্তভাবে নগরিটির নিয়ন্ত্রণ চলে যায় রুশ বাহিনীর হাতে।

এদিকে, আত্মসমর্পণকারী ইউক্রেনের এসব সেনাকে গুলি করে হত্যা করার দাবি জানিয়েছেন রাশিয়ার একজন সংসদ সদস্য। এসব সেনার বেশিরভাগ উগ্র জাতীয়তাবাদী ‘আজভ’ মিলিশিয়া যাদেরকে রাশিয়া ‘নাৎসিবাদী’ হিসেবে উল্লেখ করেছে। মস্কো বলছে, ইউক্রেনে রাশিয়ার চলমান সামরিক অভিযানের অন্যতম প্রধান লক্ষ্য দেশটিকে ‘নাৎসিমুক্ত’ করা।

তাদেরকে আত্মসমর্পণ করে সাধারণ ক্ষমার সুবিধা নেওয়ার জন্য রাশিয়া একাধিকবার সুযোগ দিলেও সেসব সময়সীমা বহু আগে পার হয়ে যাওয়ার পর সোমবার রসদ ফুরিয়ে যাওয়ার কারণে তারা আত্মসমর্পণ করে। আর এর ফলে মারিউপোল শহর পুরোপুরি রাশিয়ার নিয়ন্ত্রণে চলে আসে।
মারিউপোলের আজভস্টাল ইস্পাত কারখানায় অবস্থান গ্রহণকারী এসব উগ্র জাতীয়তাবাদী মিলিশিয়ারা সম্প্রতি স্বীকার করেছে তাদের সহযোগী হতে অস্বীকার করার এবং তাদের সিক্রেট কোড না জানার কারণে তারা মারিউপোল শহরের অনেক বেসামরিক নাগরিককে হত্যা করেছে।

রুশ সংসদ সদস্য লিওনিদ স্লাতস্কি মঙ্গলবার মস্কোয় বলেন, আত্মসমর্পণকারী এসব নব্য নাৎসিবাদীকে গুলি করে হত্যা করা উচিত। তিনি বলেন, রাশিয়া যদিও মৃত্যুদণ্ডের আইন সাময়িকভাবে স্থগিত রেখেছে কিন্তু আজভ মিলিশিয়াদের হত্যা করার জন্য মৃত্যুদণ্ড আইনটি পুনর্বহাল করা উচিত। স্লাতস্কি বলেন, ইউক্রেনের সেনারা মানবতার বিরুদ্ধে যে ভয়াবহ অপরাধ করেছে এবং আমাদের যুদ্ধবন্দিদের সঙ্গে যে পাশবিক আচরণ করেছে তাতে তাদেরকে বাঁচিয়ে রাখার কোনও অর্থ হয় না।

সূত্র: বিডি প্রতিদিন
এম ইউ/১৮ মে ২০২২

Back to top button