উত্তর আমেরিকা

পুতিনের বিরুদ্ধে ‘চরম নিষ্ঠুরতা’র অভিযোগ যুক্তরাষ্ট্রের

ওয়াশিংটন, ৩০ এপ্রিল – যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা দপ্তরের অভিযোগ, ইউক্রেনে আগ্রাসন চালাতে গিয়ে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন চরম নিষ্ঠুরতা ও ভ্রষ্টাচারের পরিচয় দিয়েছেন।

মুখপাত্র জন কিরবি প্রশ্ন তুলেছেন যে ইউক্রেনে রাশিয়া যে নিষ্ঠুরতা চালাচ্ছে, সেটি কিভাবে কেউ নৈতিকভাবে সমর্থন করতে পারে। শনিবার বিবিসি এ খবর জানায়।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি শুক্রবার বলেন, তিনি এখনো পুতিনের সাথে শান্তি আলোচনায় রাজি আছেন।

পোলিশ মিডিয়ার সাথে আলাপকালে তিনি বলেন, তিনি পুতিনের সাথে সাক্ষাত করতে চেয়েছেন। কারণ, একজন ব্যক্তিই রাশিয়ায় সব সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন।

তবে রাশিয়ান বাহিনী দখল করা এলাকাগুলোতে যে ধরণের ধ্বংসাত্মক কার্যক্রম চালাচ্ছে তাতে যে কোন আলোচনার সম্ভাবনা ক্ষীণ হয়ে আসছে।

তিনি বলেন, ‘বুচা ও মারিউপোলের পর মানুষ তাদের মেরে ফেলতে চাইছে। এমন দৃষ্টিভঙ্গির মধ্যে কোন কিছু নিয়ে আলোচনা করা কঠিন।’

বৃহস্পতিবার ইউক্রেন ১০ জন রুশ সেনার বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগ তুলে তাদের ধরার ঘোষণা দিয়েছে। কিয়েভের উত্তরের এ শহরতলীতে অন্তত চারশ বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছেন।

ইউক্রেনে হামলার যে যৌক্তিকতা রাশিয়া দিয়েছে তা প্রত্যাখ্যান করে জন কিরবি বলেন, ইউক্রেনে রাশিয়া যা করছে সেটিকেই কেবল সুরক্ষা দেয়ার চেষ্টা করছেন পুতিন।

তার দাবি, সেখানে নিরীহ মানুষকে মাথার পেছনে গুলি করা হচ্ছে, গর্ভবতী নারী হত্যা করা হচ্ছে এবং হাসপাতালে বোমা মারার মতো নিষ্ঠুর ঘটনা ঘটেছে।

বিবিসির জোয়েল গুন্টার কিয়েভ থেকে জানান যে, ফেব্রুয়ারিতে হামলা শুরুর পর বহু বেসামরিক নাগরিককে রাশিয়া জোরপূর্বক সীমান্তের বাইরে ঠেলে দিয়েছে- এমন প্রমাণ পাওয়া যাচ্ছে।

রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরভ গত শনিবার প্রকাশিত এক সাক্ষাতকারে বলেন, ফেব্রুয়ারিতে যুদ্ধ শুরুর পর থেকে এ পর্যন্ত কমপক্ষে ১০ লাখ মানুষকে ইউক্রেন থেকে রাশিয়ায় সরিয়ে নেয়া হয়েছে। তিনি জানান, এর মধ্যে এক লাখ ২০ হাজার বিদেশি নাগরিকও রয়েছেন।

ইউক্রেনের ডেপুটি প্রধানমন্ত্রী বিবিসিকে জানান, মস্কো রুশ সেনাদের বিনিময়ে ইউক্রেনের বেসামরিক নাগরিকদের ব্যবহার করতে চাইছে, যা জেনেভা কনভেনশনের লঙ্ঘন।

ওদিকে কিয়েভে জাতিসংঘ মহাসচিবের সফরের সময় হামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে রাশিয়া। এ ঘটনায় একটি আবাসিক ভবনে থাকা একজন সাংবাদিক নিহত হয়েছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ইউক্রেনকে সামরিক, অর্থনৈতিক ও মানবিক সহায়তা দিতে ৩৩ বিলিয়ন ডলারের একটি প্রস্তাব দিয়েছেন দেশটির কংগ্রেসে।

বৃহস্পতিবার দেয়া ভাষণে এ প্রস্তাবনায় ২০ বিলিয়ন ডলার সামরিক, সাড়ে আট বিলিয়ন ডলার অর্থনৈতিক এবং তিন বিলিয়ন ডলার মানবিক সহায়তার কথা বলা হয়েছে।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি এটি ইউক্রেন ও পুরো বিশ্বকে আক্রমণকারীদের হাত থেকে মুক্ত হতে সহায়তা করবে।

কংগ্রেসের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি আশা প্রকাশ করেছেন যে প্রস্তাবটি কংগ্রেসে দ্রুতই পাস করা হবে। অন্যদিকে যুক্তরাজ্য পূর্ব ইউরোপে আট হাজার সেনা মোতায়েনের ঘোষণা দিয়েছে।

সূত্র: বাংলাদেশ জার্নাল
এম ইউ/৩০ এপ্রিল ২০২২

Back to top button