জাতীয়

ঘরমুখো মানুষের চাপ সামলাতে আকাশপথে বাড়তি ফ্লাইট

ঢাকা, ২৭ এপ্রিল – করোনার মহামারি কাটিয়ে উঠে দুই বছর পর এবার ঈদে ঘরে ফেরা মানুষের আনন্দযাত্রা। আপনজন্দের কাছে ফেরার এই যাত্রায় ভোগান্তি কমাতে এবার রাজধানীর অনেক মানুষই বেছে নিচ্ছেন আকাশপথ। সড়ক আর রেলপথের মতো এবার আকাশপথেও বাড়তি যাত্রীর চাপ। এই বাড়তি চাপ সামলাতে বিমান বাংলাদেশসহ অন্যান্য বেসরকারি এয়ারলাইন্সগুলো অভ্যন্তরীণ রুটগুলোতে ফ্লাইট সংখ্যা বৃদ্ধি করেছে।

এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, পবিত্র ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে ইতোমধ্যে দেশের অভ্যন্তরীণ সকল রুটের ফ্লাইটে প্রায় ৯০ ভাগ টিকিট বিক্রি হয়ে গেছে। ২৯ ও ৩০ এপ্রিল বেশিসংখ্যক মানুষ ঢাকা ছাড়বেন। এ বাদেও ২৭ এপ্রিল থেকে শুরু করে ২ মে পর্যন্ত বাড়ি ফেরা যাত্রীদের চাপ থাকবেই। অতিরিক্ত এই যাত্রীচাপের কারণে অভ্যন্তরীণ রুটগুলোতে ফ্লাইট সংখ্যাও পর্যাপ্ত পরিমাণ বাড়ানো হয়েছে।

এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষ আরও জানায়, ৩ থেকে ১০ মে পর্যন্ত ঢাকা থেকে সিলেট ও কক্সবাজারের টিকিটের বেশি চাহিদা রয়েছে। অনেকে ঈদের পর পরিবার পরিজন নিয়ে ঘুরতে যাবেন। সেক্ষেত্রে যাত্রী চাহিদার ভিত্তিতে এই দুই রুটের ফ্লাইট সংখ্যাও বাড়ানো হতে পারে।

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স ঢাকা থেকে সৈয়দপুর, বরিশাল, যশোর রুটে একটি করে ফ্লাইট বাড়িয়েছে। বেসরকারি এয়ারলাইন্স নভোএয়ার ঈদে ঘরে ফেরা মানুষের চাপ সামলাতে দিনে অতিরিক্ত ৭টি ফ্লাইট পরিচালনা করবে।

ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) মো. কামরুল ইসলাম গণমাধ্যমকে জানান, যাত্রী চাহিদার ওপর ভিত্তি করে রাজশাহী রুটে একটি এবং সৈয়দপুর রুটে দুটি ফ্লাইট বাড়িয়েছে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স।

ঢাকা থেকে এবার যশোর ও বরিশাল রুটে টিকিটের চাহিদা সবচেয়ে বেশি। সড়কপথে ফেরিঘাটের ঝামেলা বা রেলপথের অতিরিক্ত দুরত্ব এড়াতেই এই দুই অঞ্চলের রুটে আকাশপথকে বেছে নিচ্ছেন অনেকে। সড়কপথের যানজটের শঙ্কায় রাজশাহী ও সৈয়দপুর অঞ্চলের রুটেও আকাশপথেই ভরসা করছেন যাত্রীরা।

সূত্র : বাংলাদেশ জার্নাল
এম এস, ২৭ এপ্রিল

Back to top button