জাতীয়

মাদক সেবন দূরের কথা ধূমপানও করি না: টিটিই শফিকুল

পাবনা, ০৮ মে – টিটিই শফিকুল ইসলাম মাদকাসক্ত বলে মন্তব্য করেন পাকশী রেল বিভাগের ডিসিও (বিভাগীয় বাণিজ্যিক কর্মকর্তা) নাসির উদ্দিন। তার এই মন্তব্যের জবাবে শফিকুল বলেছেন, আমি মাদক সেবন তো দূরের কথা বিড়ি-সিগারেটও খাই না। এমনকি চা স্টলে চা-ও খাই না।

রোববার (৮ মে) সকালে তদন্ত কমিটির ডাকে পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে কার্যালয়ে আসেন টিটিই শফিকুল। দুপুরে রেলওয়ে চত্বরে গণমাধ্যমকর্মীদের এক প্রশ্নের জবাবে এমন কথা জানান তিনি।

পাকশী রেলের টিটিই শফিকুল ইসলাম হীনমন্যতায় ভোগেন বলে ডিসিও নাসির উদ্দিন জানিয়েছেন। এর জবাবে তিনি বলেন, এটি ঠিক নয়। চাকরিতে তার সন্তুষ্টি আছে। তার প্রমাণ হিসেবে বলেন, চাকরির প্রথম দিনই ৭৮ হাজার ৪৩৬ টাকা রাজস্ব জমা দিতে পেরেছিলাম। আমার সহকর্মীরা জানেন, আল্লাহপাকও জানেন- আমি মানসিক বিকারগ্রস্ত কি না!

শফিকুল বলেন, চাকরিজীবনে এটি আমার প্রথম সাময়িক বরখাস্তের ঘটনা। আমি যদি মাদকাসক্ত হতাম তাহলে এতদিন এভাবে সুনামের সঙ্গে চাকরি করতে পারতাম না।

তিনি মন্ত্রীর তিন আত্মীয়কে লাথি দিয়ে বের করে দিতে চেয়েছিলেন বলে তারা অভিযোগ করেছেন এমন প্রশ্নে টিটিই শফিকুল জানান, এমন কথা তিনি বলেননি। তিনি ভদ্র ভাষায় কথা বলেছেন। তারাও ভদ্র ভাষায় কথা বলেছেন। তিনি জানান, ওই তিন যাত্রী মন্ত্রীর লোক বলে পরিচয় দেননি। তবে সহকারী বাণিজ্যিক কর্মকর্তা এসিও (উত্তর) নুরুল আলম তাকে জানিয়েছিলেন, ওই যাত্রীরা মন্ত্রীর আত্মীয়। নুরুল আলমের সঙ্গে পরামর্শ করেই তিনি তাদের টিকিট কাটতে বলেছিলেন।

তিনি জানান, ট্রেন ঢাকায় পৌঁছানোর সময় ছিল সকাল ৭টা ১৫ মিনিট। কিন্তু ট্রেন গন্তব্যে পৌঁছানোর আগে রাতেই তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। তখন তিনি নুরুল আলমের কাছে জানতে চান তাকে কী অপরাধে বরখাস্ত করা হলো? তখন নুরুল আলম তাকে জানিয়েছিলেন, তাদের কারণ জানানো হয়নি, কেবল সাময়িক বরখাস্তের বিষয়টিই তারা জানতে পেরেছেন।

পাকশী রেলের টিটিই শফিকুল ইসলাম জানান, তার সাময়িক বরখাস্তের আদেশ প্রত্যাহার করা হয়েছে। অফিসিয়াল চিঠি পেলেই কাজে যোগ দেবেন।

এদিকে, রেলমন্ত্রীর তিন আত্মীয়কে জরিমানা করে সাময়িক বরখাস্ত হওয়া টিটিই শফিকুল ইসলামকে দায়িত্বে পুনর্বহাল করা হয়েছে। পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে কর্মকর্তা (ডিআরএম) শাহীদুল ইসলাম রোববার দুপুর ১২টায় এ আদেশ দেন। তিনি তার অফিস কক্ষে বেলা সাড়ে ১১টায় প্রেস ব্রিফিং চলাকালে এ আদেশ দেন। একই সঙ্গে তদন্তকাজ অব্যাহত থাকবে বলে তিনি জানান।

পাবনার ঈশ্বরদী রেল জংশন থেকে বৃহস্পতিবার রাতে (৫ মে) টিকিট ছাড়া ট্রেনে ওঠেন ‘রেলপথ মন্ত্রীর আত্মীয়’ পরিচয়দানকারী তিন যাত্রী। টিকিট না কাটলেও তারা রেলের এসি কেবিনের সিট দখল করেন। এতে রেলের ভ্রাম্যমাণ টিকিট পরীক্ষক (টিটিই) তাদের জরিমানা করেন। পরে ‘রেলপথমন্ত্রীর আত্মীয়’ পরিচয়দানকারী ওই তিন যাত্রী তাদের সঙ্গে অসদাচরণ করা হয় বলে রেলের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষর কাছে অভিযোগ করেন। এতে টিটিই শফিকুল ইসলামকে বৃহস্পতিবার রাতেই সাময়িক বরখাস্ত করে রেল কর্তৃপক্ষ। বরখাস্তাদেশ শুক্রবার (৬ মে) থেকে কার্যকর হয়েছিল।

সূত্র: জাগো নিউজ
এম ইউ/০৮ মে ২০২২

Back to top button