সিলেট

পানি বাড়তে পারে, সিলেটে বন্যার আরও অবনতির আশঙ্কা

সিলেট, ১৭ মে – দেশের মধ্যে ভারি বৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা ঢলে দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের (সিলেট) দুই নদীর পানি পাঁচটি পয়েন্টে বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে সিলেটের বিভিন্ন অঞ্চলে বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। ওই অঞ্চলের নদীর পানি আরও বেড়ে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হতে পারে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের (বাপাউবো) বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র।

মঙ্গলবার (১৭ মে) দুপুরে নদ-নদীর পরিস্থিতি ও পূর্বাভাস প্রতিবেদেনে বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র জানিয়েছে, দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের আপার মেঘনা অববাহিকার প্রধান নদ-নদীগুলোর পানি বাড়ছে। সমতল বৃদ্ধি পাচ্ছে, যা আগামী ৪৮ ঘণ্টা পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে এবং উত্তর-পূর্বাঞ্চল ও পূর্বাঞ্চলের প্রধান নদীগুলোর (সুরমা, কুশিয়ারা, ভোগাই-কংস, ধনু-বাউলাই, মনু, খোয়াই, মুহুরী) পানি সমতলে কয়েকটি পয়েন্টে সময়বিশেষে দ্রুত বাড়তে পারে।

আগামী ২৪ ঘণ্টায় দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে সিলেট ও সুনামগঞ্জ জেলার নিম্নাঞ্চলের কয়েকটি স্থানে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হতে পারে বলেও পূর্বাভাসে জানানো হয়েছে।

সোমবার দুপুর থেকে সুরমা নদীর তীর উপচে সিলেট নগরের বিভিন্ন এলাকায় পানি ঢুকতে শুরু করে । এতে তলিয়ে যায় নগরের সর্ববৃহৎ পাইকারি বাজার কালিঘাট, তালতলা, কাজিরবাজার, বেতবাজার, শাহজালাল উপশহর, সোবহানিঘাট, ছড়ারপাড়, শেখঘাট, ঘাসিটুলা, মাছিমপুর, তেরতন, হবিনন্দী, সাদিপুরসহ বিভিন্ন এলাকা। এসব এলাকার বাসাবাড়ি, দোকানে পানি ঢুকেছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড জানিয়েছে, মঙ্গলবার সুরমা নদীর পানি কানাইঘাটে (সিলেট) বিপৎসীমার ১৪৩ সেন্টিমিটার, সিলেটে ২৯ সেন্টিমিটার ও সুনামগঞ্জে ৩৫ মিলিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

এছাড়া কুশিয়ারার পানি অমলশীদে (সিলেট) বিপৎসীমার ১৩৮ সেন্টিমিটার ও শেওলা (সিলেট) স্টেশনে ৪৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

বাপাউবোর বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আরিফুজ্জামান ভূঁইয়া বলেন, ব্রহ্মপুত্র-যমুনা ও গঙ্গা-পদ্মা নদ-নদীর পানি বাড়ছে, যা আগামী ৭২ ঘণ্টা পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে।

আবহাওয়া সংস্থাগুলোর গাণিতিক মডেলভিত্তিক পূর্বাভাস তুলে ধরে তিনি বলেন, আগামী ৪৮ ঘণ্টায় দেশের উত্তরাঞ্চল, উত্তর-পূর্বাঞ্চল, পূর্বাঞ্চল এবং তৎসংলগ্ন ভারতের আসাম, মেঘালয়, হিমালয় পাদদেশীয় পশ্চিমবঙ্গ, ত্রিপুরা ও মিজোরাম প্রদেশের কতিপয় স্থানে ভারি বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।

নির্বাহী প্রকৌশলী আরও বলেন, দেশের উত্তরাঞ্চলের ধরলা, তিস্তা ও দুধকুমার নদীর পানি সমতলে বৃদ্ধি পাচ্ছে, যা আগামী ২৪ ঘণ্টা পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে এবং সময়বিশেষে দ্রুত বৃদ্ধি পেতে পারে।

সূত্র: জাগো নিউজ
এম ইউ/১৭ মে ২০২২

Back to top button