এশিয়া

করোনার জন্য আমলা ও চিকিৎসকদের দুষলেন কিম

পিয়ংইয়ং, ১৪ মে – উত্তর কোরিয়ার সর্বোচ্চ নেতা কিম জং উন বলেছেন, কভিড-১৯ রোগের দ্রুত বিস্তার তাঁর দেশের জন্য ‘বড় বিপর্যয়’। দেশটির রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা কোরিয়ান সেন্ট্রাল নিউজ এজেন্সি (কেসিএনএ) এ খবর দিয়েছে।

কেসিএনএ-কে উদ্ধৃত করে শনিবার বিশ্বের বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে উত্তর কোরিয়ায় করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার খবর প্রকাশ করা হয়। উত্তর কোরিয়া বৃহস্পতিবার প্রথম সরকারিভাবে সেদেশে কভিড সংক্রমণের কথা স্বীকার করে।

কেসিএনএ জানায়, কিম জং উন বলেছেন, ‘দেশ প্রতিষ্ঠার পর থেকে সবচেয়ে মারাত্মক মহামারির বিস্তার হলো। ’ করোনা ভাইরাসের বিস্তারের জন্য তিনি আমলাতন্ত্র ও চিকিৎসাখাতের অদক্ষতাকে দায়ী করেন।

কেসিএনএ জানায়, উত্তর কোরিয়ায় শুধু শুক্রবারই ১ লাখ ৭৪ হাজার ৪৪০ জনের বেশি মানুষের জ্বর ছিল। শুক্রবার পর্যন্ত ৮১ হাজার ৪৩০ জন পুরোপুরি সুস্থ হয়েছে। আর ২১ জনের মৃত্যু হয়েছে।

প্রথম করোনার কথা নিশ্চিত করার পর রাজধানী পিয়ংইয়ংয়ে উচ্চ সংক্রামক ধরন ওমিক্রন শনাক্ত হওয়ার কথা জানায় উত্তর কোরিয়া।

জানা গেছে, এপ্রিলের শেষভাগ থেকে ১৩ মে পর্যন্ত ৫ লাখ ২৪ হাজার ৪৪০ জনের বেশি মানুষ জ্বরে আক্রান্ত হয়। মোট ২৭ জনের মৃত্যু হয়। শুক্রবার জ্বরে আক্রান্ত হয়ে ৬ জনের মৃত্যুর খবর জানায় উত্তর কোরিয়া। তবে এর মধ্যে মাত্র এক জনের করোনা সংক্রমণের বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়।

গত দুই বছরের বেশি সময়ে বিশ্বের প্রায় সব দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণের খবর পাওয়া গেলেও নিভৃতিকামী কমিউনিস্ট দেশ উত্তর কোরিয়ার সরকার এতদিন কোনো আক্রান্তের কথা জানায়নি। টিকা না দিয়ে জনগণকে ‘সর্বোচ্চ জরুরি কোয়ারেন্টিন ব্যবস্থায়’ রাখা সত্ত্বেও দেশটিতে এখন প্রতিদিন হাজার হাজার রোগীর খবর পাওয়া যাচ্ছে।

পশ্চিমা গণমাধ্যমগুলোর খবরে বলা হয়েছে, আড়াই কোটি জনসংখ্যার দেশটিতে টিকাদান কর্মসূচির অভাব ও দুর্বল স্বাস্থ্য অবকাঠামোর কারণে পরিস্থিতি ভয়াবহ হতে পারে।

সূত্র: কালের কণ্ঠ
এম ইউ/১৪ মে ২০২২

 

Back to top button