দক্ষিণ এশিয়া

‘কোনো ব্যক্তি বা পরিবারকে রক্ষা করা আমার লক্ষ্য নয়’

কলম্বো, ১৬ মে – শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহে জানিয়েছেন, কোনো ব্যক্তি, পরিবার বা রাজনৈতিক দলকে বাঁচাতে সংকটকালে দেশের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব তিনি নেননি। তিনি দেশের তরুণ প্রজন্মের ভবিষ্যৎ রক্ষা করতে এই দায়িত্ব নিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব নিয়ে বিপজ্জনক চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করেছেন দাবি করে রনিল বিক্রমাসিংহে বলেন, জাতির জন্য আমি এই চ্যালেঞ্জ নিয়েছি। কোনো ব্যক্তি, পরিবার বা দলকে বাঁচানো আমার লক্ষ্য এবং এই আত্মনিবেদন নয়। আমার উদ্দেশ্য এই দেশের সব মানুষ এবং আমাদের তরুণ প্রজন্মের ভবিষ্যৎ রক্ষা করা। সোমবার শ্রীলঙ্কার সংবাদমাধ্যম দ্য ডেইল মিরর এই খবর দিয়েছে।

সোমবার এক বিশেষ বিবৃতিতে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, প্রয়োজনে সানন্দে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে হলেও এই দায়িত্ব পালন করবো এবং যে চ্যালেঞ্জে পড়েছি তা কাটিয়ে উঠবো। আর এই কাজের জন্য আমি আপনাদের সহযোগিতা কামনা করছি। দেশের জন্য আমি আমার দায়িত্ব পালন করবো, আপনাদের কাছে এই আমার প্রতিজ্ঞা।

বিবৃতিতে তিনি জানান, শ্রীলঙ্কার সব নাগরিকের জীবনের জন্য আগামী কয়েকমাস সবচেয়ে কঠিন সময় হবে। এই সময়ে কিছু ত্যাগ স্বীকার এবং চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় অবশ্যই প্রস্তুত থাকতে হবে।

রনিল বিক্রমাসিংহে দাবি করেন, সত্য লুকানো এবং জনগণের কাছে মিথ্যা বলার কোনো ইচ্ছা তার নেই। যদিও বিষয়গুলো সুখকর নয় এবং খুবই আতঙ্কজনক। তবে এটাই বাস্তব পরিস্থিতি। একটি সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য দেশবাসীর ভবিষ্যৎ অতীতের তুলনায় আরও বেশি কঠিন হবে।

প্রসঙ্গত, চরম অর্থনেতি সঙ্কটকে কেন্দ্র করে গণবিক্ষোভের মুখে গত ৯ মেৎ প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে পদত্যাগ করেন মাহিন্দা রাজাপাকসে। এর ফলে প্রধানমন্ত্রীর পদটি শূন্য হয়ে যায় এবং মন্ত্রিসভা ভেঙে যায়। পরে দেশটির প্রেসিডেন্ট বিরোধী দলীয় নেতা সাজিথ প্রেমাদাসাকে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব নিতে বলেন। কিন্তু তিনি শর্ত দেন, প্রেসিডেন্ট পদত্যাগ করলেই কেবল তিনি এই দায়িত্ব নেবেন। পরে গত ১২ মে রনিল বিক্রমাসিংহে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেন।

সূত্র: বিডি প্রতিদিন
এম ইউ/১৬ মে ২০২২

Back to top button