জাতীয়

ঈদে প্রাণ ফিরছে রাজনীতিতে

ঢাকা, ০২ মে – করোনার ধাক্কায় গত দুটি বছর ঈদকেন্দ্রীক রাজনীতিতে সাধারণ জনগণ ও নেতাকর্মীদের সঙ্গে নেতার পারস্পরিক সৌহার্দ্য বিনিময়ের যে রেওয়াজ, সেটির দেখা মেলেনি। সাধারণ মানুষের মতো ঈদের আনন্দ ফ্যাকাসে ছিলো রাজনীতিতেও।

ঈদকে কেন্দ্র করে শীর্ষ নেতারা যেভাবে আপামর মানুষের সাথে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করতেন, গড়ে উঠতো মেলবন্ধন; সেটিও হয়ে ওঠেনি। তবে এবার করোনা নিয়ন্ত্রণে থাকায় চিরচেনা সেই দৃশ্য আবারো দেখা যাবে। রাজনৈতিক নেতারাও তাদের নিজেদের নির্বাচনি এলাকায় ফিরে গেছেন নেতাকর্মী আর সাধারণ জনগণের সঙ্গে ঈদ উদযাপন করতে। অনেকেই ঢাকা ঈদের নামাজ পড়ে নির্বাচনি এলাকায় যাবেন।

প্রতিবছর ঈদের দিন আওয়ামী লীগসহ রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মী, বিদেশি কূটনীতিক, পেশাজীবীসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করার প্রথা রয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার। তবে করোনাভাইরাসের কারণে গত দুটি বছর ঈদের দিন কোনো আনুষ্ঠানিক কর্মসূচি রাখা হয়নি। তিনি এবারের ঈদও উদযাপন করবেন ঢাকায় তার সরকারি বাসভবন গণভবনে। তবে আনুষ্ঠানিক কর্মসূচি না থাকলেও ফোনে ও ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ঢাকায় ঈদ করবেন। করোনা প্রাদুর্ভাবের পর থেকেই ঢাকায় ঈদ করছেন তিনি। এদিকে ঈদের আগে রমজান মাসে নির্বাচনি এলাকায় ঘুরে এসেছেন দলটির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী, কাজী জাফর উল্ল্যাহ, আবদুর রাজ্জাক, অবসরপ্রাপ্ত কর্নেল মুহাম্মদ ফারুক খান। ঈদের দিন তারা ঢাকায় থাকবেন। কেউ ঈদের নামাজ শেষে যেতে পারেন নির্বাচনি এলাকায়, সেই সম্ভাবনার কথাও বলেছেন।

ঢাকায় ঈদ উদযাপন করবেন সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম ও জাহাঙ্গীর কবির নানক। সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য আবদুর রহমান নির্বাচনি এলাকায় ফরিদপুরের মধুখালীতে ঈদ করবেন।

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য তোফায়েল আহমদ নিজের নির্বাচনি এলাকায় অবস্থান করছেন। ঈদ করে ঢাকায় ফিরবেন তিনি। উপদেষ্টা পরিষদের আরেক সদস‌্য ও ১৪ দলীয় জোটের মুখপাত্র আমির হোসেন আমু ঢাকায় ঈদ করবেন।

দলটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ তার নির্বাচনি এলাকায় ঈদ করবেন। এরই মধ্যে তিনি এলাকায় চলে গেছেন। আরেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপু মনি ঈদ করবেন ঢাকায়। যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম এরই মধ্যে নিজ এলাকা মাদারীপুর চলে গেছেন। সেখানে ঈদ করবেন তিনি। যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ তার নির্বাচনি এলাকা চট্টগ্রামে ঈদ করবেন।

সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক ঢাকায়, মির্জা আজম ও এসএম কামাল হোসেন তার নির্বাচনি এলাকায় ঈদ করতে সেখানে গেছেন। শফিউল আলম চৌধুরী নাদেলও ঈদ করবেন তার গ্রামের বাড়ি মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায়।

সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্যদের মধ্যে আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. নজিবুল্লাহ হিরু ঢাকায় ঈদ করবেন। এ ছাড়া কৃষি ও সমবায় সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী ঢাকায় ঈদ করবেন। ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী ঈদের সকালে ঢাকায়, বিকেলে চাঁদপুরে নিজ এলাকায় থাকবেন। দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া ঢাকায় থাকবেন।

প্রচার সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ তার নির্বাচনি এলাকা কালকিনিতে ঈদ করবেন। ঈদের দুই দিন পর ঢাকা ফিরবেন তিনি। বন ও পরিবেশ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক ড. সেলিম মাহমুদ ঈদ করবেন ঢাকায়। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার মো. আবদুস সবুর তার নির্বাচনি এলাকায় গিয়েছেন ঈদ করতে।

এ ছাড়া উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন ঈদ করবেন নিজ এলাকা চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায়। উপ-দপ্তর সম্পাদক সায়েম খান ঈদ করবেন ঢাকায়।

আওয়ামী লীগ নেতাদের মধ্যে বেশিরভাগ নেতা এবার তাদের নিজ এলাকায় ঈদ করতে এরই মধ্যে ঢাকা ছেড়ে চলে গেছেন। কেউ কেউ ঈদের দিন এবং ঈদের পরের দিন যাবেন জনগণের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে।

সূত্র : রাইজিংবিডি
এম এস, ০২ মে

Back to top button