আইন-আদালত

এনু-রুপনের অর্থপাচার মামলার রায় আজ

ঢাকা, ২৫ এপ্রিল – ঢাকার গেন্ডারিয়া থানা আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত নেতা এনামুল হক এনু ও তার ভাই রুপন ভূঁইয়াসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে অর্থ পাচার মামলার রায় আজ সোমবার।

ঢাকার ৫ নম্বর বিশেষ জজ আদালতের বিচারক ইকবাল হোসেন এ রায় ঘোষণা করবেন।

রাজধানীর ওয়ারী থানার অর্থ্পাচার মামলাটির রায় ঘোষণার জন্য গত ৬ এপ্রিল দিন ঠিক ছিল। কিন্তু ওইদিন বিচারক ছুটিতে থাকায় তা পিছিয়ে আজকের দিন নির্ধারণ করা হয়।

এ মামলার অন্য আসামিরা হলেন- মেরাজুল হক ভূঁইয়া শিপলু, রশিদুল হক ভূঁইয়া, সহিদুল হক ভূঁইয়া, জয় গোপাল সরকার, পাভেল রহমান, তুহিন মুন্সি, আবুল কালাম, নবীর হোসেন শিকদার ও সাইফুল ইসলাম।

আসামিদের মধ্যে শিপলু, রশিদুল, সহিদুল ও পাভেল মামলার শুরু থেকে পলাতক। জামিনে আছেন তুহিন। এনু-রুপনসহ বাকি ৬ আসামি কারাগারে আছেন।

ক্যাসিনোবিরোধী অভিযানের সময় ২০১৯ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর গেণ্ডারিয়া থানা আওয়ামী লীগের তৎকালীন নেতা দুই ভাই, তাদের এক কর্মচারী এবং তাদের এক বন্ধুর বাসায় অভিযান চালায় র‌্যাব।

সেখান থেকে টাকা ও গহনা জব্দ করার পর ওয়ান্ডারার্স ক্লাবের কর্মচারী আবুল কালাম ও এনুর বন্ধু হারুন অর রশিদের বাসায় অভিযান চালানো হয়।

অভিযানে ৫ কোটি ৫ লাখ টাকা, ৮ কেজি স্বর্ণালঙ্কার ও ৬টি আগ্নেয়াস্ত্র জব্দ করে র‌্যাব। এরপর দুদক দুই ভাইয়ের সম্পদের বিষয়ে অনুসন্ধান চালায়।

৩৫ কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে ২০১৯ সালের ২৩ অক্টোবর দুজনের বিরুদ্ধে মামলা করে দুদক।

এজাহারে উল্লেখ করা হয়, এনু ২১ কোটি ৮৯ লাখ ৪৩ হাজার টাকার ও রুপন ১৪ কোটি ১২ লাখ ৯৫ হাজার ৮৮২ টাকার জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জন করেছেন। এসব ঘটনায় দুজনকেই আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কার করা হয়।

ঢাকার ক্রীড়াক্লাব গুলোতে ক্যাসিনো বন্ধে অভিযানের মধ্যে ২০২০ সালের ১৩ জানুয়ারি গ্রেপ্তার করা হয় এই দুই ভাইকে। অবৈধ সম্পদ অর্জন ও অর্থপাচারের অভিযোগে তাদের বিরুদ্ধে রাজধানীর বিভিন্ন থানায় ১২টি মামলা হয়।

তার মধ্যে ওয়ারী থানার অর্থ পাচার আইনের এ মামলা গত ১৬ মার্চ রাষ্ট্র এবং আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ হয়।

সূত্র : দেশ রুপান্তর
এম এস, ২৫ এপ্রিল

Back to top button